রূপার খোঁজে

কোনো এক পদার্থ রূপার উদ্দেশ্যে, অপদার্থ হিমুর খোলা চিঠি……….

প্রিয় রূপা কেমন আছ?
ভাবছ ইনবক্সে জিজ্ঞেস না করে এখানে কেন?
আসলে আমি অতি অধম, তোমার ইনবক্স আমার জন্য খোলা থাকা সত্যেও এখানে জিজ্ঞেস করছি।
অধম হবারইতো কথা, তোমরা রূপাদের ঝাপটে থাকা মেজাজে সব হিমুরাই অধম.
আশা করি ভালো & সুস্থ সুন্দর আছ?
সবসময় দেখি তুমি অনলাইনে থাকো কিন্তু গ্রুপ চ্যাট ছাড়া তোমার ইনবক্সে নক দেয়া হয়না
তাই বলে ভেবোনা আমি আগের ছেয়ে কেমন জেনো অদ্ভুত হয়ে গেছি।
আসলে ইনবক্সে নক দিতে গেলে কেমন জানি ভয় ভয় করে।
যদি সেই অক্টোবর মাসের কালো ঘরের দরজাটা আমার জন্যে আবার উন্মুক্ত করে দাও।

কোনো এক পদার্থ রূপার উদ্দেশ্যে, অপদার্থ হিমুর খোলা চিঠি……….

প্রিয় রূপা কেমন আছ?
ভাবছ ইনবক্সে জিজ্ঞেস না করে এখানে কেন?
আসলে আমি অতি অধম, তোমার ইনবক্স আমার জন্য খোলা থাকা সত্যেও এখানে জিজ্ঞেস করছি।
অধম হবারইতো কথা, তোমরা রূপাদের ঝাপটে থাকা মেজাজে সব হিমুরাই অধম.
আশা করি ভালো & সুস্থ সুন্দর আছ?
সবসময় দেখি তুমি অনলাইনে থাকো কিন্তু গ্রুপ চ্যাট ছাড়া তোমার ইনবক্সে নক দেয়া হয়না
তাই বলে ভেবোনা আমি আগের ছেয়ে কেমন জেনো অদ্ভুত হয়ে গেছি।
আসলে ইনবক্সে নক দিতে গেলে কেমন জানি ভয় ভয় করে।
যদি সেই অক্টোবর মাসের কালো ঘরের দরজাটা আমার জন্যে আবার উন্মুক্ত করে দাও।
সেই আঘাত আর সইতে পারবোনা, তা মনে আসলেই নক দিতে যেয়েও আর দেয়া হয়না.

তুমি কোনো এক জায়গা বলেছিলে রূপাকে পেতে হলে হিমুকে ৬বছর অপেক্ষা করতে হবে।
তুমি হয়তো জানোনা হিমু অনেকটাই ধৈর্যহীন।
তবে হিমুকে সত্য আশ্বাস দিয়ে বিশ্বাস করাতে পারলে হিমু ব্যাপকভাবে ধৈর্যশীল।
কিভাবে সে আশ্বাস দিবে তা তুমিই ভালো জান.

তুমি পড়েছো কিনা জানিনা?
গল্পের হিমুকে যেদিন টুটুল পরিচয়ে জেল খানায় নিয়ে যায় সেদিন হিমু অনেকটাই অস্বস্তিকর অবস্থায় ছিল।
অসংখ্য ব্যর্থতাই তার সারাদিন কেটেছে।
আরো একদিন, যেদিন হিমুকে তার আয়েশা খালা ঘরে তালা মেরে ঘুরতে বেড়িয়েছিল সেইদিনও হিমু প্রচণ্ড অস্বস্তিকর যন্ত্রণায় চটপট করেছিলো।
সেখান থেকে পালিয়ে যাবার নানান কৌশল খুঁজেছিল।
বলেছিল স্বর্গপুরীতে তালাবন্ধও অসহনীয়
কারণ তার খালার বাড়ীটা ছিল স্বর্গীয়.

যেমনটা আমাদেএ চ্যাট গ্রুপ স্বর্গীয় কিংবা আনন্দিত হলেও তোমার ইনবক্সটা অনেক আতংকিত.

তোমাকে বলেছিলাম গল্পের হিমু না হলেও এই ভার্চুয়ালের হিমু অনেক ভিতু & লাজুক.
তুমি বলেছিলে রূপার জন্য সে সাহসী হয়ে উঠবে.
সত্য বলতে কি তোমাকে বিশ্বাস করাতে পারবোনা?
কতোটা ভয় হিমু তোমাকে পায়।
তুমি একবার, শুধু একবার এই ভয় টুকু ভেঙ্গে চুরমার করে দাও
দেখবে পৃথিবীর সব ভয় তোমার জন্য হিমালয় ছুঁয়ে জয়ী করে আনবে.

প্রিয় রূপা আশা করি আমার কথা বুঝতে পারছো?
৬বছর অপেক্ষা করা হিমুর জন্য কোনো ব্যাপার না।
তবে তাকে এই ৬টি বছর অপেক্ষা করে বেঁচে থাকার আশ্বাস টুকু দিতে হবে।
মনে করো হিমুর এখন ২০+বছর
আগামী ৬বছর পর তার হবে ২৬+বছর
সে কতোটা উচ্চপর্যায় পৌঁছাতে পারবে তা না বলতে পারলেও তার বাবার মহাপুরুষের ক্ষমতায় পৌঁছাতে পারবে, এটা ধরে রাখতে পার

রূপা তুমি কিন্তু জানো হিমুর আলৌকিক একটা ক্ষমতা আছে?
সে ক্ষমতা দিয়ে অনেককেই অভিভূতে রাখার ক্ষমতা রাখে।
কিন্তু রূপার কাছে সে ক্ষমতা কখনোই দেখাতে পারেনা।
আশা করি তুমি এটাও এখন বুঝছো?
সবার কাছে হিমু একরকম হলেও
হুয়ায়ূনের গল্পের বাহিরের মানুষটি তোমার অন্যরকম হিমু.

তুমি যতোই দেখাতে চাও হিমুর উপর তোমার দুর্বলতার দৃষ্টিপথ
তা দেখেও হিমু কিছু বলতে পারেনা কারণ সেই অক্টোবর মাসের ভয় তার মনে এখনো অমর হয়ে আছে

প্রিয় রূপা, গল্পের হুমায়ূন না হলেও আমাদের হুমায়ুন ইনবক্স করে গল্পের হিমুর বাবার কিছু লুকাইত উপদেশ দিয়েছে
আমি প্রবল মনবল দিয়ে সে উপদেশ মেনে চলার চেষ্টায় আছি.
উপদেশঃ দেখা যাক এর শেষ কি হয়, নিজেকে লুকিয়ে রাখার চেষ্টায় বিদ্যমান থাক।
দেখবে রূপা যদি সত্যি তোমার হয়ে থাকে সে’ই তোমাকে খুঁজে নিবে।
অদেখা সম্পর্কগুলো অনেক গভীর হয়।
দুইজনই দুই দেশের অচেনা অজানা কেউ।
ভেঙ্গে পড়লে চলবেনা, চালিয়ে যাও।
অপেক্ষা করো, অপেক্ষার পহর শেষ স্বর্গলাভ নিশ্চিত।
আমি গল্পের মিল দিয়ে দিলে তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যাবে, পাঠকরা গল্প পাঠ করে মজা পাবেনা

মানে গল্পের মিল দিতে গেলে আমার ভয় হয়। যদি দিদি/আপু শুনে যায় আমার উপর ক্ষেপে যাবে
সো রূপাই তোমাকে খুঁজে নিবে.

রূপা কোনো একসময় আমি হিমু হয়েছিলাম তখন রূপাকে খুব একটা দেখা যায়নি।
কিন্তু আজকাল সেই রূপার দৃষ্টিভঙ্গিটা চোঁখের সামনে থাকা সত্যেও হিমু অনেকটাই শঙ্কিত।
নিজেকে হিমু বলে দাবি করা বর্তমানে অসম্ভব,
কেন অসম্ভব, তা যদি এখানে বলতে হয় তাহলে তোমার হাত ধরতে পারবোনা.
কারণ হিমুকে মহাপুরুষ হবার ভুত ঝাপটে ধরে আছে

নীলপরি নিলাঞ্জনা কিংবা নীলপদ্ম দিয়ে না হলেও বলছি তোমায়।
কেন হঠাৎ তুমি এলে?
কেন নয় তবে পুরোটা ঝুরে?

রূপা তুমি যদি বুঝতে পার কিংবা দেখতে পাও।
আদেশক্রমে দুইদিনের মধ্যে শুধু একবার তোমার ইনবক্স থেকে একটা নক দিবে..
অন্তত ১০%ভয় বায়বীয় অশ্রুর স্রোতে মিশে যাবে।
বাকি ৯০% ভয় সেই স্রোতের সাথে জলাঞ্জলিত হয়ে তরল মিশ্রিত রূপ ধারন করে উধাও হয়ে যাবে

___ইতি
________তোমার উপেক্ষিত হিমু.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *