শুক্রাণুর প্রকৃতির উপর নির্ভর করবে মানুষের আয়ু

স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে একজন মানুষ স্বাভাবিকভাবে কত সময় বেঁচে থাকবে সেটা তার শুক্রাণু বা বীর্যের প্রকৃতি দেখে শনাক্ত করা সম্ভব। যে সকল পুরুষের বীর্যে অস্বাভাবিকতা থাকে তারা স্বাভাবিক লোকের চেয়ে কম আয়ু পান। বীর্যের প্রকৃতি নির্ধারণ করা হয়েছে তার আয়তন, ঘনত্ব, একক আয়তনে শুক্রকীটের পরিমাণ[শুক্রাণুর সংখ্যা], আঁকার-আকৃতি, স্থায়িত্ব ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে।

স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে একজন মানুষ স্বাভাবিকভাবে কত সময় বেঁচে থাকবে সেটা তার শুক্রাণু বা বীর্যের প্রকৃতি দেখে শনাক্ত করা সম্ভব। যে সকল পুরুষের বীর্যে অস্বাভাবিকতা থাকে তারা স্বাভাবিক লোকের চেয়ে কম আয়ু পান। বীর্যের প্রকৃতি নির্ধারণ করা হয়েছে তার আয়তন, ঘনত্ব, একক আয়তনে শুক্রকীটের পরিমাণ[শুক্রাণুর সংখ্যা], আঁকার-আকৃতি, স্থায়িত্ব ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে।

এই বৈশিষ্ট্যগুলো পুরুষের বন্ধ্যত্বের জন্যও দায়ী। কোনো প্রকার দুর্ঘটনা ছাড়া যারা অল্প বয়সে মারা গিয়েছে তাদের সকল তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে তাদের অধিকাংশই শুক্রাণুতে অস্বাভাবিকতার শিকার। ১৯৮৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত প্রাপ্ত উপযুক্ত ১২ হাজার লোকের তথ্য বিশ্লেষণ করে এই সিদ্ধান্তে আসেন তারা। এখানকার ১২ হাজার লোকের মাঝে দেখা যায় ৬৯ জন লোক কোনো প্রকার দুর্ঘটনা ব্যাতিরকেই অল্প বয়সে মারা যান। সংখ্যাটা সাদা হিসেবে খুব কম হতে পারে, কিন্তু এটা অস্বাভাবিক। আরও অস্বাভাবিক এদের সবাই শুক্রাণুর সমস্যায় ছিলেন।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মাইকেল আইসেনবার্গ ও তার অধীনে কয়েকজন সহযোগী এটা নিয়ে গবেষণা করেছেন দীর্ঘ আট বছর। আট বছরে প্রাপ্ত উপাত্তের ফলাফল তারা ঐঁসধহ জবঢ়ৎড়ফঁপঃরড়হ জার্নালে প্রকাশ করেছেন।
এই দিক থেকে চিকিৎসাবিজ্ঞান দারুণ কিছু পেতে পারে। আগে ভাগে সমস্যা শনাক্ত হয়ে গেলে সহজেই চিকিৎসা করে স্বাভাবিক করে ফেলা যাবে। বাড়বে গড় আয়ু। এখানে একটা বিষয় খেয়াল করার মত, সেটা হচ্ছে স্বাভাবিক মৃত্যু। এক্সিডেন্টে কিংবা দুরারোগ্য কোন ব্যাধি যেমন ক্যানসার, এইডস ইত্যাদি রোগের বেলায় অল্প বয়সে মারা যাওয়া এই হিসেবের মধ্যে পড়ে না।

অনেকে গবেষণার এই ফলাফলকে স্বাভাবিক হিসেবেই নিচ্ছেন। শুক্রাণু সহ অন্যান্য কোষ, টিস্যু খাবারের উপর নির্ভর করে থাকে। টিস্যুর জন্য উপকারী নয় এমন খাবারে অন্যান্যদের মত শুক্রাণুও আক্রান্ত হয়। আর অন্যান্য টিস্যুর ক্ষতি হলে সেটা একজন লোকের আয়ুর উপর প্রভাব ফেলতেই পারে।

৪ thoughts on “শুক্রাণুর প্রকৃতির উপর নির্ভর করবে মানুষের আয়ু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *