পরিবর্তন

মানুষের ভাললাগা কেমন হতে পারে সে সর্ম্পকে আপনার ধারনা কেমন? যদি আমাকে বলা হয়, আমি বলব আমার ধারনা শূন্যের কাছাকাছি। তবে আমি এটা বলতে পারি যে “ভাললাগার” পরিবর্তন হতে পারে, যেহেতু মানুষ পরিবর্তনশীল।

মানুষের ভাললাগা কেমন হতে পারে সে সর্ম্পকে আপনার ধারনা কেমন? যদি আমাকে বলা হয়, আমি বলব আমার ধারনা শূন্যের কাছাকাছি। তবে আমি এটা বলতে পারি যে “ভাললাগার” পরিবর্তন হতে পারে, যেহেতু মানুষ পরিবর্তনশীল।
এখন আমার প্রশ্ন হল এই পরিবর্তন কতটুকু হতে পারে, এটার রেন্জ কেমন? অবশ্যই স্বাভাবিক সীমার মধ্যে হয়। আজ যা ভাল লাগছে কালকে তা বদলে যেতেও পারে। হ্যা, বাস্তবতা হল- ভাললাগা বদলাতে পারে, কারনে-অকারনে বদলাতে পারে,ঐ ভাললাগার থেকে বেটার ভাললাগা আসার কারনেও তা বদলাতে পারে, সামান্য কিছু কথার কারনেও বদলাতে পারে। এই পরিবর্তন একটা সীমার মধ্যে থাকলে ভাল হয়, কিন্তু যখন সীমা অতিক্রম করে তখন তেতো লাগে। কিছু ছেলে আছে যাদের ভাললাগা বদলায় ভাল্লুকের জ্বরের মত প্রতি তিন মিনিট পর পর। আমি সব ছেলের কথা বলছি না। এক বার চিন্তা করে দেখুন তো- যে ভাললাগার ডিসিশন গুলো জীবনে এক বারই নেওয়া যায় সেই সব ক্ষেত্রে এই সব ছেলেগুলো কি করবে? এদেরকে মন্দের মধ্যে ভাল খুজে, সেই ভালকে আড়াল করেই বেচে থাকতে হবে না কি অন্য কিছু?
আর কিছু কিছু মেয়ে আছে যাদের ভাললাগা সকাল থেকে দুপুর গড়াবার আগেই বদলে যায়। এরা সকালে বিকালে বদলায়, এতে অবাক হওয়ার কিছু নাই।অনেকটা মৌসুমী বায়ুর মত, কোন ঠিক নাই। আমি সব মেয়ের কথাও বলছি না, কিছু মেয়ে। এই দেখছেন পর্দা আছে হঠাত দেখবেন পর্দা নাই। এদের ফেসবুক প্রোফাইল দেখলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন– কিছুদিন দেখবেন গাছ লতা,পাতা,ফুল,পাখি, রান্না করা খাবার, আকানো ছবি, রাস্তা-ঘাট ইত্যাদি ইত্যাদি ফটো আপলোড চলছে আবার কিছুদিন বিরতির পর দেখবেন- হাতের তালু, পায়ের পাতা, নখ, দাত,হাটু,কোমর,কনুই,চশমা পরা চোখ,ওড়না পেচানো চোখ,খালি চোখ,বাকা চোখ,ট্যারা চোখ, মুখের একাংশ,নাকের একাংশ এমনকি আস্তে আস্তে পুরো ফটোটাই আপলোড করে দিচ্ছে। এরা হচ্ছে কনজারভেটিভ। আর কিছু মেয়ে আছে যারা এ টু জেড আপলোড করে দিচ্ছে কোন প্রকার বিরতি ছাড়াই। এরা অতটা সংরক্ষনশীল না।
আবার কিছু মেয়ে আছে যারা ফটো তো দুরের কথা নিজের নাম পর্যন্ত দিয়ে আইডি খুলতে ভয় পায়। কি অদ্ভুত সব নাম দিয়ে আইডি খুলে শুনলে পিলে চমকে যায় আর যত সব গরু-ছাগল, কুকুর-বিড়াল,হাতি-ঘোড়া, ভেড়া-গাধার ফটো দিয়ে টাইমলাইন ভর্তি করে ফেলে। এরা সবচেয়ে বেশী কনজারভেটিভ। এরাই আবার ওড়না ছাড়া রাস্তায় ঘুরে বেড়ায়। কি আমূল পরিবর্তন এদের মাঝে। (কত রঙ্গ দেখাবি কালী,ছেড়া জুতোয় মখমলের তালি)
প্রশ্ন ছিল পরিবর্তনের সীমা কতটুকু। এখন হয়তো সবাই বুঝতে পারছেন যে তারা আসলে সীমা অতিক্রম করছে কি না। শুধু ফেসবুক না, এটা একটা উদাহরন মাত্র, আরো অনেক জাইগায় এই পরিবর্তনগুলো আপনারা লক্ষ্য করবেন। আমি বলছিলাম মানুষের মনের পরিবর্তন হতেই পারে, তাই বলে এতটা?ভাললাগার পরিবর্তন হতেই পারে, তাই বলে এতটা? আগের ভাললাগা থেকে আরো বেটার কিছু আসছে না কি করোর কথার কারনে বদলে যাচ্ছে এই ভাললাগা? না কি কাউকে অনুসরন করছে এরা সেটা এরাই ভাল জানেন। তবে আমার মনে হয় একটু তেতো হয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *