যুদ্ধাপরাধী শয়তানের বিচার ও আওয়ামীলীগ সরকার

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার গণ মানুষের প্রাণের দাবী। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মাতৃভূমি ও মুক্তিকামী মানুষের বিরোদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করেছিলো, যারা মানুষ হয়ে বাংলার স্বাধীনকামী মানুষ’দের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করেছিলো সেই রাজাকার, আলবদর, আলসামস্ নর পশু পাকিস্তানীদের রেখে যাওয়া কিছু জারজ সন্তান’দের বিচার আমাদের দাবী।

অগ্নী সংযোগ আর লুটপাট করে সর্বস্ব নিয়ে গিয়েছিলো যারা তাদের বিচার…
মা-বোন’দের সম্ব্রম নষ্ট করেছিলো যারা তাদের বিচার…
ইসলাম রক্ষার নামে ইসলামের শান্তিকে নষ্ট করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
পাকিস্তানীদের সাথে আতাত করে ধ্বংস করেছিলো যারা, তাদের বিচার…

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার গণ মানুষের প্রাণের দাবী। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মাতৃভূমি ও মুক্তিকামী মানুষের বিরোদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করেছিলো, যারা মানুষ হয়ে বাংলার স্বাধীনকামী মানুষ’দের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করেছিলো সেই রাজাকার, আলবদর, আলসামস্ নর পশু পাকিস্তানীদের রেখে যাওয়া কিছু জারজ সন্তান’দের বিচার আমাদের দাবী।

অগ্নী সংযোগ আর লুটপাট করে সর্বস্ব নিয়ে গিয়েছিলো যারা তাদের বিচার…
মা-বোন’দের সম্ব্রম নষ্ট করেছিলো যারা তাদের বিচার…
ইসলাম রক্ষার নামে ইসলামের শান্তিকে নষ্ট করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
পাকিস্তানীদের সাথে আতাত করে ধ্বংস করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
গণহত্যা করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
গণ ধর্ষণ করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
দেশ কে পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিলো যারা, তাদের বিচার…
মুক্তিযোদ্ধাদের রক্ত নিয়ে হলি খেলেছিলো যারা, তাদের বিচার…
আমার বাবা’কে গুলি করেছিলো যারা, তাদের বিচার…
আমাদের বুদ্ধিজীবিদের হত্যা করেছে যারা, তাদের বিচার…

এ জাতি কত হতভাগা। দীর্ঘ ৪০/৪১ বছরে পা রেখে এ বিচারকাজ শুরু দেখতে পেল।
কত রং, কত ঢং…
আরও কত কি যে আলামত…

৭১ এর সময় ঐ সব জারজ সন্তানদের ষড়যন্ত্র জাতি মনে হয় ভূলে গেছে, ভূলে গেছে হয়’ত আমাদের সমাজ তথা রাষ্ট্র। ছোট কাল থেকেই জানি, কয়লা ধূইলে ময়লা যায় না। সমাজ যতই আধুনিক সভ্যতায় পরিগঠিত হোউক না’কেন ষড়যন্ত্রকারীরা তাদের ষড়যন্ত্র বন্ধ করে দিয়েছে ভাবলে হয়’ত আমরা বোকার রাজ্যের গর্দব রাজা। ইবলিশ শয়তান’রা কখনো নিজেদের ভূলের জন্য অনুতপ্ত হয় না। তারা কখনো তাদের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চায় না। বরং তারা তাদের নোংরা ষড়যন্ত্র আরও সুচারু করে। ধ্বংস করার কৌশল পরিবর্তন করে, করে আধুনিকায়। শয়তান সব সময় দূর্বল ঈমানদার লোকের সাহায্য নিয়ে থাকে। তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যাবহার করে। তাদের আবেগ অনুভূতি নিয়ে মজা করে। কারণ শয়তান জানে, কখন কোথায় কিভাবে মৌচাকে ঢিল মারতে হয়, কিভাবে মৌমাচিদের ক্ষেপিয়ে তুলতে হয়।

আওয়ামীলীগ তথা মহাজোট সরকার মৌচাকে ঢিল মারাকে কিভাবে প্রতিহত করবে আমার জানা নেই, জানা নেই তাদের পরিকল্পনার ছক। সাধারণ মানুষের ধর্মানুভূতি কে পুজি করে শয়তান’দের নোংরা ষড়যন্ত্র প্রতিহত করার পরিকল্পনা আমার জানা নেই।
আজ পবিত্র মস্জিদের মাইক ব্যবহারের মাধ্যমে শয়তান সাধারণ মানুষের জীবন কে ধ্বংস করে দিচ্ছে।
আজ চান্দে সাঈদী কে নিয়ে চাদের বুড়ির সম্ভম হানীর চেষ্টা, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ ভিটামিন এ ক্যাপসুলে শিশুদের মিথ্যা মারা তথ্য ছড়াচ্ছে শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ জাতীয় মস্জিদ বায়তুল মোকারমে শয়তানের দেয়া আগুন জ্বলেছ, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ লাখো শহীদ’দের স্মৃতিসম্ভ ভেঙ্গে অপমান করছে শয়তানর , আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ লাল-সবুজের পতায় শয়তানের আগুন, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ পুলিশের হাত বোমায় উড়িয়ে ফেলেছে শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ জীবন্ত মানুষ কে পুড়িয়ে মারছে শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে রাজিবের মত আমার বন্ধুকে খুন করলো শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ আস্তিক-নাস্তিকের বেড়াজালে দেশের সুর্য সন্তান’দের জড়ালো শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ দেশের শ্রেষ্ট সন্তান ব্লগারদের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ড চালাচ্ছে শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।
আজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থামিয়ে দিতে চায় শয়তান, আমি প্রতিহত দেখিনী।

বাবা’র তখন টনটনে অবিবাহিত বয়স। শত্রুদের বিরুদ্ধে গর্জে ওঠেছে। অস্ত্র হাতে মোকাবেলা করেছে। পাকিস্তানী ও তাদের জারজ সন্তানদের কঠিন হাতে দমন করেছে। মুক্ত করেছে বাংলাদেশ। এক এক করে শুনেছি বাবা’র মুখ থেকে। আমার জন্ম হয়নি তখন। অনেক পরে বাবা’র তৈরি মুক্ত স্বদেশের মাতৃভূমি আমি ভূমিষ্ট। আমি তখনকার ভয়াবহ অবস্থান দেখিনী। তবে
আমি দেখেছি, আজকের মুক্তিযোদ্ধাদের…
আমি দেখেছি, গণজারন…
আমি দেখেছি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা…
আমি দেখেছি, অহিংস আন্দোলন…
আমি দেখেছি, তিন মিনিটের জন্য পুরো জাতি কিভাবে থমকে দাঁড়িয়েছে…
আমি দেখেছি, প্রদীপপ্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে দেশ কে আলোকিত করার দৃশ্য…
আমি দেখেছি, পুরো জাতি এক সাথে সোনার বাংলা গাইতে…
আমি দেখেছি, লাল-সবুজের পতাকা মিছিল…
আমি দেখেছি, শহীদ’দের প্রতি চিঠি পড়ার অবস্থান…
আমি দেখেছি, দূর আকাশে শহীদ’দের উদ্দেশ্যে ফানুস উড়ার দৃশ্য…
আমি দেখেছি, ভালোবাসার সম্প্রিতির বন্ধন…
আমি দেখেছি, শয়তান’দের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার আন্দোলন…
আমি দেখেছি, শ্লোগানে শ্লোগানে জাতির গর্জে ওঠার মিছিল…
আমি দেখেছি, ছোট্ট ছেলেটি মশাল জ্বালিয়ে প্রতিবাদের দৃশ্য…
আমি দেখেছি…

মহাজোট সরকারের সাথে আমাদের সবাই কে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
ভয় পেয়ে থাকিস’নে বসে,
মেঘের আড়ালে সূর্য হাসে।
আমাদের লড়তে হবে। সবাই কে সাথে নিয়ে শয়তানের দল কে বাংলার পবিত্র মাটি থেকে উৎখাত করতে হবে। আমাদের বাবা-ভাই’দের রক্তের ঋৃন পরিশোধ করতে হবে, করতে হবে মা-বোন’দের রেখে যাওয়া স্বপ্ন পূরণ। আমাদের পথ সহজ, আমাদের পথ সরল, আমাদের উদ্দেশ্য মহৎ এবং আমরাই জয়ী হবো ইনশা’আল্লাহ্।

৬ thoughts on “যুদ্ধাপরাধী শয়তানের বিচার ও আওয়ামীলীগ সরকার

  1. কোন প্রকার তর্ক-বিতর্কে আমি
    কোন প্রকার তর্ক-বিতর্কে আমি নাই।

    আমাদের লড়তে হবে। সবাই কে সাথে নিয়ে শয়তানের দল কে বাংলার পবিত্র মাটি থেকে উৎখাত করতে হবে

    আমি শুধু এইটুকুর মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে চাই…

  2. সবাইকে সাথে নিয়ে লড়তে গেলে আর
    সবাইকে সাথে নিয়ে লড়তে গেলে আর সম্ভব হবে না, কেননা এখানে সকলেই সেনাপতি হতে চায় আর অন্যের মাথায় কাঁঠাল ভেঙ্গে খেতে চায়। নিজের স্থান থেকে লড়াই শুরু করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *