মুন্ডুহীন

ফ্রান্সের রাজার একবার বিচিত্র এক শখ হলো। তিনি তার দেশের নামকরা এক ভাষ্কর’কে ডেকে বললেন তাঁর দেশের প্রতিটি জনগনের একটি করে ভাস্কর্য বানাতে। একমাসের সময় চেয়ে সেই ভাষ্কর তার কাজে লেগে গেলেন।

ভাষ্কর একমাস পর রাজাকে বললেন, জনাব, মূর্তি রেডি। কিন্তু রাজা এসে ভাষ্করের কাজ দেখে তো ভীষণ ক্ষেপে গেলেন; বেচারা ভাষ্কর হাজার হাজার পা বানিয়ে রেখে দিয়েছে, যাদের কোন মাথা নাই!!

রাজা ভাষ্করকে জিজ্ঞাস করলেন, এইডা কি করলা ভাস্কর মিয়া? খালি দেখি পা আর পা, মাথা কই?

ভাস্কর তখন স্মীত হেসে কহিলেন, আপনি কোন দেশের মানুষের মূর্তী/ভাস্কর্য বানাইতে কইছেন? মহাশয়?


ফ্রান্সের রাজার একবার বিচিত্র এক শখ হলো। তিনি তার দেশের নামকরা এক ভাষ্কর’কে ডেকে বললেন তাঁর দেশের প্রতিটি জনগনের একটি করে ভাস্কর্য বানাতে। একমাসের সময় চেয়ে সেই ভাষ্কর তার কাজে লেগে গেলেন।

ভাষ্কর একমাস পর রাজাকে বললেন, জনাব, মূর্তি রেডি। কিন্তু রাজা এসে ভাষ্করের কাজ দেখে তো ভীষণ ক্ষেপে গেলেন; বেচারা ভাষ্কর হাজার হাজার পা বানিয়ে রেখে দিয়েছে, যাদের কোন মাথা নাই!!

রাজা ভাষ্করকে জিজ্ঞাস করলেন, এইডা কি করলা ভাস্কর মিয়া? খালি দেখি পা আর পা, মাথা কই?

ভাস্কর তখন স্মীত হেসে কহিলেন, আপনি কোন দেশের মানুষের মূর্তী/ভাস্কর্য বানাইতে কইছেন? মহাশয়?

রাজা কহিলেন, বেটা আমি আমার দেশের জনগণের মূর্তি বানাইতে কইছিলাম। ভাস্কর কিঞ্চিত লজ্জিত হইয়া কহিলেন, ওহ স্যরি!! আমি আরো ভাবছি বাংলাদেশের মানুষের মূর্তি বানাইতে কইছেন!!

ভাস্কর সেদিন ঠিকই আমাদের মুন্ডুহীন মূতি বানিয়েছিলেন। আমাদের টাকা আছে, পয়সা আছে, বাড়ি আছে, গাড়ি আছে, গৃহপালিত পশু আছে, শস্য ক্ষেত আছে, ঈমান আছে, টুপি আছে, মসজিদ আছে, মন্দির আছে, কুরান-পুরান সবই আমাদের আছে।

কিন্তু আমাদের কোন মাথা নাই। আছে খালি দুইটা পা। কোন গুজব শুনলেই আমরা পা দিয়ে দৌড়ে রাজপথে যাই। সেখানে গিয়ে মিছিলের নামে আল্লাহ আকবার বলে মন্দির ভাংচুর করি, কিংবা নিজ ধর্মগৃহ মসজিদে বোমা ফাটাই। আবার সেই পা দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাই অলৌকিক কোন আস্তানায়।

ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁর মিউজিয়ামে ভাংচুর অবশ্যই আমাদের সংস্কৃতির জন্য কলংক। তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি ওইসব মধ্যযুগের বর্বরদের। কে জানি কার ভুলে তারা আধুনিক যুগে জন্ম নিয়েছে। তাদের আসলে জন্ম নেওয়া উচিত ছিল ১৪০০ বছর আগে। ধিক্কার…

ওদিকে জার্মান, ফ্রান্স, রাশিয়ার মত্য সভ্য দেশ থেকে তাদের বিতাড়িত করা হচ্ছে, তাদের চরিত্রগত দোষে। লিখে রাখুন, এমন একটা সময় আসবে যখন তাদের জাত পরিচয় শুনলেই মানুষ দূর দূর করে তাড়াবে।

আমি সেই দিনের অপেক্ষায় আছি….

১ thought on “মুন্ডুহীন

  1. একজন যাত্রীর প্রথম পাতায় একের
    একজন যাত্রীর প্রথম পাতায় একের অধিক পোস্টের বিষয়ে ইস্টিশনবিধিতে কিছু নিয়মের বাধ্যবাধকতা আছে। আপনাকে ইস্টিশনবিধি পড়ে ব্লগিং করার জন্য অনুরোধ জানানো হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *