রাশি

রাশি কি? যা পরিমাপ করা যায়, তাকেই বলে রাশি।
ফিজিক্সের ভাষায় আমাদের পরিচিত-অপরিচিত সকল রাশিই নীচের চারটির যেকোন একটি হবেই। যথা:
(১) স্কেলার: আমরা সবাই জানি, যে রাশির দিক নেই, শুধু মান আছে, তাকে স্কেলার বলে। কিন্তু এটা প্রাথমিক সংজ্ঞা। এর আরেকটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। রাশিটিকে অবশ্যই বাস্তব সংখ্যা দিয়ে (হোক তা ধনাত্মক, ঋণাত্মক বা শুণ্য) প্রকাশ করা যাবে এবং রাশির মান কোঅর্ডিনেটের অক্ষের ঘূর্ণন সত্ত্বেও অপরিবর্তিত থাকবে। উদাহরণ: দৈর্ঘ্য, তাপমাত্রা, সময়, তড়িত্‍প্ৰবাহ।

রাশি কি? যা পরিমাপ করা যায়, তাকেই বলে রাশি।
ফিজিক্সের ভাষায় আমাদের পরিচিত-অপরিচিত সকল রাশিই নীচের চারটির যেকোন একটি হবেই। যথা:
(১) স্কেলার: আমরা সবাই জানি, যে রাশির দিক নেই, শুধু মান আছে, তাকে স্কেলার বলে। কিন্তু এটা প্রাথমিক সংজ্ঞা। এর আরেকটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। রাশিটিকে অবশ্যই বাস্তব সংখ্যা দিয়ে (হোক তা ধনাত্মক, ঋণাত্মক বা শুণ্য) প্রকাশ করা যাবে এবং রাশির মান কোঅর্ডিনেটের অক্ষের ঘূর্ণন সত্ত্বেও অপরিবর্তিত থাকবে। উদাহরণ: দৈর্ঘ্য, তাপমাত্রা, সময়, তড়িত্‍প্ৰবাহ।
(২) ভেক্টর: এর মান এবং দিক উভয়ই প্রয়োজন। যেমন, বেগ নির্ণয়ে আমাদের বেগের দিক ও মান দুটোই বিবেচনা করতে হয়। এখানেও প্রত্যেক কো-অর্ডিনেটে রাশির মান ও দিক একই হয়, এবং এটা বাস্তব হবে। কিন্তু বিভিন্ন কো-অর্ডিনেট সাপেক্ষে লম্ব উপাংশ একেক রকম হবে। আরও উদাহরণ, চৌম্বক-দ্বিমেরু, টর্ক।
(৩) টেন্সর: এই ধরনের রাশির মান বিভিন্ন দিকে বিভিন্ন রকম। কো-অর্ডিনেটের ঘূর্ণনেও এর লম্বাংশের পরিবর্তন নির্দিষ্ট কিছু সমীকরণ মেনে হয়। স্কেলার মূলত শুন্যমাত্ৰার টেন্সর আর ভেক্টর এক মাত্রার টেন্সর। যেমন, তারের পরিবাহীতা।
(৪) স্পাইনর: এর ধারণা বেশ কঠিন। এটাকেই সার্বজনীন বলা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *