ধর্মান্ধতা

যারা ভণ্ডামি করে তারা ধার্মিক,
যারা ভণ্ডামি সহ্য করতে পারে না তারাই নাস্তিক,
ধর্মকে নিচে নামায় ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে নিয়ে ব্যবসা করে ধর্মান্ধরা,
ধর্মরক্ষার নামে মানুষ হত্যা করে ধর্মান্ধরা,
ধর্মালয়ে হামলা চালায় ধর্মান্ধরা,
ধর্মালয়কে আড্ডার আসরে পরিণত করেছে ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে কলুষিত ও দূষিত করে ধর্মান্ধরা,
যারা এসবের মধ্যে নেই এবং
যারা সত্যিকার অর্থে এসব ভণ্ডামি ঘৃণা করে
তারাই যুগে যুগে নাস্তিকে পরিণত হয়েছে।
ধর্মের নামে টাকার পাহাড় গড়ে ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে তারাই নষ্ট করেছে
যারা রাতদিন ধর্ম ধর্ম বলে আবেগে গদগদ হয়ে পড়ে।
পৃথিবীর পাপীদের মধ্যে ধর্মান্ধদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

যারা ভণ্ডামি করে তারা ধার্মিক,
যারা ভণ্ডামি সহ্য করতে পারে না তারাই নাস্তিক,
ধর্মকে নিচে নামায় ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে নিয়ে ব্যবসা করে ধর্মান্ধরা,
ধর্মরক্ষার নামে মানুষ হত্যা করে ধর্মান্ধরা,
ধর্মালয়ে হামলা চালায় ধর্মান্ধরা,
ধর্মালয়কে আড্ডার আসরে পরিণত করেছে ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে কলুষিত ও দূষিত করে ধর্মান্ধরা,
যারা এসবের মধ্যে নেই এবং
যারা সত্যিকার অর্থে এসব ভণ্ডামি ঘৃণা করে
তারাই যুগে যুগে নাস্তিকে পরিণত হয়েছে।
ধর্মের নামে টাকার পাহাড় গড়ে ধর্মান্ধরা,
ধর্মকে তারাই নষ্ট করেছে
যারা রাতদিন ধর্ম ধর্ম বলে আবেগে গদগদ হয়ে পড়ে।
পৃথিবীর পাপীদের মধ্যে ধর্মান্ধদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।
যখনি কোনো দার্শনিক ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে
বলতে গিয়েছে
তখনি ধর্মান্ধরা ক্ষেপে গিয়ে
তাকে হত্যা করার চেষ্টা চালিয়েছে,
দার্শনিকরা কোনোকালেই নৃশংসভাবে
কোনো ধর্মান্ধকে হত্যা করেনি,
কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী আছে
ধর্মান্ধরা যুগযুগ ধরে অনেক মহান দার্শনিককে
নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে।
যুগে যুগে এভাবে বহু মহৎ মনীষী
ধর্মান্ধদের নিষ্ঠুর হত্যার শিকার হয়েছে,
আজোবধি এই হত্যাযজ্ঞ চলছে।
সংখ্যাগুরু ধর্মান্ধদের মিথ্যে মতবাদ শুনে
সাধারণ জনতা তাদেরকে নাস্তিকে পরিণত করে।
ধর্মান্ধরা কোনোকালেই দার্শনিকদের সাথে
যুক্তির আলোচনায় বসতে রাজি হয়নি,
কারণ তারা জানে তারা হেরে যাবে,
তারা জানে তাদের লালিত ভণ্ডামির পোশাক
ময়ূরের পেখমের মতো খুলে যাবে।
ধর্মান্ধদের জ্ঞান ধর্মবই পর্যন্তই সীমাবদ্ধ,
এর বাইরে সাধারণত তারা যেতে পারে না,
যাওয়ার যোগ্যতাও তাদের নেই।
ধর্মজ্ঞান দিয়ে কখনো নতুন বিপ্লব সূচিত হয়নি,
ধর্মান্ধতা ডিঙিয়ে সভ্যতার এত উন্নতি।
দিনের পর দিন ধর্মান্ধতা বেড়েই চলছে,
ধর্মান্ধ হওয়া বর্তমানে একটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে,
এই ফ্যাশনে অংশ নিচ্ছে লাখ লাখ শিক্ষিত মূর্খ।
ধর্মকে আবর্তন করে প্রতিদিন রচিত হচ্ছে
মানবসভ্যতার নব নব কুসংস্কার ও গোঁড়ামী।
ধর্মান্ধতা শুধু সভ্যতার অগ্রগতির পথে অন্তরায় হতে পেরেছে,
বৈপ্লবিক কোনো পরিবর্তন সাধন করতে পারেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *