আমরা বাঙালীজাতি!!!

আজকে সকালে কিছু জিনিস কিনার জন্য বাজারে গিয়েছিলাম।বাজারের সবচেয়ে বড় দোকানে গিয়েছিলাম।সাথে আমার বড় চাচা ছিল।সে ওপাশে কিছু জিনিস কিনতে ছিল আর আমি দোকানের সামনের বসে ছিলাম।আমার ঠিক সামনেই বসা ছিল দোকানের বড় মালিক।বড় মালিক ঠিক নয়,বাজারের সবচেয়ে বড় দোকানের মালিক।দেখলাম একেরপর একজন ওপাশ থেকে আসতেছে বাজার নিয়ে আর তার দোকানের কিছু কর্মচারী বলে দিচ্ছে অমুকের দাম এত,উনার এত টাকা হইছে ইত্যাদি ইত্যাদি।ব্যাস!!উনিও সেই অনুসারেই টাকা নিয়ে বিদেয় করতেন ক্রেতাদের।দেখলাম এত বড় একটা দোকান অথচ সামনে বসে কিছু চয়েজ করার মত পর্যাপ্ত চেয়ার নেই। আমি তো পুরো আশ্চর্য হয়ে গেলাম।ভাবলাম আমার সামনে বসেই উনি প্রায় ২০০০ টাকা কামিয়েছে তাও মাত্র কয়েকমিনিটের মধ্যে আর উনার দোকানে পর্যাপ্ত চেয়ার নেই? বাহ বড়ই চোখে পড়ার মত বিষয়।এর মধ্যে কিছু লোক আসলো তার সাথে কথা বলতে।আমি সে চেয়ারটাতে বসে ছিলাম সেটা থেকে উঠে দাঁড়ালাম যারা এসেছে তাদের জায়গা দেয়ার জন্য।দোকানের মালিক বলল -“তুমি উঠো না বসে থাকো।উনাদের সমস্যা নেই”…..হয়ত আমাকে দেখে তার ভাল লেগেছিল তাই বলেছিল।কিন্তু উনার সাথে যারা কথা বলতে এসেছে তাদের বসতে না দিয়ে আমাকে বসতে বললেন ব্যাপারটা পুরোই বেমানান।কেমন যেন একটা আজগুবি লাগছিল।কিছুক্ষন বাদেই বুঝে গেলাম চেয়ার কম থাকার কারন,আর আমাকে চেয়ার ছেড়ে উঠতে না বলার কারন।

কিছুক্ষন বাদে আমার চাচা ওপাশ থেকে বাজার নিয়ে আসলেন।আর টাকা পরিশোধ করার জন্য দোকানের মালিকের কাছে এলেন।যতদুর বুঝলাম চাচার সাথে তার সম্পর্ক ভালোই।চাচা যেতেই বলল-“ভাই দোকানে এত মানুষ আসে সবাইরে চা,নাস্তা খাওয়াইতে খাওয়াইতেই আমি ফকির হয়ে গেলাম।”

পুরো ক্লিয়ার বুঝতেই পারছিলাম যাতে দোকানে এসে একসাথে কেউ বসতে না পারে তাই চেয়ার না রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে আর আমাকেও সেইম কারনে বসে থাকতে বলা হয়েছিল।চেয়ার বেশি থাকলে সবাই এসে বসে আড্ডা দিবে আর প্রত্যেককেই চা,নাস্তা খাওয়াতে হবে কেননা সে বাজারের সবচেয়ে বড় দোকানের মালিক। তাই কম রেখেছে যাতে রেগুলার অন্তত কিছু টাকা বেঁচে যায়।

বুঝলাম বাঙালীজাতি আজও অনেক সচেতন।অনেক হিসাবী।এদেরকে বোকা ভাবার কোন কারন নেই।এরা আসলেই সব জাতির চাইতেই বেশি বুদ্ধিমান।কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়ত বুঝদার হয়েও বোকার মত কাজ করে।কিন্তু নিজের বেলায় কিন্তু খুব সচেতন।তাইতো উনার দোকানে চেয়ার ছিল না।

১ thought on “আমরা বাঙালীজাতি!!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *