সম্ভব, সবই সম্ভব….

ক্লাসের সবচেয়ে হাবা-গোবা ছেলেটিকে আজ আপনি বিনাকারণে মারধর করে মজা নিলেন । শক্তির অভাবে ছেলেটি সব সয়ে গেলো ।

ভাবিয়েন না সে সব ভুলে যাবে । সে সব মনে রাখবে । ভেতরে ভেতরে রাগে ফুঁসতে থাকবে ।

কয়েকবছর পর সেই ছেলেটির কাছেই আপনাকে যেতে হবে চাকরীর জন্য । ছেলেটি একটি মুচকি হাসি হেসে এক সাইনে আপনার এপ্লিকেশন লেটার বাতিল করে শোধ নেবে । হ্যাঁ, শুধু একটি সাইন ।

আপনি পাড়ার ইয়া বড় মাস্তান । সবাই আপনাকে ভয় পায় । আপনি সেই দাপটে চলেন । পাড়ার যার তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন ।


ক্লাসের সবচেয়ে হাবা-গোবা ছেলেটিকে আজ আপনি বিনাকারণে মারধর করে মজা নিলেন । শক্তির অভাবে ছেলেটি সব সয়ে গেলো ।

ভাবিয়েন না সে সব ভুলে যাবে । সে সব মনে রাখবে । ভেতরে ভেতরে রাগে ফুঁসতে থাকবে ।

কয়েকবছর পর সেই ছেলেটির কাছেই আপনাকে যেতে হবে চাকরীর জন্য । ছেলেটি একটি মুচকি হাসি হেসে এক সাইনে আপনার এপ্লিকেশন লেটার বাতিল করে শোধ নেবে । হ্যাঁ, শুধু একটি সাইন ।

আপনি পাড়ার ইয়া বড় মাস্তান । সবাই আপনাকে ভয় পায় । আপনি সেই দাপটে চলেন । পাড়ার যার তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন ।

কিছুদিন পর এই “যার-তার” এর ভেতরের একজন র‍্যাবের কর্মকর্তা হয়ে যাবে । হুট করেই একদিন আপনার বাডির পাশে র‍্যাবের গাড়ির শব্দ শুনবেন । বুকটা ছ্যাৎ করে উঠবে ।

আরো ছ্যাঁৎ করে উঠবে যখন দেখবেন পাড়ার যে ছেলেটিকে “আবাল” বলে ক্ষ্যাপাইতেন, সেই “আবাল” ছেলেটিই সেই দলের প্রধান ।
থানায় নিয়ে গিয়ে আপনাকে থার্ড ডিগ্রীর মাইর দিয়ে সব শোধ নিলো, রাস্তায় সিগারেট খাওয়ার অপরাধে । আপনি কিছুই বলতে পারবেন না সেদিন ।

ছেলেটি আপনাকে অনেক ভালোবাসে । সারাদিন খোঁজখবর নেয় । আপনার খেয়াল রাখে । আর আপনি বরাবরের মতই তাকে ইগনোর করেন ।
ভাববেন না ছেলেটি আপনাকে সারাজীবন এভাবেই ভালোবেসে যাবে ।

একদিন হঠাৎ দেখবেন ছেলেটি আর আপনার খোঁজ খবর নেয় না । সে অন্য একটি ফুটফুটে সুন্দরীর হাতে হাত রেখে ভবিষ্যতের স্বপ্ন বুনছে ।

আপনি ক্লাসের ফার্স্ট বয় । পরীক্ষার হলে আপনার পেছনের সীটে বসা ছেলেটা খুব জ্বালাতন করছে । আপনি ধমকে বলে উঠলেন, “পড়িস না যখন, ফেল কর ।”

নিউটনের সূত্র, অঙ্কের প্যাঁচ মাথায় না থাকলেও ছেলেটি এই বাক্যটি আজীবন মাথায় রাখবে । এই অপমানকে সে শক্তিতে রুপান্তর করবে ।
কোন এক গ্রীষ্মের রৌদ্দ্রজ্জ্বল দিনে আপনাকে কোর্ট-প্যান্ট পড়ে সেজেগুঁজে সেই ছেলেটির অফিসেই দাঁড়াতে হবে চাকরীর আশায় ।

….সবই সম্ভব । সৃষ্টিকর্তা সবই পারেন । তিনি মহান ।

কখনো অহমিকা দেখাবেন না । মনে রাখবেন, আজ আপনার যা আছে কাল সেটি নাও থাকতে পারে । তখন আপনার অহংকারের জন্য কেউই এগিয়ে আসবে না ।

জীবনটা বড়ই অদ্ভুত ।
বলা তো যায় না, মাথায় ছিপছিপে তেল দিয়ে যে ছেলেটি ক্লাসে বসে বসে আঁতেলের মত কথা গিলতো, সেই আঁতেলের কোম্পানিতেই চাকরীর জন্য জুতার তল ক্ষয় করতে হচ্ছে আপনাকে ।
সম্ভব । সবই সম্ভব……

.
______মোঃ মেহেদী হাসান গালিব

২ thoughts on “সম্ভব, সবই সম্ভব….

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *