পৌর নির্বাচন

আমাদের ১৪গ্রামে পৌরসভা নির্বাচন চলতেছে।
সকালবেলা ভার্চুয়ালের এক বন্ধুকে ফেবুতে অনেকবার নক দিলাম, ১৪গ্রামের কি অবস্থা জানার জন্য।
কিন্তু তার কোনো রিপ্লে নেই।
ফোন দিলে প্রথম বার লাইন কেটে দেয়,
দ্বিতীয় বার রিসিভ করেই বলে সে ব্যস্ত, কেন্দ্রে আছে, ভোট দিতেছে।
কিছুক্ষণ পর আবার ফোন দিই তখনও সে ব্যস্ত, ভোট দিতেছে।
ফাজলামি করেই জিজ্ঞেস করি এই পর্যন্ত কয়টা দিলি তার কাছ থেকে রিপ্লে পেলাম দুই বই দেয়া শেষ তার বিনিময়ে ১হাজার টাকা অগ্রিম পেয়েছে আরো পাবে।
আমার আর কিছু বুঝার বাকি ছিলোনা।
সাথে সাথেই লাইন কেটে দিলাম।


আমাদের ১৪গ্রামে পৌরসভা নির্বাচন চলতেছে।
সকালবেলা ভার্চুয়ালের এক বন্ধুকে ফেবুতে অনেকবার নক দিলাম, ১৪গ্রামের কি অবস্থা জানার জন্য।
কিন্তু তার কোনো রিপ্লে নেই।
ফোন দিলে প্রথম বার লাইন কেটে দেয়,
দ্বিতীয় বার রিসিভ করেই বলে সে ব্যস্ত, কেন্দ্রে আছে, ভোট দিতেছে।
কিছুক্ষণ পর আবার ফোন দিই তখনও সে ব্যস্ত, ভোট দিতেছে।
ফাজলামি করেই জিজ্ঞেস করি এই পর্যন্ত কয়টা দিলি তার কাছ থেকে রিপ্লে পেলাম দুই বই দেয়া শেষ তার বিনিময়ে ১হাজার টাকা অগ্রিম পেয়েছে আরো পাবে।
আমার আর কিছু বুঝার বাকি ছিলোনা।
সাথে সাথেই লাইন কেটে দিলাম।

অন্যদিকে শুনি বিএনপির প্রার্থীরা নাকি কেন্দ্র থেকে আওয়ামী এজেন্ট দের বের করে দিয়েছে।
আসলে বর্তমান সরকারের আমলে মানুষের পেটে কুকুরে বাচ্ছা ডুকিয়ে দেয়া অসম্ভবের কিছুইনা, সবই সম্ভব।

এক বড় ভাই ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক।
কিছুদিন আগে তার একটা স্ট্যাটাস ছিলো শেখ মুজিব কে জাতির পিতার খ্যাতিত্ব দিয়ে।
আমি প্রথমেই কমেন্ট করি আপনার নামের পাশে মুহাম্মদ লেখা আছে তো ভাইয়া আপনি কি মুসলিম।
উনি বলেন হ্যা।
মুসলিম জাতির পিতা কে? এন্ড তার ভূমিকা সহ কিছু লিখে কমেন্ট করি, আর বলেছিলাম শেখ মুজিব কে নিয়ে কিছু লিখলে বাঙ্গালি জাতির পিতা লিখার জন্য ।
তিনি আমাকে রিপ্লে দেয় তুমি যদি নুন্যতম psc পর্যন্ত পড়ালেখা করতে তাহলে জানতে পারতে বঙ্গবন্ধু কি ছিলো & তাকে জাতির পিতা কেনো ডাকা হয়।
আমি এতটুকু পড়িনি তাই জানিনা।
তার রিপ্লে এটাই দিলাম কুকুরের পেটে বানরের নাম লিখা থাকলেই কুকুরটি বানর হয়ে যায়না।
তবে নুন্যতম psc ছেয়েও বড় বড় ডিগ্রী নেয়া ব্যক্তিদের দেখেছি শেখ মুজিব কে নিয়ে হাডুডু খেলতে।

আরো একটা কথা বলি, এই কথাটা আমি শুনেছি।
আমার দূরসম্পর্কে মামা হয়।
তিনি পাকিস্তান আমলে আর্মি ছিলেন।
একাত্তরে যুদ্ধে যোগ দেয়,সবাই জানে তিনি মারা গেছে কিন্তু দেশ স্বাধীনের ৪মাস পর বাড়ীতে ফিরে আসে।
তার এক পায়ে গুলি লেগেছিলো, তিনিও গুরুতর আওয়ামীলীগ করতো।
৭৫রে ঘাতকের গুলিতে যখন শেখ মুজিব মারা যায়, তখন নাকি তিনি অনেক কেঁদেছিলেন, ঠিক মতো খাওয়া দাওয়াও করেনি।
আমাদের পাশের ইউনিয়ন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন।
উনি এখন বেঁচে নেই কিছুদিন আগে মারা গেছে।
তিনি নাকি মৃত্যুর আগে বলে গেছে যদি দেশের এই অবস্থা হবে জানতো তাহলে সে যুদ্ধে যেতো না।
বর্তমান শেখ হাসিনা কোন সোনার বাংলাদেশ গড়তে যাচ্ছে তিনি তা জানে না।
তবে বঙ্গবন্ধুর দোহায় দিয়ে শেখ হাসিনা যা করতেছে, তা পাকিস্তান আমলেও ছিলোনা।
হাসিনা পাকিস্তানীদের ছেয়েও নৃকিষ্ট নির্মম নির্বিচার করতেছে বাঙ্গালী জাতির উপর।
এই জাতিকে রক্ষা করতে হলে আর একটি যুদ্ধের প্রয়োজন।

হায়দার আলিঃ
কি বলার কথা কি বলছি
কি শুনার কথা কি শুনছি
কি দেখার কথা কি দেখছি
৪৪বছর পরেও আমি স্বাধীনতাকে খুঁজছি।

১ thought on “পৌর নির্বাচন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *