আমি হেফাজত ও জামাতের ধর্মকে অস্বীকার করি

ডেটলাইনঃ ১১ এপ্রিল, ২০১৩
স্থানঃ ভুজপুর, ফটিকছড়ি।
আওয়ামীলীগের হরতাল বিরোধী মিছিল। প্রায় ২০০ মোটরসাইকেল নিয়ে গ্রামে প্রবেশ। মসজিদের মাইক থেকে মিথ্যা ছড়ানো। প্রায় সব মোটরসাইকেল সহ, ফায়ার সার্ভিসের গাড়িতে আগুন। চারদিকে থেকে ঘিরে ধরে পিটিয়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের হত্যা। কতজনকে হত্যা করা হয়েছে সেটা এখনো নিশ্চিত না। তাৎক্ষণিক ভাবে ৩ জন বলা হলেও পরবর্তীতে সেটা ৫ হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে সংখ্যাটা আরো বেশি। নিখোঁজ অনেকের খোঁজ এখনো পাওয়া যায়নি।


ডেটলাইনঃ ১১ এপ্রিল, ২০১৩
স্থানঃ ভুজপুর, ফটিকছড়ি।
আওয়ামীলীগের হরতাল বিরোধী মিছিল। প্রায় ২০০ মোটরসাইকেল নিয়ে গ্রামে প্রবেশ। মসজিদের মাইক থেকে মিথ্যা ছড়ানো। প্রায় সব মোটরসাইকেল সহ, ফায়ার সার্ভিসের গাড়িতে আগুন। চারদিকে থেকে ঘিরে ধরে পিটিয়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের হত্যা। কতজনকে হত্যা করা হয়েছে সেটা এখনো নিশ্চিত না। তাৎক্ষণিক ভাবে ৩ জন বলা হলেও পরবর্তীতে সেটা ৫ হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে সংখ্যাটা আরো বেশি। নিখোঁজ অনেকের খোঁজ এখনো পাওয়া যায়নি।

প্রত্যন্ত গ্রামে এই ঘটনা ঘটায় তাৎক্ষণিকভাবে মিডিয়া সেখানে উপস্থিত হতে না পারায় এই নির্মম হত্যাকান্ডের কোন ভিডিও আমরা দেখতে পাইনি। কিন্তু গতকাল থেকে অনলাইনে এই হত্যাকান্ডের একটি ফুটেজ শেয়ার হতে থাকে। লিমিটেড প্যাকেজ এবং স্লো নেট কানেকশনের কারনে কাল ভিডিওটি দেখার সুযোগ হয়নি। আজ দেখার সু্যোগ হল। সহিংসতার ভিডিও ফুটেজ সাধারনত একবারের বেশী দেখা হয়না। এই ভিডিওটি একবার দেখার পর আরেকবার দেখতে হয়েছে একটা জায়গা নিশ্চিত হবার জন্য। ছাত্রলীগ কর্মীকে পিটিয়ে মারার সময় দেয়া স্লোগান আমি ভুল শুনেছি কিনা। না, ভুল শুনিনি। নারায়ে তাকবীর, আল্লাহু আকবর।। কুরআনের আলো, ঘরে ঘরে জ্বালো।। হাদিসের আলো, ঘরে ঘরে জ্বালো।। এই শ্লোগানই তো দেয়া হচ্ছিল। আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব প্রকাশের জন্য আল্লাহু আকবর ধ্বনি দেয়া হয়। নিরস্ত্র কিছু মানুষকে একটা ঘরে আটকে রেখে পিটিয়ে মারার সময় আল্লাহর কোন শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করা হচ্ছিল? কুরআনের বাণী এসেছিল পৃথিবীতে শান্তি কায়েমের জন্য, মানুষ পিটিয়ে মারার সময় কোন শান্তি কায়েম করা হচ্ছিল? আমার পড়া কুরআন মানুষ পিটিয়ে মারার কথা বলেনা, আমার রাসূল(স.) এর হাদিস মানুষ পিটিয়ে মারার কথা বলেনা। হেফাজত আর জামাতের কুরআন কি বলে আমি জানিনা, তারা যে হাদিস পড়েছে সেখানে কি বলে আমি জানিনা। তাদের কুরআন ও হাদিস ইসলামের কুরআন-হাদিস না। আমার ধর্মতে আমার পূর্ণ বিশ্বাস আছে। আমি হেফাজত আর জামাতের ধর্মকে অস্বীকার করি। অস্বীকার করি তাদের দেয়া সমস্ত ফতোয়া। আমার আল্লাহ সর্বশ্রেষ্ঠ, ওদের প্রভু শয়তান। সত্য সমাগত, মিথ্যা অপসৃত হবেই……

৭ thoughts on “আমি হেফাজত ও জামাতের ধর্মকে অস্বীকার করি

  1. হেপাঝতে ঝামাত শুয়োরের
    হেপাঝতে ঝামাত শুয়োরের বাচ্চাদের সাথে সমস্ত সহবাসের ফতোয়া আমিও সরাসরি অস্বীকার করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *