১৬ বাস্তবতা বিবর্জিত নয়

বাংলাদেশে মেয়েদের বিয়ের চলতি বয়স ১৮ বছর। বৃটিশ আমলে এই বিধান করা হয়েছিল। পাকিস্তান পেরিয়ে বাংলাদেশেও বিধানটি রয়ে গেছে। বাংলাদেশ সরকার বর্তমানে সেই বিধান শর্ত সাপেক্ষে ১৬ বছর করতে যাচ্ছে। এ নিয়ে কয়েকটি এনজিও, নারীবাদী সংগঠন প্রতিবাদ জানাতে মাঠে নেমেছে। বামপন্থী কয়েকটি ছাত্র সংগঠনও সরকারের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে।বাংলাদেশে মেয়েদের বিয়ের বয়স সংক্রান্ত আইন বোঝাতে সাধারণত মুসলমান মেয়েদের ক্ষেত্রে বোঝানো হয়ে থাকে। কারণ এখনো হিন্দু ও উপজাতিদের বিয়ের ক্ষেত্রে কোনো নিবন্ধনের নিধিবিধান না থাকায় এই আইনটি তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হচ্ছে কিনা তা বোঝার বা প্রমাণ করার সুযোগ নেই। অন্য দিকে যে মুসলিমদের ক্ষেত্রে আইনটি প্রযোজ্য রয়েছে নানান কারণেই তার সঠিক প্রয়োগ নেই। বিয়ের রেজিস্ট্রেশন বাধ্যতামূলক থাকায় অনেক ক্ষেত্রেই ১৮ বছরের কম বয়সী মেয়েদের বয়স খাতা-কলমে বেশি দেখিয়ে রেজিস্ট্রেশন একটি সাধারণ নিয়ম হিসেবে চলে আসছিল। সম্প্রতি বিষয়গুলোতে বাল্য বিয়ে রোধে সরকার, এনজিও ও মিডিয়া জগতের ভূমিকার কারণে এই সুযোগটি সঙ্কোচিত হয়ে আসছে। সে কারণেই আইনটির বাস্তবতা নিয়ে এখন বিভিন্ন মহলে নানান প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন মহল থেকে বাংলাদেশের মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ করার বিরুদ্ধেও যৌক্তিক প্রতিবাদ উঠেছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার বিপুল অংশই অর্থনৈতিকভাবে অনগ্রসর থাকার কারণে শিক্ষা, জীবনবোধ ও নানান পশ্চাৎপদতা এখানে বিদ্যমান। তাছাড়া সমাজ ব্যবস্থায় ধর্মের প্রভাব থাকায় ছেলেমেয়েদের মধ্যে সম্পর্ক এখানে সামাজিকভাবে নিয়ন্ত্রিত। এমতাবস্থায় মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ বছর বাস্তবায়ন করতে যেয়ে নানান ধরনের প্রতিকূল পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। এমন বাস্তবতার নিরিখেই সরকার বিয়ের বয়স কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে আমরা মনে করি। সরকারের এই সিদ্ধান্ত যেমন বাস্তবতার নিরিখে সত্য, তেমনি যারা এর বিরোধিতা করছেন তাদের যুক্তিও ফেলার নয়। এমতাবস্থায় সরকার তার সিদ্ধান্তে অটল থাকলে দেশের প্রগতিশীল অংশ এটাকে ইতিহাসের পিছনের দিকে চলা হিসেবেই নিহ্নিত করবে। কিন্তু এ কথা সত্য যে, পৃথিবীর অনেক উন্নত দেশ এমনকি ইউরোপের অনেক দেশে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৬ বছরের নিচেও রয়েছে। অর্থনৈতিক ও সমাজ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে হয়তো এই বিয়ের বয়স কোনো সঙ্কট সৃষ্টি করছে না।আমরা মনে করি, যৌক্তিক কারণ দেখিয়ে সরকার মেয়েদের সর্বনিম্ন বিয়ের বয়স শর্ত সাপেক্ষে ১৬ করতে যাচ্ছে সেটাকে আদর্শ হিসেবে না নিয়ে বাস্তবতা হিসেবে দেখা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *