সৌভাগ্যবান সিরিয়ান উদ্বাস্তু ।।


একজন সিরিয়ান উদ্বাস্তু বৈরুতের রাস্তায় ঘুমন্ত মেয়েকে কাধে নিয়ে কলম বিক্রি করছিলেন। পথচারী (এখনো অপরিচিত) আরেক লেবানিজ তার ক্যমেরায় ছবি তুললেন বাবা ও মেয়ের । বেশ ভেবে তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন টুইটারে #BuyPens নামে অ্যাকাউনট করে ছবিটি আপলোড করলেন যেন মানুষ অনলাইনে দেখতে পায় একজন পিতার করুন আর্তি । সিরিয়ায় গত চার বছর ধরে গৃহ যুদ্ধ চলছে । সিরিয়ান নাগরিকরা নিজেরাই নিজের দেশে উদ্বাস্তু । এই মুহূর্তে ৪০ লাখ লোক সিরিয়ার পশ্চিম ও লেবাননে তাবুতে জীবনযাপন করছে । এদের ঘরবাড়ি ধ্বংস নয়ত দখল হয়েছে। মূলত সুন্নি ও শিয়াদের মধ্যেকার যুদ্ধ এটি । প্রেসিডেন্ট আসাদ একজন আলাউই নামক সংখ্যালঘু শিয়া মুসলিম । তারা নিজেদের দেশি সুন্নি মুসলিমদের বিতাড়িত করে ঠিক কি করতে চাইছে তা আমার জানা নেই। তো টুইটারে @GissiSim যার আসল নাম Gissur Simonarson CN , থাকেন নরওয়েতে দেখলেন এই মানবিক ব্যাপারটি । তিনি আবার বিভিন্ন সমাজ সেবায় জড়িত । একটা পরিকল্পনা ছক কেটে তিনি মুহূর্তেই বার্তা পাঠালেন পোস্টদাতাকেঃ আমায় সাহায্য করুন এই লোকটিকে খুজে পেতে, কেউ যদি বৈরুতের হন—–। জবাব পেলেন । লোকটি গত চার বছর উদ্বাস্তু সিরিয়ায় ও লেবাননে, নাম আব্দুল হালিম আত্তার , কাধের কিউট মেয়েটি নাম রিম ০৪ বছর এবং তাদের একটি ন বছরের পুত্র আছে , নাম আব্দেললিল্লাহ ও স্ত্রী । তারা প্যালেস্টিনিয়ান- সিরিয়ান সুন্নী মুসলিম । গিসসুর সিমনারিওন দ্রুত একটি পেজ Indiegogo fundraising page বানিয়ে লেবাননের বিদেশি সাহায্য সংস্থার সাথে যোগাযোগ করে পেজে মানবিক আবেদন জানালেন আব্দুল ও তার পরিবারকে একমুঠো খোরাক দেওয়ার জন্য সাহায্য করতে। প্রথম আধা ঘণ্টায় ৭ হাজার এবং ২৪ ঘণ্টায় তা ৬০ হাজার ডলার এবং এই সকালে আমার কাছে প্রাপ্ত তথ্যে ১লাখ ৪ হাজার ডলার জমা হয়েছে আব্দুল এবং তার পরিবারকে সাহায্য করার জন্য।। সাহায্যপ্রাপ্ত টাকা বৈরুতের একটি সাহায্য সংস্থার মাধ্যমে আব্দুলের প্রয়োজন মোতাবেক দেওয়া হবে। গিসসুরের পরিকল্পনা ছিল হাজার পাচেক ডলার পাওয়া গেলে সে যেন কিছু একটা করতে পারে তেমন পুজি হলেই হবে। গিসসুর ও বাইপেন এবং তাদের বন্ধুরা বিশ্বের এত মানুষের এরকম অভুতপূর্ব সাড়া পাবেন ভাবেননি । আসলেই বিশ্বের মানুষ মানবিক ও উদার। তারা যুদ্ধ চায়না চায় শান্তি । আব্দুল ও তার পরিবারের জন্য আমাদের ভালবাসা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *