হায়রে দেশপ্রেম !

স্বাধীন দেশটা আজ কেমন যেন ভোগের বস্তু হয়ে গেছে।পাঁচ বছর পর পর নতুন কেউ যেন ইজারা নেয় দেশটিকে ভোগের জন্য।উন্নতির জন্য নয়,দুনীতির মুখোশে সেজে আসে দেশের সাধারণ মানুষকে শোষণ করার জন্য।লালা সবুজের পতাকায় আজ আর রক্তিম সূর্য এর আভা আর সবুজ অরণ্য নেই,শুধু আছে দুনীতি আর শোষনের কালো ছায়া।দেশের উন্নতি হোক বা না হোক, নিজের ভাগ্যের উন্নতি করতে সবাই ব্যাস্ত থাকে।তবে সবাই কিন্তু এমন নয়,কেউ কেউ স্রোতের বিপরীতমূখিও হয়।


স্বাধীন দেশটা আজ কেমন যেন ভোগের বস্তু হয়ে গেছে।পাঁচ বছর পর পর নতুন কেউ যেন ইজারা নেয় দেশটিকে ভোগের জন্য।উন্নতির জন্য নয়,দুনীতির মুখোশে সেজে আসে দেশের সাধারণ মানুষকে শোষণ করার জন্য।লালা সবুজের পতাকায় আজ আর রক্তিম সূর্য এর আভা আর সবুজ অরণ্য নেই,শুধু আছে দুনীতি আর শোষনের কালো ছায়া।দেশের উন্নতি হোক বা না হোক, নিজের ভাগ্যের উন্নতি করতে সবাই ব্যাস্ত থাকে।তবে সবাই কিন্তু এমন নয়,কেউ কেউ স্রোতের বিপরীতমূখিও হয়।

আমাদের দেশের কিছু মানুষের জন্য আমাদের স্বাধীনতার সম্মান লুন্ঠিত হচ্ছে।বছরে নিদিষ্ট কিছু দিনে আমরা দেশপ্রেম প্রদর্শন করি।মানানসই পোশাক পড়ে আহ্লাদে আটখানা হয়ে যাই।নানা অনুষ্ঠান আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে লোক দেখানো দেশপ্রেম প্রদর্শন করি।

পূর্বের মানুষেরা এত আধুনিক না হলেও তাদের মনে ছিল দেশের প্রতি গভীর ভালবাসা। সেই ভালবাসার জোরেই ‘৫২’ তে নিজের বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিল।সেই রক্তের মূল্য আজ কোথাই।আধুনিক পিতা-মাতা সন্তানকে অন্য ভাষায় (ইংরেজি,আরবি) শিক্ষিত করতে বেশি ইচ্ছুক।এই কি ৫২ এর প্রাপ্তি?

৭১ এর ৯ মাস যুদ্ধের পাওয়া স্বাধীনতা, ৩০ লক্ষ শহীদের আত্নবিসর্জনে পাওয়া এই স্বাধীনতা,২ লক্ষ মা-বোনের সম্মানের বিনিময়ে পাওয়া এই স্বাধীনতা, আজ সেই স্বাধীনতা লিন্ঠিত হচ্ছে দেশের অসহায় মানুষকে নির্বিচারে হত্যার মাধ্যমে। কোথাই অভিজ্যিৎ হত্যার বিচার! এর নাম কি স্বাধীনতা!!

আমাদের দেশটা আজ থেকে প্রায় ৪৪ বছর হল স্বাধীন, কিন্তু দেশের মানুষগুলো আজো কতিপয় ব্যাক্তির অধিনে রয়ে গেছে। আসলে দোষ তাদেরো না, দোষ আমাদের মানসিকতার।
আমারা ৭১ এর যুদ্ধ করেছিলাম দুইটি জিনিস পাবার জন্য, তা হল ভূখন্ডের স্বাধীন আর দেশের মানুষের মুক্তি।
হয়ত আমরা দেশকে স্বাধীন করতে পেরেছি,কিন্তু মানুষকে কি মুক্তি দিতে পেরেছি ?
আমরা সেই দিন মুক্তি পাব যে দিন আমরা সকল কুসংস্কার, ভান্ত ধারণাকে ভুলে নিজেদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনব।

সেই দিন বঙ্গবন্ধুর ওই কথাটির সম্পন্নতা লাভ করবে “এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতা সংগ্রাম”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *