ক্লিন ঢাকা কনসার্ট উইথ বলিউড কুইন অ্যান্ড এজে – এবং কিছু কথা

“দেখলাম,
ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন একটা অভিযান শুরু করেছেন। পরিচ্ছন্নতা অভিযান। আপনার শহর পরিষ্কার রাখুন। এমনকি, তিনি ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস দিবসে নিজের শহর আর স্বাস্থ্যকে ভালোবেসে শহর পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামতে নগরবাসীকে আহ্বান জানাচ্ছেন। ”

আমি সাঈদ খোকন কে ব্যাক্তিগত ভাবে খুব সাপোর্ট করি। তিনি মেয়র হওয়ার পর অনেক ভালো উদ্দোগ নিয়েছেন,অনেক কাজ করেছেন।দুই ঢাকার মেয়রই এবার অনেক কাজ করছেন। কিন্তু সাঈদ খোকনের এবারের কাজটা একদম খারাপ লাগলো। তিনি তার

“দেখলাম,
ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন একটা অভিযান শুরু করেছেন। পরিচ্ছন্নতা অভিযান। আপনার শহর পরিষ্কার রাখুন। এমনকি, তিনি ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস দিবসে নিজের শহর আর স্বাস্থ্যকে ভালোবেসে শহর পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামতে নগরবাসীকে আহ্বান জানাচ্ছেন। ”

আমি সাঈদ খোকন কে ব্যাক্তিগত ভাবে খুব সাপোর্ট করি। তিনি মেয়র হওয়ার পর অনেক ভালো উদ্দোগ নিয়েছেন,অনেক কাজ করেছেন।দুই ঢাকার মেয়রই এবার অনেক কাজ করছেন। কিন্তু সাঈদ খোকনের এবারের কাজটা একদম খারাপ লাগলো। তিনি তার
এই অভিযান প্রোমোট করার জন্য অন্তর শোবিজের সাথে একটি প্রমোট প্রোগ্রাম আয়োজন করেছেন…. যেখানে প্রমোট করার জন্য আসছেন কারিনা কাপূর এবং ভারতীয় এক শিল্পী। অন্তর শোবিজের ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর আবার আমাদের অনন্ত জলিল।

ভীনদেশী এক নায়িকা এবং গায়ক এসে আমাদের দেশের একটি কাজকে কিভাবে প্রোমোট করবে এটা আমার ক্ষুদ্র মস্তষ্কে কোন ভাবেই কাজ করছে না। যে যায়গায় কনসার্ট আয়োজন করা হয় সেই যায়গাটার অবস্থা কেমন হয় তা হয়ত সবারই বোধগম্য । আমাদের দেশে এটা সব ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে কোন বড় ইভেন্ট হলেই বলিউডের তারকাদের এনে নাচানো হচ্ছে-গাওয়ানো হচ্ছে।আমাদের দেশের শিল্পীরা আমাদের দেশের বড় ইভেন্টে ডাকই পাচ্ছেন না।এআর রহমানকে দিয়ে শো করাতে করাতে এবি কখন মঞ্চে উঠবেন সেটা বেমালুম ভুলেই গিয়েছিলেন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের লোক। এলআরবি আর মাইলসের সম্পর্কের দূরত্বের সূত্রপাতের কাহিনী সবারই হয়ত জানা।

আপনার যদি আপনার পরিচ্ছন্নতা অভিযান প্রমোট করতেই হয় তবে দেশী ব্যান্ডদের দিয়েই করান না কেন। আপনি বললে তারা হয়ত খুশি মনে আপনার পরিচ্ছন্নতা অভিযান নিয়ে দু একটা গান লিখে খুশি মনে গাবে।এতে ভালো ইফেক্টই হবে…..

আপনি বেবি ডলে কারিনাকে নাচিয়ে ঢাকা পরিষ্কার রাখা কি এমন বাণী প্রচার করার আশা রাখেন??

আর দূষণ রোধ যেহেতু সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু অনন্ত
জলিলকে বলুন তিনি যেন তার শিল্পকারখানার বজ্য বুড়িগঙ্গায় না পাঠিয়ে বজ্য শোধনাগার স্থাপন করেন।

[অনন্ত জলিলের গার্মেন্স গুলিতে বজ্য শোধনাগার আছে কিনা আমি জানি না।থাকলে Most Welcome]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *