মধ্যরাতে একাকী একটি মেয়ের কান্নার আর্তনাদ(২য় পর্ব)

প্রথমেই উৎস্বর্গঃ সেই শুরু #রেডিওমুন্না পেইজ থেকে, এই নামের সেই গল্পের শব্দহীন নূপুর কন্যা মেয়েটিকে।১ম পর্বের গল্পটি প্রয়োজন হলে জানাবেন।

চার দেয়ালের বন্দী ঘরে, অশ্লীল আধাঁরে ঘেরা একটি অস্বচ্ছ রুম…
নিস্তব্ধ গভীর অরণ্যে, বসে থাকে নির্বোধ একাকী একটি মেয়ে…
কেও থাকেনা তার আশপাশে, চারদিকে শুধুই না পাওয়া শুন্যতার হাহাকার…
জানালা দিয়ে জোছনাটা দেখার চেষ্টায়, ব্যর্থ হয়ে উলটো দেখে তার হারিয়ে যাওয়া স্মৃতির পাতা…

আজ তার রক্তের রঙ হয়ে আছে কালো,
আত্মা অভিমানটাও ডাকছে তাকে নরক দেখতে চলো।
এই জ্বালাময় আশাহীনতা কার জন্যে,
কার জন্যেই বা সে আজ আধাঁরেই মৃত্যুর দিন গুনে…

প্রথমেই উৎস্বর্গঃ সেই শুরু #রেডিওমুন্না পেইজ থেকে, এই নামের সেই গল্পের শব্দহীন নূপুর কন্যা মেয়েটিকে।১ম পর্বের গল্পটি প্রয়োজন হলে জানাবেন।

চার দেয়ালের বন্দী ঘরে, অশ্লীল আধাঁরে ঘেরা একটি অস্বচ্ছ রুম…
নিস্তব্ধ গভীর অরণ্যে, বসে থাকে নির্বোধ একাকী একটি মেয়ে…
কেও থাকেনা তার আশপাশে, চারদিকে শুধুই না পাওয়া শুন্যতার হাহাকার…
জানালা দিয়ে জোছনাটা দেখার চেষ্টায়, ব্যর্থ হয়ে উলটো দেখে তার হারিয়ে যাওয়া স্মৃতির পাতা…

আজ তার রক্তের রঙ হয়ে আছে কালো,
আত্মা অভিমানটাও ডাকছে তাকে নরক দেখতে চলো।
এই জ্বালাময় আশাহীনতা কার জন্যে,
কার জন্যেই বা সে আজ আধাঁরেই মৃত্যুর দিন গুনে…
ক্রোধের সীমালঙ্ঘনে কেনোই বা যাচ্ছে সে আজ হারিয়ে…..

একটি লাল বাতি..
আলোকিত করে তুলে তার হারিয়ে যাওয়া স্বপ্ন টাকে…
পড়ার টেবিলের পাশে গিয়ে, ডায়রির এই পাতায় ও পাতায় কি জেনো কি আঁকে…
টেবিলের উপর পরে থাকা, সেই ছোট বেলার দুষ্টুমি আর হারিয়ে যাও চিরচেনা কিছু ছবি…
দু চোঁখের পলক পড়তেই কেঁদে উঠে সে তিক্ত ব্যর্থ হয়ে…
কেন আজ এই অবহেলিত দিনগুলো শুধুই বিদ্রুপ করে তাকে…

পাশেই একটি বিছানা..
নিদ্রায় যায় যখনি, তখনই অন্ধকার এই পৃথিবীর স্মরনীতে,,,
ছায়াঘরে বসে বসে শুধুই অতীত স্মৃতির ছায়া গুনে…

রাত ১২ টার পর।
একপা দুই পা করে এগুতে থাকে, লোকবিহীন বেলকনির দিকে..
প্রতিক্ষণেই তার প্রহরী ক্রমশ ছোট হয়ে আসছে,,,
একাকিত্বের এই তাঁরা ভরা রাত, শুধুই কি তার স্মরনে…

ভালইতো যাচ্ছে তার জীবন নামের বস্ত উপকথা…
দিকদ্রান্ত বিন্দ্রান্ত মিথ্যে মরিচিকায় বেঁচে থাকা…
কত স্বপ্নইতো ছিলো তার ঐ দূরের আকাশ ছোঁয়া…
গোধুলী বেলায় ছিলো আরো কত স্বপ্ন আঁকা…
অকস্মাৎ এক ভ্রান্তে, ঘুমিয়ে গেছে তার স্বপ্ন আকাঙ্ক্ষা…
নিশ্চুপ নিরবচ্ছিন্ন কোনো কালশিটের কারখানায়…

এসব নিয়েও যদি পাগলিটা ভাল থাকে তাহলে আর মন্দ কি..
এই বদ্ধ ঘরের তেপান্তর খুঁজা…
আধারে কারো জন্যে আলোর দীপ্তি আঁকা…
তবুও….কেন যাচ্ছে সে আজ বেদনার চোরাবালীতে তলিয়ে…
কেন আজ সে জর্জরিত ফুসফুস নিয়ে মৃত্যুর দিন গুনে…

সে কোথায়???
হঠাৎ প্রশ্ন করে নিজেকে..
সব কিছু দেখতে কেন আজ দুঃস্বপ্নের মত লাগে..
বাস্তব কেন স্বপ্নের সাথে মিলে যায় আজকে,,
আহত এই দেহ আজ পড়ে আছে চার দেয়ালের বন্দী ঘরে…

বিদ্রঃ তুমি এই দিনে পৃথিবীতে এসেছো শুভেচ্ছা তোমায়,
তাই অনাগত ক্ষণ, হোক আরো সুন্দর, উচ্ছ্বল দিন কামনায়।
আজ জন্মদিন তোমার-নূপুর কন্যা।

তার জন্য সবাই দোয়া করবেন, নতুন একটি দিন, মাস, বছর, যেন নতুন করেই নিজেকে নিজের মত করে রাঙিয়ে তুলতে পারে।
উপরওয়ালা যেন তার চাওয়া পাওয়া গুলো পূরন করেন-আমিন।

বেঁচে থাকুক সে, জীবন নামের যুদ্ধে।
জয়ী হোক সে, এই সংগ্রামে।
কষ্ট তো মানুষের জীবন সঙ্গী।
যার জীবনে কষ্ট নেই তার জীবনতো মূল্যহীন।

ভাল থাকুক সে, শত কষ্ট, যন্ত্রণা, ব্যথা, দুর্বিপাক, বিরক্তিকর, ভুল, ভ্রান্তের, পরেও।
উপরওয়ালার কাছে এটাই কামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *