বৌদ্ধ ধর্মীয় মধু পূর্ণিমা অনুষ্ঠান এবং দুটি সহজ প্রশ্ন

“মধু পূর্ণিমা বৌদ্ধদের অন্যতম একটি ধর্মীয় উত্‍সব।এ দিনটি বৌদ্ধ ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক ও তাত্‍পর্যময় দিন। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে তথাগত বুদ্ধ কোশাম্বীতে ভিক্ষু-সংঘসহ অবস্থান করার সময় বিনয়ধর পন্থী ভিক্ষু ও সূত্রধর মধ্যে বিনয় সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।এ বিষয় নিয়ে উভয় পন্থী ভিক্ষুদের মধ্যে মতদ্বৈততা চরম আকার ধারন করলে তথাগত বুদ্ধ তাঁদের বিবাদ মীমাংসা করার প্রচেষ্টা করেন। কিন্তু উভয় পক্ষ তাঁদের স্ব স্ব মতের পক্ষে অবস্থান গ্রহন করেন,ফলে বিবাদ মীমাংসা করা সম্বব না হওয়াতে বুদ্ধ কোশাম্বী ত্যাগ করে পারিলেয় নামক বনে গমন করেন এবং দশম বর্ষাবাস সেখানে পালন করেন।


“মধু পূর্ণিমা বৌদ্ধদের অন্যতম একটি ধর্মীয় উত্‍সব।এ দিনটি বৌদ্ধ ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক ও তাত্‍পর্যময় দিন। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে তথাগত বুদ্ধ কোশাম্বীতে ভিক্ষু-সংঘসহ অবস্থান করার সময় বিনয়ধর পন্থী ভিক্ষু ও সূত্রধর মধ্যে বিনয় সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।এ বিষয় নিয়ে উভয় পন্থী ভিক্ষুদের মধ্যে মতদ্বৈততা চরম আকার ধারন করলে তথাগত বুদ্ধ তাঁদের বিবাদ মীমাংসা করার প্রচেষ্টা করেন। কিন্তু উভয় পক্ষ তাঁদের স্ব স্ব মতের পক্ষে অবস্থান গ্রহন করেন,ফলে বিবাদ মীমাংসা করা সম্বব না হওয়াতে বুদ্ধ কোশাম্বী ত্যাগ করে পারিলেয় নামক বনে গমন করেন এবং দশম বর্ষাবাস সেখানে পালন করেন।

বনে বর্ষা যাপন কালে একটি একাচারী হাতি প্রতিদিন বুদ্ধের সেবা করত,বনের ফল সংগ্রহ করে বুদ্ধকে দান করত।এ সময় বনের একটি বানর হস্তীরাজ কর্তৃক বুদ্ধকে সেবা করতে দেখে তারও বুদ্ধকে পূজা করার ইচ্ছা জাগে।ভাদ্র পূর্ণিমাতে সে একটি মৌচাক সংগ্রহ করে বুদ্ধকে দান করেন।মৌচাকে মৌমাছির ছানা ও ডিম থাকায় বুদ্ধ প্রথম মধূ পান করলেন না।বানর তা বুঝতে পেরে মৌচাকটি নিয়ে ছানা ও ডিম পরিস্কার করে পূনরায় বুদ্ধকে দান করলে এবার বুদ্ধ মধু পান করেন।পারিলেয়া বনে হস্তিরাজ কর্তৃক ভগবান বুদ্ধের সেবাপ্রাপ্তি ও বানরের মধুদানের কারণে এ দিনটি বৌদ্ধদের কাছে স্মরণীয় ও আনন্দ উত্‍সবমুখর পুণ্যময় একটি দিন।”

উপরের লেখাটি উইকি থেকে নেয়া। তবে আমার মনে কয়েকটা প্রশ্ন জেগেছে,সবার কাছ থেকে বির্তক নয়,জানতে চাই-

১. তথাগত বুদ্ধ কোশাম্বীতে সংঘসহ অবস্থান করার সময় বিনয়ধর পন্থী ও সূত্রধর পন্থী ভিক্ষুর মধ্যে বিনয় সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয় এবং বুদ্ধ মীমাংসার প্রচেষ্টাও করেন।কিন্তু তা মীমাংসা হয়নি,ভিক্ষুরা নিজেদেরি সিন্ধান্ত গ্রহন করেন,যার কারনে তথাগত বুদ্ধ ওই জায়গা ত্যাগ করেছিলেন।
-তাহলে,তথাগত বুদ্ধ কি ভিক্ষুদের পরিচালনা করতে ব্যর্থ ছিলেন?
-নাকি ভিক্ষুরা তথাগত বুদ্ধকে মানতেন না,যার কারন তথাগত বুদ্ধের উপদেশ বা মীমাংসাকে শ্রদ্ধাচিত্তে মেনে না নেওয়া?

২.মৌচাকে মৌমাছির ছানা ও ডিম থাকার জন্য প্রথমে তথাগত বুদ্ধ মধু পান করেন নি,তবে তা বানর বুঝতে পেরে মৌচাকটি পরিস্কার করে দেয়।
-তাহলে,মৌচাকটির ভিতরের ছানা গুলোকি মারা যায়নি?এবং ডিম গুলোকি নষ্ট হয়নি?
-মৌচাকটি ভেঙে মৌমাছির বাস স্থানও কি নষ্ট হয়নি?
-যদি এমন হয়,তাহলে বৌদ্ধদের মতে নিশ্চয় এটা পাপ!এই পাপ কার হবে?

২ thoughts on “বৌদ্ধ ধর্মীয় মধু পূর্ণিমা অনুষ্ঠান এবং দুটি সহজ প্রশ্ন

  1. যদি এমন হয়,তাহলে বৌদ্ধদের মতে

    যদি এমন হয়,তাহলে বৌদ্ধদের মতে নিশ্চয় এটা পাপ!এই পাপ কার হবে?

    এই পাপ যারা বৌদ্ধধর্মের অনুসরণ করেন তাদের হবে। এটা পানিরমত সহজ একটা বিষয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *