হারিয়ে যাওয়া বন্ধু “দন্ত জাহিদ”

সময় টা সম্ভবত ক্লাস এইট। বরগুনা জিলা স্কুল। প্রিয় বরগুনা জিলা স্কুল। আন্তঃ স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আমাদের জন্য ছিলো প্রতি বছরের পরম অপেক্ষার বিষয়। প্রতি টি ক্লাস থেকে দুই টি করে টিম নিয়ে প্রায় দুই সপ্তাহ ব্যাপী টুর্নামেন্ট। ফাইনাল ম্যাচ স্পোর্টস ডে তে।

সময় টা সম্ভবত ক্লাস এইট। বরগুনা জিলা স্কুল। প্রিয় বরগুনা জিলা স্কুল। আন্তঃ স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আমাদের জন্য ছিলো প্রতি বছরের পরম অপেক্ষার বিষয়। প্রতি টি ক্লাস থেকে দুই টি করে টিম নিয়ে প্রায় দুই সপ্তাহ ব্যাপী টুর্নামেন্ট। ফাইনাল ম্যাচ স্পোর্টস ডে তে।
যাই হোক প্রতি বছর এর মত সে বছর ও আমাদের ক্লাস থেকে দুই টা টিম রেডি হলো টুর্নামেন্ট এর জন্য। কোন এক অদ্ভুত সুবিধার জন্য আরো একটি টিম দরকার পরলো আমাদের ক্লাস থেকে। আগেই ঠিক হয়ে যাওয়া দুই টি টিমে আমাদের সব নিয়মিত ক্রিকেটার দের বাদ দিয়ে নতুন করে আরেকটা “ধজবঙ্গ” টিম দাঁড় করলাম আমি, এবং জাহিদ নামের একটি ছেলে। যার প্রচলিত নাম ছিল “দন্ত জাহিদ”। সম্ভবত জিয়াও ছিলো আমাদের সাথে।
জাহিদ কোন এক বুদ্ধি নিয়ে দল কে শক্তিশালী করার জন্য আমাদের ক্লাসের অন্য টিম এর প্লেয়ারদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ৩/৪ টা প্লেয়ার নিয়ে আসলো আমাদের টিম এ। খেলাও শুরু হলো। ভাল অবস্থানে আমাদের দল। প্লেয়ার’স চয়েস থাকলেও আগেই অন্য টিমে নাম এন্ট্রি হওয়ায় মাঝ পথে থেমে গেল খেলা। অধিনায়ক হিসাবে সব দায় এসে পড়লো আমার ঘাড়ে! আমার বন্ধুরা ট্রেডিশন অনু্যায়ী আমাকেও একটি ছদ্মনাম দিতে ভুললো না! ! !
এর পর স্কুলে কেটেছে আরো দুইটা বছর। প্রতি বছর ই একটি আন্ডারডগ টিম নিয়ে টুর্নামেন্ট খেলেছি। যার সর্বোচ্চ প্রাপ্তি ছিলো সেমিফাইনাল!!
ক্রিকেট এখানের মূল টপিক নয়। মূল টপিক জাহিদ। আমাদের “দন্ত জাহিদ”। ক্রিকেটের মত আরো অনেক ঘটনার সঙ্গী এই জাহিদ। জাহিদের বাবা পুলিশ কর্মকর্তা থাকায় সম্ভবত ক্লাস এইট এর পরেই বদলী হয় গলাচিপায়। ওই ছিলো জাহিদের সাথে আমার বা আমাদের শেষ দেখা! ! আফসোস একটা ছবিও খুঁজে পেলাম না ওর সাথে!!!
তখনো মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক আমাদের মফস্বল পর্যন্ত পৌঁছায় নি। ফলে দেখা তো দূরের কথা, কখনো কোন যোগাযোগ বা খোঁজ পর্যন্ত পাই নি জাহিদ এর। কেটে গেছে ৮ বছর!!! হারিয়ে যাওয়া অনেক বন্ধুর সাথে দেখা হয়েছে আবার। সামনা সামনি বা ফেসবুকে খুঁজে পেয়েছি কাউকে কাউকে।
কিন্তু সেই “দন্ত জাহিদ” কে আজ পর্যন্ত খুঁজে পাই নি!!!
জানি না কোথায় আছিস, কেমন আছিস, কি করছিস। হয়ত কোন এক দিন হঠাত করে দেখা হয়ে যাবে। হয়ত চিনতেও পারবো না মানুষের ভিড়ে, পাশ কাটিয়ে চলে যাবো আমরা!
তবু শুভ কামনা তোর জন্য। যেখানেই থাকিস, ভাল থাকিস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *