বোনের ধর্ষক ভাই,আইন যখন ঘুমায়!


চট্টগ্রামের মিনাগাজীর টিলা এলাকার নুরানী চেহারার অধিকারী প্রভাবশালী শাহআলম ১৩ বছর বয়সী এক প্রতিবেশী শিশুক ফুসলিয়ে বেশ কয়েকবার ধর্ষণ করে পরে শিশুটি অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়লে শাহআলম তার মায়ের ওপর চাপ সৃষ্টি করে গর্ভপাত ঘটান। ৭ মে রাতে ধর্ষিতার মা রাঙ্গুনিয়া থানায় শাহআলমকে অভিযুক্ত করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন,তার অভিযোগের ওপর ভিত্তি করে ৮ মে সেই নপুংসক শাহ আলমকে পুলিশ নাটকীয়ভাবে গ্রেফতার করলেও পরে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ভদ্রলোকের সহায়তায় ওসি হুমায়ন কবির ও এসআই মুজিবুর রহমান মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে রাত ২টায় শাহআলমকে সসম্মানে ছেড়ে দেয় এবং ৯ মে ধর্ষিতার মা শাহআলমের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ দিয়েছিলেন তা ছিঁড়ে ফেলে নতুন করে একটি অভিযোগ পত্রে স্বাক্ষর নেয় যেখানে শাহআলমের নাম বেমালুম গায়েব। আর সেই একি দিনেই ধর্ষিতা শিশুটির ১৪ বছর ৬ মাস বয়সী বড় ভাই ছবুর তাকে দেখতে থানায় এলে ভদ্রলোক জনগনের রক্ষক পুলিশ কর্মকর্তা ছবুরকে নিজ বোনের ধর্ষক বানিয়ে হাজতে ঢুকান। টাকার লোভে ভদ্রলোক পুলিশকর্তাদের মগজ এতোটাই আউলাইয়া গিয়েছিল যার কারনে তারা ভাইকে বোনের ধর্ষক বানানোর মতো হাস্যকর আর ঘৃণ্য কাজ করতে দুবার ভাবেনি!
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ছবুর তাকে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্রের সঙ্গে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী শাহ, ওসি হুমায়ন কবির, এস আই মুজিব এবং শাহআলমের ভাগিনা সালাহউদ্দিন জড়িত বলে অভিযোগ করেছে।
২৭ মে ধর্ষিতার মা চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর প্রেক্ষিতে ওসি এবং এসআই’র বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরদিন আদালত মামলাটি খারিজ করে দেয়। দীর্ঘ ছয়মাস হাজতবাসের পর ছাড়া পেয়ে গতকাল প্রেস কনফারেন্সে ছবুর তার ওপর নির্যাতনের কথা সবার সামনে তুলে ধরে। তার ভাষ্যমতে, পুলিশ তাকে বেশ কয়েকবার ইলেক্ট্রিক শক্ দেয় এবং প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় যদিনা সে স্বীকার করে বোনের ধর্ষক সে! এমন জনতা রক্ষকের অপেক্ষায় ছিলাম আমরা?

৪ thoughts on “বোনের ধর্ষক ভাই,আইন যখন ঘুমায়!

  1. বর্তমানে দেশে আইন বলে কিছু
    বর্তমানে দেশে আইন বলে কিছু আছে নাকি? বাংলাদেশ এখন একটা পুলিশী রাষ্ট্র। রাজতন্ত্রের মত পরিবারতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা এখানে চলছে।

    1. কিছু কিছু ক্ষেত্রে আছে বইকি!
      কিছু কিছু ক্ষেত্রে আছে বইকি! নাহলে এই যুদ্ধাপরাধী ভদ্রলোক মহোদয়গণ বিচারের আওতায় আসছেন কিভাবে? কয়েক জায়গায় ভাই-ভাই খেলা, স্বজনপ্রীতি এসবের কারনে এমন মারাত্মক অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে।

    1. নিন্দা নামক অপদার্থকে গ্রাহ্য
      নিন্দা নামক অপদার্থকে গ্রাহ্য করার মানষিকতা তাদেরতো নাই, এদের জন্য লাত্থি-গুতা আর ঝাঁটাপিটা প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *