দেশ নিয়ে দুটি কথা…

মানুষ হিসেবে দেশ নিয়ে
কিছু লেখার মতো বয়স ও
অভিজ্ঞতা কোনটাই আমার
নেই ।
তারপরো দেশ নিয়ে ভাবি,
দেশের কথা লিখি ।
আমার নিজের মা’কে
আমার মনে নেই তাই
দেশটাই আমার মা,
দেশটাকে তাই বড্ড
বেশি ভালবাসি ।

“দেশ নিয়ে দুটি কথা”
শিরোনামে সাত সকালে
লিখতে বসলাম ।
মানসিকতা বিধ্বংস্ত
তারপরো লিখছি,
যে সময় যে লেখা মাথায়
আসে তা লিখতে না পারলে
অস্বস্তি লাগে ।

“দেশ নিয়ে দুটি কথা”তে
আমি আওয়ামীলীগের
গত ৭ টি বছরের (২০০৮-২০১৫) শাসন নিয়ে
আলোচনা করবো ।
আলোচনা শুরুর পূর্বে
একটা কথা বলে রাখা
উচিত যে-
আমি দেশের প্রচলিত ও
জননন্দিত রাজনৈতিক
দলগুলির সদস্য
বা সমার্থক নই ।
তবে আমি একটি

মানুষ হিসেবে দেশ নিয়ে
কিছু লেখার মতো বয়স ও
অভিজ্ঞতা কোনটাই আমার
নেই ।
তারপরো দেশ নিয়ে ভাবি,
দেশের কথা লিখি ।
আমার নিজের মা’কে
আমার মনে নেই তাই
দেশটাই আমার মা,
দেশটাকে তাই বড্ড
বেশি ভালবাসি ।

“দেশ নিয়ে দুটি কথা”
শিরোনামে সাত সকালে
লিখতে বসলাম ।
মানসিকতা বিধ্বংস্ত
তারপরো লিখছি,
যে সময় যে লেখা মাথায়
আসে তা লিখতে না পারলে
অস্বস্তি লাগে ।

“দেশ নিয়ে দুটি কথা”তে
আমি আওয়ামীলীগের
গত ৭ টি বছরের (২০০৮-২০১৫) শাসন নিয়ে
আলোচনা করবো ।
আলোচনা শুরুর পূর্বে
একটা কথা বলে রাখা
উচিত যে-
আমি দেশের প্রচলিত ও
জননন্দিত রাজনৈতিক
দলগুলির সদস্য
বা সমার্থক নই ।
তবে আমি একটি
রাজনৈতিক মতাদর্শে
বিশ্বাসী ।
আর তা হচ্ছে-সমাজতন্ত্র/
কমিউনিজ্যম/বামপন্থী ।
তাই অনেকটা নিরপেক্ষ
ও দেশের প্রতি ভালবাসা
রেখে এই স্ট্যাটাস লিখতে
বসেছি কারন বামপন্থীরা
এদেশীয় রাজনীতিতে
অসহায় বটে তবে পাও চাটা
বামপন্থীদের কথা ভিন্ন ।।

জাতির অন্যতম শ্রেষ্ঠ
সন্তান (আরো অনেক শ্রেষ্ঠ
সন্তান রয়েছেন-৭ জন বীরশ্রেষ্ঠ,ভাষাশহীদেরা,
আরো অনেক আছে ।) ও
বাঙ্গালী জাতির জনক
শেখ মুজিবুর রহমানের
কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্ব
উপমহাদেশের অন্যতম
ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক
সংগঠন আওয়ামীলীগ
২০০৮ সালে বিপুল
সমার্থন নিয়ে দেশের
ক্ষমতায় আসে ।

শেখ হাসিনার ভোটের
অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া
ও ১০ টাকায় চাল স্লোগান
দেশের আপামর জনতা
সাদরে গ্রহণ করেছিল কারন
আওয়ামীলীগের প্রতি বিশ্বাস
এদেশের জনগনের ১৯৫৪
সালের নির্বাচনের মাধ্যমেই
প্রকাশ পেয়েছে এবং একটি
বিশ্বাসের জন্ম এ যাবত্‍কাল
চলে আসছে যে-
“অসহায়,নিপীড়িত মানুষের
অধিকার আদায়ের হাতিয়ার
হচ্ছে আওয়ামীলীগ ।”

সেই বিশ্বাস থেকে
আওয়ামীলীগকে বিপুল
সমার্থন দিয়েছে গোটা
জাতি ।

তবে আওয়ামীলীগ সরকার
ক্ষমতা পাওয়ার ১ বছরের
মাথায় ২০০৯ সালে জাতি
নির্বাক,বাকরুদ্ধ,স্তব্ধ হয়ে
যায় ।
জাতির শ্রেষ্ঠ ৫৭ জন
সেনা অফিসারকে অত্যন্ত
নির্মমভাবে হত্যা করা
হয়েছে ।
বাঙ্গালী জাতির জন্মের
পর জাতির মেধাশূণ্য
হওয়ার এটাই সবচেয়ে বড়
নজির ।
তবে এ হত্যাকান্ডের
বিচার করে আওয়ামীলীগ
সরকার প্রমাণ করেছে তারা
এর সাথে যুক্ত নন তবে
নিঃসন্দেহে একটি বড়
চক্র এর সাথে জড়িত যেটা
জাতি আজো জানতে পারেনি ।

ক্ষমতার একদম শেষ
পর্যায়ে অর্থাত্‍ ২০১৩
সালে রানা প্লাজা ধ্বস
ও আরো কিছু বিচ্ছিন্ন
ঘটনা ছাড়া বেশ
সফলতার সাথে আওয়ামীলীগ
সরকার দেশ পরিচালনা
করেছে ।
তবে মেয়াদ শেষে তারা
যে জনগনের ভোটের
অধিকার কেড়ে নিয়েছে
সেটা জাতিসহ গোটা বিশ্ব
দেখেছে ।
নিঃসন্দেহে আওয়ামীলীগের
মতো একটি ঐতিহ্যবাহী
রাজনৈতিক দলের জন্য এটা
একটা কলংক বটে ।
কারন আওয়ামীলীগ
জনগনের স্বাধীনতায়
বিশ্বাস করে এবং সেটাই
১৯৪৮ সাল পরবর্তী
সময়ে ঘটেছে ।

যা হোক,
৫ জানুয়ারির নির্বাচন
সম্পর্কে সবাই-ই কমবেশি
অবগত আছেন ।
ভোট ছাড়াই নির্বাচিত হন
১৪৯ জন সংসদ সদস্য !
বাংলাদেশের রাজনৈতিক
এমনকি পৃথিবীর ইতিহাসে
এরকম ঘটনা এটাই প্রথম,
হয়তো এটাই শেষ ।

নির্বাচন হয়ে গেলে অত্যন্ত
ক্ষিপ্রতার সাথে শেখ হাসিনা
মন্ত্রীপরিষদ গঠন করেন
এবং দেশ পরিচালনা
করছেন ।

এবার একটু ঘাঁটাঘাঁটি
বাদ দিয়ে বর্তমান
পরিস্থিতিতে ফিরে আসি ।
বাংলাদেশ এখন তার
অস্তিস্ত সংকটে আছে ।
আওয়ামী সরকার ৫
জানুয়ারী পরবর্তী সময়ে
আমেরিকা ও ইউরোপীয়
অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে যে
উদ্যত আচরণ করেছে
তার একটা নেগেটিভ
প্রভাব জাতির উপর
পড়বে এটাই স্বাভাবিক এবং
পড়া শুরু করেছে ।
আমাদের ভুলে গেলে চলবেনা,
আমেরিকা কি ও আমেরিকা
কাকে বলে ?
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ অর্থাত্‍
১৯৪৫ সাল পরবর্তী
সময়ে আমেরিকা গোটা
পৃথিবীতে যে সাম্রাজ্যবাদী
জাল বিছিয়েছে তা দুধের
শিশুরও অজানা নয় ।
গুটি কয়েক রাষ্ট্র
(কিউবা,ভেনিজুয়েলা,
ইরান,উত্তর কোরিয়া,
রাশিয়া,লেবানন) বাদে
বিশ্বের সব রাষ্ট্র আমেরিকার
কাছে অসহায় ।
কাড়ি কাড়ি অর্থ,শক্তিশালী
অস্ত্র ও ক্ষমতার বলয়ে তাবত্‍
বিশ্বকে আমেরিকা আঁটকে
ফেলেছে ।
যারা সহজে তাদের বশে
আসতে চায়নি তাদের
অবস্থা কেমন হয়েছে
সেটাও দুধের শিশুর কাছে
অজানা নয় ।
২০০০ সালের পরে
ইরাকের কি অবস্থা করেছে
আমেরিকা তা গোটা বিশ্ব
চেয়ে চেয়ে দেখেছে ।
আবার আফগানিস্তান,
প্যালেস্টাইন (ফিলিস্তিন)
এর কি ভয়াভহ অবস্থা
হয়েছে এবং হচ্ছে সেটাও
কারো অজানা নয় ।

৫ জানুয়ারি পরবর্তী
সময়ে শেখ হাসিনা ও
তার সরকার আমেরিকা
বিরোধী যে কঠোর মনোভাব
এবং সে দেশের দূত ও
বার্তাবাহকের যে অবমূল্যায়ণ
করেছেন তার ফল ভালো
হওয়ার নয় ।
আর প্রেক্ষিতে আজ গোটা
জাতি আইএস আতংকে
ভুগছে ।
ইরাককে ধ্বংস করতে
আমেরিকাই আল কায়েদার
জন্ম দিয়েছিল,গোটা
মুসলিম বিশ্বকে ধ্বংস
করতে আমেরিকা-ইসরায়েল
জন্ম দিয়েছে আইএস (IS-Islamic State) এর ।
আপনি আওয়ামীলীগ এবং
আপনি দুর্দান্ত ক্ষমতাসীল
কিন্তু আপনাকে মনে রাখতে
হবে বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয়
বৃহত্তম মুসলিম দেশ এবং
আমেরিকা-ইসরায়েল বিশ্বের
ক্ষমতাধর দুই রাষ্ট্র এবং
তাদের সৃষ্ট আইএস,আল
কায়েদা এবং তালেবান ।
এসব দলের সাথে ইসলামের
কোনো সম্পর্ক নেই শুধুমাত্র
সাম্রাজ্যবাদী চেতনা থেকে
আমেরিকা-ইসরায়েল এদের
জন্ম দিয়েছে ।
আওয়ামী সরকারকে তাদের
সাথে দেশের স্বার্থে সম্পর্ক
ভালো রাখতে হবে ।
মনে রাখতে হবে যে,
আমেরিকা তাদের নীতি
প্রতিষ্ঠায় বদ্ধ পরিকর এবং
তারা মাথা নুয়াতে অভ্যস্ত
নয় ।
পৃথিবীতে ইহুদী-মুসলিমের
অনুপাত হচ্ছে একঃএকশো
অর্থাত্‍ একজন ইহুদীর
বিপরীতে ১০০ জন
মুসলিম আছে তবু ইহুদীদের
কাছে মুসলমানরা অসহায় ।

আমাদের মনে রাখতে হবে
যে,
বিশ্বের দ্বিতীয় মুসলিম
দেশ হওয়ার জন্য আমরা
অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই
আমেরিকা-ইসরায়েলের
চোখে পড়ে যাবো এবং
গিয়েছি ।
অতিদ্রুত তাদের সাথে
সম্পর্ক উন্নয়ন করা না
হলে বাংলাদেশকে
আফগানিস্তান অথবা
ফিলিস্তিনের পরিণতি ভাগ্যে
আনতে হতে পারে ।
ব্যাপারটা চিন্তা করতেই
আমার গা শিহরে উঠছে !!

দেশে আইএস আসুক না
আসুক সরকারকে তত্‍পর
হতে হবে,আবালের মতো
বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে উড়িয়ে
দিলে চলবেনা ।
আপনাদের পাপের বোঝা
জাতি নিবে কেন !
Do something,
এবং অতিদ্রুত কিছু
করতে হবে ।
আমরা আফগানিস্তান,
ফিলিস্তিন হতে চাইনা ।।

“বাংলাদেশ দীর্ঘজীবী হোক”

১ thought on “দেশ নিয়ে দুটি কথা…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *