ভোরের আঁধার শেষে

পৃথিবীকে ভালোবেসে শ্বেত পাথরের লণ্ঠনপ্রভা
নামে প্রতিরাতে নীলাম্বর থেকে।
নীলিমার কোল থেকে লক্ষীশশী
দরিয়ার তরঙ্গের মতো বাঁকা নাচ নেচে
ঢলে পড়ে বসুধার কোলে ফুটফুটে শিশু হয়ে।
কর্মক্লান্ত কৃষকের চোখে ঘুম আসে রাতে,
ঠিক যেন দিবসের ক্লান্তিলগ্নশেষে
চাঁদ আসে পৃথিবীর সুনসান ঘুমভরা দেশে।
দিনের ভিড়কে প্রতিদিন বিদায় জানিয়ে
ফি-মানুষ উষ্ণ বিছানার কাছে আসে শান্তিলাভে।
কত লক্ষ লক্ষ যুগ চলে গেছে
চাঁদ আর পৃথিবীর এই মহাপরিণয়ে।
আমাদের সেই রাতকথনের কথা
মনে পড়ে আজ এই আচানক শুভরাতে।
সহস্র স্বপ্নের ঘোরে
ঘুমিয়েছি মোরা আকাশের বঁধুয়ার সোহাগী আঁচলতলে,
ভালোবাসাবাসিমগ্ন ছোট ছোট রাত

পৃথিবীকে ভালোবেসে শ্বেত পাথরের লণ্ঠনপ্রভা
নামে প্রতিরাতে নীলাম্বর থেকে।
নীলিমার কোল থেকে লক্ষীশশী
দরিয়ার তরঙ্গের মতো বাঁকা নাচ নেচে
ঢলে পড়ে বসুধার কোলে ফুটফুটে শিশু হয়ে।
কর্মক্লান্ত কৃষকের চোখে ঘুম আসে রাতে,
ঠিক যেন দিবসের ক্লান্তিলগ্নশেষে
চাঁদ আসে পৃথিবীর সুনসান ঘুমভরা দেশে।
দিনের ভিড়কে প্রতিদিন বিদায় জানিয়ে
ফি-মানুষ উষ্ণ বিছানার কাছে আসে শান্তিলাভে।
কত লক্ষ লক্ষ যুগ চলে গেছে
চাঁদ আর পৃথিবীর এই মহাপরিণয়ে।
আমাদের সেই রাতকথনের কথা
মনে পড়ে আজ এই আচানক শুভরাতে।
সহস্র স্বপ্নের ঘোরে
ঘুমিয়েছি মোরা আকাশের বঁধুয়ার সোহাগী আঁচলতলে,
ভালোবাসাবাসিমগ্ন ছোট ছোট রাত
কেটেছে হাজার বছরের মতো।
প্রেয়সীর প্রেমে মদালস হয়ে
জপেছিলাম নানান প্রেমাবেগময় শব্দ।
আমাদের মুঠোফোন করেছিল খেলা
কান্না-হাসিমাখা ফোন-মেসেজের রাগে আর যোগে।
এই ইহজগতের মায়া ভুলে
বেঁচে ছিলাম আমরা এক অসম্ভব সুন্দর জগতে।
হাতে ছিল আমার তোমার হাত,
বুকের জমিনে ছিল নীল প্রান্তরের সোনারূপী পাকা ধান।
উর্বর প্রান্তরে রোপন করেছিলাম
কতগুলো ছোট ছোট চারাগাছ।
প্রতিদিন আর প্রতিরাত
প্রেমবতী পানি দিত নিখুঁত স্নেহের তরে।
রাতভর চলেছিল কথনের কারখানা,
বন্ধ হয়নি কখনো অবিরাম বিনিময়লীলা।
তুমি মায়ার ছায়ায় কাছে রেখেছিলে বলে মোরে
জগত-সংসার চুমেছিল বুকে তুলে নিয়ে।
লাল রঙা আভা ভালোবেসে
হেসেছিল কত ভোর কত রাত শেষে,
বুলবুলি দুটি তবু গেয়ে যেত সং সুনিবিড় মনে;
রাত্রিমণি ডুবে গিয়ে নীলের সাগরে
পূর্বপাড়ে হাতছানি দিত দিনমণি।
শীতের সুস্বাদ পিঠার মতন গল্পের যাদুর রেশ
ভরিয়ে রাখত আমাদের দুজনার মনপ্রাণ
জনতার ভিড়ে আনন্দের স্রোতে।
আসমানভরা চাঁদ আছে,তারা আছে
শুধু নেই সেই পৃথিবীতুল্য মানবী।
একটি জগতে একটিমাত্র আকাশ আছে,
তবুও সাত আকাশের চেয়ে দূরে তুমি আমার পৃথিবী থেকে।
ধূলি-ধূসরিত এই জীবনের খেলা
নিয়ে গেছে,মোরে টেনে নিয়ে গেছে
মিলনবিহীন সাধনার রঙ্গে রঙ্গে।
ধ্রুবতারকার বেশে এসেছিল প্রেম,
ভোরের আঁধার শেষে
গিয়েছিল ডুবে প্রস্থানের নীলদেশে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *