মিশন ইনকমপ্লিট

# মিশন # ইনকমপ্লিট

মানুষ পৃথিবীর শ্রষ্ঠ জীব। শ্রেষ্ঠ জীব
হয়ে জন্মেছি -কত গর্ব,কত অহংকার!
আহা গর্বে পা মাটিতে পরে না।
আচ্ছা মেদহীন মস্তিস্কে একবার
ভেবে দেখবেন?-যে জন্ম নিয়ে এত
গর্ব করছি আমরা।সে জন্মে আমাদের
আসলে কি কোন হাত ছিল?
অাবেকআপ্লুত হয়ে প্লিজ পূর্বজন্ম-
পরজন্ম, আদম -হাওয়া,এছা-তেছা সহ
হাজারখানিক বানী ত্যাগ করবেন না
এখানে। আগেই বলে দিচ্ছি ইহা একটি
আবেকবহির্ভূত লিখা।থিন্ক
প্রেকটিকেল।
আচ্ছা যে জন্মে আমাদের কোন হাত
নেই,সেই জন্ম নিয়ে এত গর্ব কেন?
আপনার বয়স ধরে নিলাম ২০। জন্ম থেকে
২০ বছর এর মধ্যে প্রথম১ থেকে ৭ বছর
পর্যন্ত আপনি আত্মকেন্দ্রিক ছিলেন।

# মিশন # ইনকমপ্লিট

মানুষ পৃথিবীর শ্রষ্ঠ জীব। শ্রেষ্ঠ জীব
হয়ে জন্মেছি -কত গর্ব,কত অহংকার!
আহা গর্বে পা মাটিতে পরে না।
আচ্ছা মেদহীন মস্তিস্কে একবার
ভেবে দেখবেন?-যে জন্ম নিয়ে এত
গর্ব করছি আমরা।সে জন্মে আমাদের
আসলে কি কোন হাত ছিল?
অাবেকআপ্লুত হয়ে প্লিজ পূর্বজন্ম-
পরজন্ম, আদম -হাওয়া,এছা-তেছা সহ
হাজারখানিক বানী ত্যাগ করবেন না
এখানে। আগেই বলে দিচ্ছি ইহা একটি
আবেকবহির্ভূত লিখা।থিন্ক
প্রেকটিকেল।
আচ্ছা যে জন্মে আমাদের কোন হাত
নেই,সেই জন্ম নিয়ে এত গর্ব কেন?
আপনার বয়স ধরে নিলাম ২০। জন্ম থেকে
২০ বছর এর মধ্যে প্রথম১ থেকে ৭ বছর
পর্যন্ত আপনি আত্মকেন্দ্রিক ছিলেন।
অর্থাৎ এই সময়টাতে আপনার
পৃথিবীতে শুধু আপনিই একমাত্র প্রানি।
এই সময়টা বাদে আজকে পর্যন্ত আপনার
হাতে ১৩ বছর সময় ছিল।১৩ বছর?১৩ টি
বসন্ত? কি করেছেন এই সময়টা
পৃথিবীতে?ঠিক এখনি যদি আপনি
মারা যান প্রাকৃতিক নিয়মে আরো
অনেকের সাথে যারা একি সময়ে
পৃথিবীতে মারা যাচ্ছে,কাল
আপনাকে পৃথিবীর মানুষ মনে রাখবে
কি করে?কেনই বা মনে রাখবে?
প্রাকৃতিক নিয়মে আসলেন আবার
প্রাকৃতিক নিয়মেই চলে গেলেন! চান্স
মিস-শ্রেষ্ট জীব হয়েও পৃথিবী থেকে
হারিয়ে গেলেন কোন চিহ্ন না
রেখেই!
আসলে এগুলোই বাস্তবতা।এভাবেই
হয়ে অাসছে।আমরা জন্মাচ্ছি আমরা
মারা যাচ্ছি। গুটি কয়েক ভিন্নতাও
অাছে,কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে
আমরা অত্যন্ত চালাক মানুষেরা এই
ভিন্নতাকে গায়ে মাখানোর ভয়ে
মাথায় তুলে রেখেছি। জন্ম নিয়েই
কেও আর মুহম্মদ হতে চাই না।কৃষ্ণের
দেখিয়ে যাওয়া পথে কেও আর ভাল
কাজ করতে রাজি নয়,সে পূজনীয়।
তাকে দুধ খাওয়ালে সে তুষ্ট!তিনি
পবিত্র দুষ্ট! তাদের জায়গায় নিজেকে
চিন্তা করাও পাপ! যিশুর অনুসারি
খুঁজে পাওয়া যাবে,কিন্তু যিশু হতে
নারাজ সবাই।
এখানেই সমস্যা। আমরা স্মরনীয় হতে
চাই না,হতে চাই অনুসারি। নিজেদের
সৃষ্টিকর্তার জায়গায় কল্পনা করতে
আমাদের ভয়। ছোট্ট একটা সৃষ্টি হয়েই
কিছুদিন হাই হুতাস করব তারপর চলে
যাব চুপি চুিপ। মিশন ইনকমপ্লিট!
রাস্তার পাশে ডিজিটেল ওজন
মাপার মেশিন নিয়ে মাত্র ২ টাকার
ব্যবসা করে যে লোকটা,তারও একটা
দুঃখী দুঃখী গল্প থাকে।এরকম খুব বয়স্ক
একজনকে আমি চিনতাম।চিরকুমার
মানুষ।শেষ বয়সে সে ছাড়া পৃথিবীতে
তার আর কেও নেই।তার গল্পটা আমি
ধৈয্য নিয়ে একদিন শুনেছিলাম।
আফসোসে ভরা একটা গল্প ছিল সেটি।
যেখানে শেষ অাফসোসটা ছিল
এরকম-‘বাজান কাইল যদি আমি আর না
তাহি,পরশু কেও আর জাইনবো না আমার
এই দুখের কথা”। কিছুদিন আগে লোকটা
মারা গেছে।বড় আফসোস তার গল্পটা
পৃথিবীতে আমার মত একজন ভুলো মনা
মানুষ ছাড়া কেও জানল না। আমার ঐ
বৃদ্ধ চাচা জীবনের অনেকগুলো বসন্ত
হাতে পেয়েছিল,কাজে লাগাতে
পারে নি।আপনি ও পারেন নি! আপনার
দুখের, সুখের,আফসোস আর ক্লান্তির গল্প
গুলো পানসে কেও শুনবে না,আর যদি
কেও শুনে ও কোন লাভ হবে না তাতে।
কারন হয়ত যে মানুষটা শুনবে সে ও
আপনারি মত ব্যর্থ অতিথি পাখি! ওজন
মাপা বৃদ্ধ চাচার মত আপনার মিশন ও
ইনকমপ্লিট!
সৃষ্টিকর্তা হোন,চাইলেই পারবেন। শুধু
দরকার সৃজনশীল মনোভাব আর সৃষ্টি
করার সাহস।মিশন কমপ্লিট করে
যান,কালকের পৃথিবী আপনাকে মনে
রাখবে।
সবুজ মূর্খ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *