ভালোবাসা হোক উন্মুক্ত

গত বছর আমার এক বোনের সাথে রাস্তায় দেখা হলে আমরা দু’জন দুজনকে জড়িয়ে ধরি। গালে চুমু খাই। বাঙলাদেশের প্রতিটা পুরুষের চোখই একেকটা অণুবীক্ষণ যন্ত্র। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা শুয়োরগুলো অণুবীক্ষণ যন্ত্রের মাধ্যমে আমার বোনটিকে কামড়ে কামড়ে খাচ্ছিল। আমার বোনটির শাড়ি ভেদ করে ভেতরে প্রবেশ করছিল পুরুষতান্ত্রিক শুয়োরদের অর্গান। শারীরিকভাবে বোনটি আকর্ষণীয় ফিগারের অধিকারি। কোন নারীর আকর্ষণীয় শরীর হলে দেশে তাকে কী কী ধরণের অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় সেটা সকলেরই জানা।


গত বছর আমার এক বোনের সাথে রাস্তায় দেখা হলে আমরা দু’জন দুজনকে জড়িয়ে ধরি। গালে চুমু খাই। বাঙলাদেশের প্রতিটা পুরুষের চোখই একেকটা অণুবীক্ষণ যন্ত্র। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা শুয়োরগুলো অণুবীক্ষণ যন্ত্রের মাধ্যমে আমার বোনটিকে কামড়ে কামড়ে খাচ্ছিল। আমার বোনটির শাড়ি ভেদ করে ভেতরে প্রবেশ করছিল পুরুষতান্ত্রিক শুয়োরদের অর্গান। শারীরিকভাবে বোনটি আকর্ষণীয় ফিগারের অধিকারি। কোন নারীর আকর্ষণীয় শরীর হলে দেশে তাকে কী কী ধরণের অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় সেটা সকলেরই জানা।

হঠাৎ করে ২ জন ঠোলা অর্থাৎ পুলিশ এসে উন্মুক্ত আকশের নিচে অশ্লীলতার দায়ে আমাদের সাথে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। পুলিশ জানতে যায় আমাদের কী সম্পর্ক! কিন্তু ভাই ও বোন দুজনই যেহেতু ঘাউরামির শীর্ষে সুতরাং আমরা দেখতে চাচ্ছিলাম তাদের দৌড় কতদূর! এবং সত্যি সত্যি অসতের দৌড় অনেক দূর পর্যন্তই হয়। তারা বোনের বুকের দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন করছিল। বোন উত্তর দিচ্ছিল, চোখের ডাক্তারের কাছে গিয়ে প্রথমে চিকিৎসা করিয়ে এসে তারপর না হয় কথা বলা যাবে। পুলিশ দুটোকে আমরা দুজন ধূলিসাৎ করেছিলাম।

কিন্তু বাঙলাদেশে প্রতিনিয়ত এমন কোটি কোটি ঘটনা ঘটে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে শুরু করে যে কোন পার্ক, উদ্যান, মাঠ, লেক, রাস্তা সবখানেই পুলিশসহ ধুর্ত মানুষ ওঁত পেতে থাকে শান্তশিষ্ট ভীত মানুষকে ভয় ভীতি দেখিয়ে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য। বিভিন্ন রাজনৈতিকদলের কর্মীরাও এমন কাজ করে থাকে।

যে দেশে প্রেম করা নিষেধ, প্রেম করা অশ্লীল, প্রেম করার অপরাধে উদ্যান থেকে পুলিশ যুবক-যুবতী, প্রেমিক-প্রেমিকাদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়, টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেয়, পরিবারের ভয় দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করতে বাধ্য করে সেই দেশে ধর্ষণ জনপ্রিয় হবেই। ভালোবাসা যেখানে নিষিদ্ধ, প্রেম সেখানে অশ্লীল, ধর্ষণ সেখানে শ্লীল। ভালোবাসার মানুষকে চুম্বন করতে লুকিয়ে দেয়ালের পেছনে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভালোবাসা হোক উন্মুক্ত। চুম্বনের জয় হোক। ভালোবাসা দিবসে পুলিশি পাহারায় প্রকাশ্যে চুমু খাব।

২ thoughts on “ভালোবাসা হোক উন্মুক্ত

  1. ওহে ছেলে তুমি দেখি বাপকা বেটা
    ওহে ছেলে তুমি দেখি বাপকা বেটা হচ্ছ!
    রাস্তা ঘাটে বান্ধবীকে ধরে চুমাচুমি;দলন-মর্দন এগুলো বাংগালী সংস্কৃতির অংশ নয়। ইউরোপে এসব চলতে পারে। তাই এসব করতে হবে একটু রয়ে-সয়ে; আড়ালে-আবডালে।

  2. বাঙালির নিজস্ব একটা সংস্কৃতি
    বাঙালির নিজস্ব একটা সংস্কৃতি আছে। আর এই সংস্কৃতি তাকে ধরে রাখতে হবে।
    ভালোবাসা বৈধ হলেও তা একেবারে উন্মুক্ত করার কোনো মানে হয় না।
    ধন্যবাদ আপনাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *