‘অবশ্যই আতঙ্কিত হচ্ছি’ – ক্ষোভ ঝাড়লেন আমির খান

২৩ নভেম্বর, সোমবার দিল্লিতে একটি অনুষ্ঠানে আমির খান দেশজুড়ে অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদে ক্ষোভ ঝাড়লেন। বললেন, এমনকি তার পরিবার দেশত্যাগের কথাও ভাবছে। এদিন সাহিত্যিকদের পদক ফিরিয়ে দেয়ার কর্মসূচীকেও স্বাগত জানিয়েছেন বলিউড সুপারস্টার। ক্ষমতাসীন বিজেপিকেও নিয়েছেন এক হাত।


২৩ নভেম্বর, সোমবার দিল্লিতে একটি অনুষ্ঠানে আমির খান দেশজুড়ে অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদে ক্ষোভ ঝাড়লেন। বললেন, এমনকি তার পরিবার দেশত্যাগের কথাও ভাবছে। এদিন সাহিত্যিকদের পদক ফিরিয়ে দেয়ার কর্মসূচীকেও স্বাগত জানিয়েছেন বলিউড সুপারস্টার। ক্ষমতাসীন বিজেপিকেও নিয়েছেন এক হাত।

দিল্লির অনুষ্ঠানে আমির বলেন, ‘‘আমরা কাগজে পড়ছি কী ঘটছে। টিভিতে দেখছি কী ঘটছে। এবং অবশ্যই আতঙ্কিত হচ্ছি। কিরণের সঙ্গে যখন এই নিয়ে কথা বলি, ও জিজ্ঞাসা করে, আমাদের কি ভারত ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত? ও ওর বাচ্চার জন্য ভীত। আমাদের চারদিকের অবস্থা কী হবে, তা ভেবে ও ভীত। ও এখন খবরের কাগজ কাগজ খুলতে ভয় পায়।’’ গজনি ছবির নায়কের মতে, গত ছয়-আট মাস ধরে দেশ জুড়ে নিরাপত্তার অভাব এবং আতঙ্ক ক্রমশ বাড়ছে। আমিরের মতে, নিরাপত্তা ও সুবিচারের প্রয়োজনীয়তা সব সমাজেই রয়েছে।

এমন একটা অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বলেছেন, যেখানে একটু আগেও বসেছিলেন দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অরুণ জেটলি এবং বেঙ্কাইয়া নায়ডু। ছিলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরমও। অবশ্য আমির যখন এ কথা বলছেন অরুণ আর বেঙ্কাইয়া তত ক্ষণে চলে গিয়েছেন। তবে তখনও দর্শকাসনে হাজির বিজেপির দুই হেভিওয়েট নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ এবং রাজীবপ্রতাপ রুডি।

বিজেপির দুই নেতার সামনেই আমির বলেন, ‘‘আমরা কেন্দ্রে বা রাজ্যে পাঁচ বছরের জন্য যাঁদের নির্বাচিত করেছি, তাঁদের কাছ থেকে অনেক প্রত্যাশা থাকে। কেউ আইন ভঙ্গ করলে সেই সব নির্বাচিত প্রতিনিধিরা কড়া ব্যবস্থা নেবেন, এটাই আমরা দেখতে পছন্দ করি। এমনটা হলে একটা নিরাপত্তার বোধ তৈরি হয়। কিন্তু যখন তা হয় না, তখন একটা নিরাপত্তার আশঙ্কা তৈরি হয়।’’

অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে দেশজুড়ে প্রতিবাদও চলছে। লেখক-শিল্পী-চলচ্চিত্র পরিচালক-বিজ্ঞানীরা তাঁদের পুরস্কার ফিরিয়ে দিয়েছেন। পুরস্কার বা সম্মান ফিরিয়ে দিয়ে প্রতিবাদ কত দূর ঠিক, তা নিয়েও শুরু হয়েছে বিতর্ক। এ দিন পুরস্কার বা সম্মান ফিরিয়ে দিয়ে প্রতিবাদ জানানোকেও সমর্থন জানিয়েছেন আমির। তাঁর কথায়, ‘‘পুরস্কার বা সম্মান ফিরিয়ে দিয়ে কোনও সৃষ্টিশীল মানুষ তাঁর অসন্তোষ প্রকাশ করতেই পারেন। এটাই তাঁদের প্রতিবাদের ভাষা। তাঁদের দৃষ্টিভঙ্গি।’’ এর পরেই আমির জানান, যে কোনও অহিংস আন্দোলনেই তাঁর সমর্থন রয়েছে। বলিউডের নায়কের কথায়, ‘‘যতক্ষণ কেউ অহিংস পথে প্রতিবাদ জানান, ততক্ষণ তাঁর প্রতিবাদ করার অধিকারও রয়েছে।’’

একই সঙ্গে ধর্ম আর সন্ত্রাসবাদীর মধ্যে ফারাক করতে গিয়ে তিনি বলেন ‘‘কাউকে হিংসাত্মক কাজ করতে দেখলে প্রথমেই আমরা একটা ভুল করে বসি। তাদের হিন্দু সন্ত্রাসবাদী বা মুসলিম সন্ত্রাসবাদী বলে দেগে দেই।’অসহিষ্ণুতা প্রসঙ্গে বিজেপিকেও এক হাত নিয়েছেন আমির। তিনি বলেন, ‘‘ টিভির ডিবেট শো-তে দেখি বর্তমান শাসক দল বিজেপি অসহিষ্ণুতার জন্য বিভিন্ন ঘটনাকে দায়ী করে। তারা বারবার ১৯৮৪ সালের কথা বলে। কিন্তু এটা কোনও কাজের কথা নয়।’’

অবশ্য অসহিষ্ণুতা নিয়ে আমির খান মুখ খোলার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই আমির খানের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে শুরু করেছে সরকারপন্থি বুদ্ধিজীবীরা। অভিনেতা অনুপম খের তো আমির খানের বক্তব্য সামনে আসতেই এর বিরুদ্ধে একের পর এক টুইট-বোমা ফাটাতে থাকেন অনুপম খের। সেখানে তিনি বলেন, “নৈরাজ্যের বাতাবরণ বেড়েছে বলে যে দেশ তিনি এবং তাঁর স্ত্রী ছাড়তে চাইছেন, সেই ভারতই যে তাঁকে আমির খান বানিয়েছে সে কথা কি আমির তাঁর স্ত্রীকে বলেছেন। কোন দেশে যেতে চান কিরণ তা-ও কি জানতে চেয়েছেন আমির?”

সূত্র : আনন্দবাজার

৫ thoughts on “‘অবশ্যই আতঙ্কিত হচ্ছি’ – ক্ষোভ ঝাড়লেন আমির খান

  1. পুরো ভারতবর্ষ জুড়েই আফ্রিকা ও
    পুরো ভারতবর্ষ জুড়েই আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের মতো অসহিষ্ণুতা বাড়ছে। কিংবা বলা ভালো, বাড়ানো হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে মুখ খোলাটা জরুরী। আমির খান মুখ খুলেছেন, প্রশংসা তার প্রাপ্য। তবে বিজেপি নেতাদের নিয়ে মিটিং করে যে এই অবস্থা ঠেকানো যাবে না, বোধ করি সেটা আমিরের জানা আছে! শাসকশ্রেণীকে টার্গেট করতে না পারলে শোষিতদের সমস্যার কোনো সমাধান হবে না। সামাজিক এই চিরসত্যটা আমলে নিতে হবে।

  2. আমিরের কথাগুলি অবাক করার মত।
    আমিরের কথাগুলি অবাক করার মত। “আমির খান” এই পরিচয়ে ভারতে তুমুল জনপ্রিয়তা, হার্টথ্রুব হতে ওর কোন সমস্যা হয়নি। বিজেপি এবার এসে যে সাম্প্রদায়িক আচরণ করছে সেটা পাকিস্তানের জন্য স্বর্ণযুগ বিবেচিত হবে। বাংলাদেশের জন্য স্বাভাবিক অবস্থা। ভারতীয় মুসলিম আমির, তার কপা ভাল পাকিস্তানী হিন্দু বা বাংলাদেশী হিন্দু তিনি নন। যদি হতেন সমস্ত যোগ্য থাকার পরও ফ্লিমে জায়গা করে নেয়া (শাহরুখ বলিউড বাদশাহ!) হতো অলীক। দেশ ছাড়ার মত কি আমিরদের সত্যিই কিছু ভারতে ঘটেছে?

  3. আমির খান বুদ্ধিজীবি মহলের
    আমির খান বুদ্ধিজীবি মহলের কাছে ছোটমনের পরিচয় দিয়েছেন ।। অমির খান এই ভারতের মাটিতেই আমির খান হয়েছেন । আমির খানের এই বক্তব্য থেকে প্রমান হয় তিনি আসলে ভারতকে ভালবাসেন না ।

  4. ভারতে যখন বাবড়ি মসজিদ ভাঙ্গা
    ভারতে যখন বাবড়ি মসজিদ ভাঙ্গা হয় ,তখন দেশের অবস্থা সত্যিই খারাপ ছিল কিন্তু আমির তখন দেশ ত্যাগ করার কথা ভাবেনি ।এখন এমন কি হলো আমির দেশ ছাড়বেন । নাকি অন্তর নিহিত কোন কারণ আছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *