বিশ্বজুড়ে জাইকা (Zika) ভাইরাস আতঙ্ক,সতর্ক হতে হবে এখনি!

বিশ্বজুড়ে এখন চলছে জিকা ভাইরাস আতঙ্ক। ব্রাজিলের পর আমেরিকায় ও ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস। এরই মাঝে বিশ্বের ২৩ টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। ধারনা করা হচ্ছে ৩০-৪০ লাখ মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস ঠেকাতে ইতোমধ্যে তৎপর হয়ে উঠেছে ডব্লিউএইচও,সিডিএ এর মত সংস্থাগুলি। আসুন জেনে নেয়া যাক এই ভাইরাস সম্পর্কিত কিছু তথ্য:


বিশ্বজুড়ে এখন চলছে জিকা ভাইরাস আতঙ্ক। ব্রাজিলের পর আমেরিকায় ও ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস। এরই মাঝে বিশ্বের ২৩ টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। ধারনা করা হচ্ছে ৩০-৪০ লাখ মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস ঠেকাতে ইতোমধ্যে তৎপর হয়ে উঠেছে ডব্লিউএইচও,সিডিএ এর মত সংস্থাগুলি। আসুন জেনে নেয়া যাক এই ভাইরাস সম্পর্কিত কিছু তথ্য:

যেভাবে এল: জাইকা ভাইরাসটি নতুনভাবে আলোচিত হলেও এর উৎপত্তি কিন্ত বেশ পুরানো। গবেষকেরা ১৯৪৭ সালে উগান্ডার জাইকা নামের বনে রেসাস মেকাক বানরের উপর ইয়েলো ফিবার নিয়ে গবেষনা করছিলেন (zika meaning “overgrown”)। সেখানে বানরটি জ্বরে আক্রান্ত হলে তার সিরাম আলাদা করার পর জিকা নামের এজেন্টটি আবিষ্কার করা হয়। ১৯৫৪ সালে নাইজেরিয়ায় সর্বপ্রথম মানুষ থেকে এই ভাইরাসের জীবানু আলাদা করা হয়। প্রথম আউটব্রেক হয় মাইক্রোনেশিয়ার ইয়েপ দ্বীপুঞ্জে ২০০৭ সালে।। যদিও তখন এটাকে ডেঙ্গু বলে মনে করা হয়েছিল। পরবর্তিতে ২০১৫-১৬ তে বিশাল পরিধিতে ছড়িয়ে পড়ে ব্রাজিল, দক্ষিন এবং সেন্ট্রাল আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে।

উপসর্গ ও প্রতিকার: মূলত এডিস ইজিপ্ট নামক মশার মাধ্যমে এই রোগটি ছড়িয়ে থাকে। সাধারন উপসর্গগুলো হল জ্বর, মাথাব্যাথা,ফুসকুড়ি, লাল লাল গোটা,জয়েন্টে ব্যাথা,চোখ ফুলে যাওয়া ইত্যাদি।

তাছাড়া নতুন সদ্যোজাত শিশুরা “মাইক্রোসেফালি” নামক এক ধরনের কনজেনিটাল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এতে শিশুর ব্রেনের বৃদ্ধি সঠিকভাবে হয় না। বুদ্ধির বিকাশ ও শারীরিক বিকালঙ্গতা হতে পারে এ থেকে।

হতাশার খবর হল,এই রোগের এখন পর্যন্ত কোন ভ্যাক্সিন বা প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি। যেহেতু মশার মাধ্যমে রোগটি ছড়ায় সেজন্য বসতবাড়িতে যাতে মশা না জন্মাতে পারে এবং মশার কামড় থেকে বাচার ব্যবস্থা করা উচিত। তাছাড়া বিদেশ ভ্রমনের ক্ষেত্রেও সতর্ক থাকা উচিত। জাইকা ভাইরাস নিয়ে WHO (World health Organization) এর একটি জনসচেতনতামূলক ভিডিওলিংক দেয়া হল : https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=1063081303737252&id=154163327962392

তথ্যসূত্র: www.who.int/mediacentre/factsheets/zika/en/
www.cdc.gov/zika/symptoms/
www.npr.org/sections/health-shots/2016/01/28/464686993/u-s-health-agencies-intensify-fight-against-zika-virus
www.dw.com/bn/জিকা-ভাইরাস-সম্পর্কে-আপনার-যা-জানা-উচিত/g-19009384

২ thoughts on “বিশ্বজুড়ে জাইকা (Zika) ভাইরাস আতঙ্ক,সতর্ক হতে হবে এখনি!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *