আগ্রাসনের অপেক্ষায়

ইসলাম অবশ্যই শান্তির ধর্ম।এ ধর্ম এসেছে মানবতার
মুক্তি দিতে।দিয়েছিল ও।আইয়্যামে জাহেলিয়্যাতের
মত আন্ধকার যুগকে দিয়েছিল পাল্টে।তার
পেছনে তারবারীর ভূমিকা কতটুকু? আজ ‘মুসলমান’
শব্দটি শুনে অনেকেই আঁতকে ওঠেন।এ যে দাঁড়ি টুপির
বিভৎস হায়েনার প্রতিশব্দ।মুসলমান মানেই
সাম্প্রদায়িক।আজ মুসলিম বলতেই বোঝানো হয়
মৌলোবাদী আর প্রতিক্রীয়াশীলদের।জঙ্গিবাদ ও যেন
ইসলামের আরেকটি রূপ।এসব লকব পেতে পেতে আমাদের
মাথা নিচে নেমে এসেছে বহু আগে।ইসলামের
ইতিহাসে জিহাদ অবশ্যই ছিল,তাই বলে কি ইসলাম
মধ্যযুগীয় বর্বরতা? জেহাদের ময়দানে কোন মুসলিম
সেনাপতি আগে আঘাত হেনেছেন,এই ইতিহাস আছে?

ইসলাম অবশ্যই শান্তির ধর্ম।এ ধর্ম এসেছে মানবতার
মুক্তি দিতে।দিয়েছিল ও।আইয়্যামে জাহেলিয়্যাতের
মত আন্ধকার যুগকে দিয়েছিল পাল্টে।তার
পেছনে তারবারীর ভূমিকা কতটুকু? আজ ‘মুসলমান’
শব্দটি শুনে অনেকেই আঁতকে ওঠেন।এ যে দাঁড়ি টুপির
বিভৎস হায়েনার প্রতিশব্দ।মুসলমান মানেই
সাম্প্রদায়িক।আজ মুসলিম বলতেই বোঝানো হয়
মৌলোবাদী আর প্রতিক্রীয়াশীলদের।জঙ্গিবাদ ও যেন
ইসলামের আরেকটি রূপ।এসব লকব পেতে পেতে আমাদের
মাথা নিচে নেমে এসেছে বহু আগে।ইসলামের
ইতিহাসে জিহাদ অবশ্যই ছিল,তাই বলে কি ইসলাম
মধ্যযুগীয় বর্বরতা? জেহাদের ময়দানে কোন মুসলিম
সেনাপতি আগে আঘাত হেনেছেন,এই ইতিহাস আছে?
আঘাতের পাল্টাঘাতই ছিল ইসলামী জেহাদের
মূলমন্ত্র।জেহাদ মানেই যে বোমা মেরে সব
উড়িয়ে দিতে হবে,এই থিওরী ইসলাম সামর্থন
করে না।তবে কেন আমরা নিজেদের
স্বার্থে ধর্মকে ঢাল ধরে অবমাননা করছি এই চির
সত্যের জীবন বিধানকে?

ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা।ইসলামে
রাজনীতি,সমাজনীতি,অর্থনীতি অবশ্যই আছে।ইসলাম
এই কথা কখনোই বলেনি যে,আমাদের মা বোনদের
হাতকড়া পড়িয়ে ঘরে বেঁধে রাখতে।দিয়েছে পর্দার
বিধান।এটা যেমন ফরজ একজন নারীর,তেমন একজন
পুরুষের ও।
আমাদের দেশকে আজ মেরুকরণ করা হচ্ছে।একদলের
দাবী,তারা মুসলিম,বাকিরা নাস্তিক।এদের নির্মুল
চাই।আরেক দলের দাবী,আমরা স্বাধীনতায়
বিশ্বাসী।ছাগু ও ধর্মান্ধ মুক্ত বাংলা চাই।আবেগ
প্রবন জাতির একদিকে উসকে দেয়া ধর্মীয়
চেতনা,অপর দিকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।নেতাদের
ব্যাবসা বেশ ভালোই চলছে।সাঈদীর রায়ের পর
মরেছে অনেক মানুষ।কাল ফটিকছড়িতে সন্তান
হারা হয়েছে অনেক মা।মানুষের লাশ,রক্তের ঘ্রান
বাংলার জন্য এখন আবারো স্বাভাবিক।প্রায়
প্রতিদিনই তো মানুষ মরছে।
মরা লাশের ঘ্রান কি শকুনিরা পাই নি? আগ্রাসন
হচ্ছে কবে?

২ thoughts on “আগ্রাসনের অপেক্ষায়

  1. /// জেহাদের ময়দানে কোন
    /// জেহাদের ময়দানে কোন মুসলিম
    সেনাপতি আগে আঘাত হেনেছেন,এই ইতিহাস আছে?
    আঘাতের পাল্টাঘাতই ছিল ইসলামী জেহাদের
    মূলমন্ত্র। ///

    ইসলামের ইতিহাস ভাল করে জেনে তারপর বললে মনে হয় ভাল হতো।
    বখতিয়ার খলজিকে কে আগে আঘাত করেছিল জানতে মুঞ্চায়।
    খালিদ বিন ওয়ালিদকে কে আগে আঘাত করেছিল জানার ইচ্ছা হলো নতুন করে।
    মারিয়াকে কেন উপঢৌকন হিসেবে দেয়া হয়েছিল জানার দরকার।

  2. এই ব্যাপারে আমার দূর্বলতা
    এই ব্যাপারে আমার দূর্বলতা অবশ্যই স্বীকার করছি।আমি লিখাটা যেটার ভিত্তিতে বলেছিলাম তা হল,কোন এক জেহাদের মাঠে জনৈক কোরেশ বীর নাকি মুসলমানদের তাচ্ছিল্ল করে বললেন,আমার সাথে লড়বার মত বীর কে আছ?
    আলী এগিয়ে গেলেন।বললেন,আঘাত কর।
    কোরেশে বীর বললেন,তুমি আগে কর।
    জবাবে আলী বলেছে,আমরা মুসলমানেরা আঘাতে সমর্থন করিনা।আঘাতের জবাবে পাল্টাঘাতই আমাদের জেহাদী নীতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *