মায়াবিনী

একজন মায়াবিনী; যাকে পেয়েছি আমি সেই আলোয় আলোময়ী
তার মায়ার কাছে যে খোদ আমি-ই ছায়াময়ী!
গর্বিত আমি তাতে, খুশি, উৎফুল্লও বটে-
কেননা, আমি যে আর থাকতে চাইনা আমাতে,
আমি পৌছুতে চাই আমার আকাঙ্ক্ষিত ঠিকানায়-
যেখানে থাকবেনা ভেদ তাহাতে আর আমায়,
তাই তাকে বলছি- অগ্রগামিনী- দাড়াও,
একটা জীবন জিরিয়ে নাও আমার সাথে,
না বললে শুনব কেন? ভালোবাসি যে তোমায়!

কিন্তু কে সেই মায়াবিনী? কোন গুনে মুগ্ধ হয়ে-
এই আমি কালের প্রবর্তক হতে গিয়ে
দিচ্ছি তাকে মহাকালের কর্ত্রীর পদবী?
সেই গুন তাই যা মানব অন্তরে সর্বোচ্চ,
জ্যোৎস্না রাতের মায়াও যার স্বচ্ছতার কাছে মলিন, তুচ্ছ,
কিন্তু কে সে? জানতে চাও? মোহময় মায়াবিনীকে চিনতে চাও?
আর কেউ নয়, সে যে তুমি, তুমি এবং তুমি।

২ thoughts on “মায়াবিনী

    1. জানি তেমন একটা ভালো হয় নাই,
      জানি 😛 তেমন একটা ভালো হয় নাই, আর এইটা বহুত পিচ্চি বয়সে লেখা… ১৬ বছর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *