দেশের বিভিন্ন স্থানে নাস্তিক ব্লগার গ্রেপ্তার

দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আজ সন্ধ্যায় বেশ কয়েকজন নাস্তিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে প্রায় প্রত্যেক ব্লগারের বাসায় মুক্তমত নিয়ে বেশ কিছু বই পাওয়া গিয়েছে। এইসব বইয়ের মধ্যে হুমায়ূন আজাদ, আহমদ শরীফ, আরজ আলী, অভিজিৎ রায় অন্যতম। এছাড়া অনেকের বাসায় বিদেশি লেখকদেরও কিছু বইও পাওয়া গিয়েছে। যার মধ্যে রিচারড ডকিংস, কার্ল স্যাগান, ক্যারেন আর্মস্ট্রং, স্যাম হ্যারিসের কিছু মারাত্মক বই আছে। অল্প কিছু বই পরীক্ষা করে দেখা গেছে এইসব বইয়ে মানবপ্রেম এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। নাস্তিক ব্লগারদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, বাঙালি সমাজে এসব অগ্রহণযোগ্য চেতনাকে ধারণ করে তারা ধর্মনিরেপেক্ষ এবং বাকস্বাধীনতার রেনেসাঁসের কথা ভাবছিল।

অভিযানের সময় দেখা যায়, অধিকাংশ নাস্তিক পড়াশুনায় ব্যস্থ ছিল। প্রায় প্রত্যেকের বাসায় জনপ্রিয় ধর্মসমূহের নানা ধরণের পবিত্র কিতাব পাওয়া গেছে। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এধরণের বই পাওয়াকে বড় ষড়যন্ত্রের আলামত হিসাবে দেখচ্ছেন। গোয়েন্দা সদস্যরা জানান, সব নাস্তিকের বাসায় অসংখ্য বই, খাতা কলমের মাঝে চাপাতি, হকিস্টিপ,বোমা তৈরির সরঞ্জাম পাওয়া যায় নি। যা দেখে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা রীতিমত বিস্মিত হয়েছে!

বেশ কয়েকজন নাস্তিককে জিজ্ঞাসাবাদে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। জানা গেছে এইসব নাস্তিক দেশের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ঐক্যের কথা বলত। নাস্তিক হলেও তারা ঈদের দিনে পথশিশুদের জন্য কাপড় দানের ব্যবস্থা করতো। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা মনে করেন এই পদ্ধতিতে কোমলমতি শিশুদের মগজ ধোলাই করা হয়। অধিকাংশ নাস্তিকের ব্লগ এবং ফেসবুক অ্যাকাউন্ট পরীক্ষা করে দেখা যায় তারা তীব্র জামায়াত শিবির বিরোধী। প্রায় সব নাস্তিকই প্রগতিশীল মতবাদে বিশ্বাসী হওয়ায় ধর্মান্ধতা এবং প্রতিক্রিয়াশীলতার জন্য হুমকি বলে গোয়েন্দারা মনে করচ্ছেন।

[বিঃদ্রঃ ইহা একটি কল্পকাহিনী]

২২ thoughts on “দেশের বিভিন্ন স্থানে নাস্তিক ব্লগার গ্রেপ্তার

  1. চরম রিপোর্ট। এই রিপোর্টের
    চরম রিপোর্ট। এই রিপোর্টের জন্য এ বছরের সেরা অনুসন্ধানী পুরস্কারের সবগুলো আপনার। জটিল জটিল

  2. মাথায় এরূপ চিন্তা ঘুরপাক খায়
    মাথায় এরূপ চিন্তা ঘুরপাক খায় বলেই নাম দিয়েছেন চিন্তিত সৈকত ? নামের স্বার্থকতা আছে বৈকি! এসব চিন্ত মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন! রাষ্ট্র যন্ত্র এখনও এতো নিচে নামেনি!

    1. রাষ্ট্র যে নামেনি তাতো বুঝাই
      রাষ্ট্র যে নামেনি তাতো বুঝাই যাচ্ছে।
      বেটা কমিশন বানাইতাছে, নাস্তিক ধরনের লাইগা।
      আর কতটুকু সঙ্গমে ধর্ষন হবে জানতে মঞ্চায়।

  3. শিরোনাম দেইখ্যা টাস্কি খাইয়া
    শিরোনাম দেইখ্যা টাস্কি খাইয়া গেছিলাম ভাবলাম তোমারে কি তারা খুইজ্যা পায় নাই?
    কিন্তু পোস্ট পইড়া বিনুদিত হইলাম।

  4. সরকারের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে

    সরকারের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে থাকা কিছু ছাগলের মাধ্যমে হয়ত কল্পকাহিনীগুলোও বাস্তব হয়েও যেতে পারে।

  5. রাখালের সেই “বাঘ আইছে, বাঘ
    রাখালের সেই “বাঘ আইছে, বাঘ আইছে…” কবে যে সত্যি হয়ে যায় কে জানে? হিজাব পড়া বাংলাদেশের স্বপ্নে বিভোর সরকারের পক্ষে বেসম্ভব কিছু না।

  6. আমি প্রথম দুই তিনটা লাইন পরে
    আমি প্রথম দুই তিনটা লাইন পরে গাইল দিতে নামতেছিলাম আর ভাবছিলাম সব মন্তব্যে গাইল থাকবে
    কিন্তু কমেন্ট দেখে টাসকি খাই আবার গেলাম উপরে পুরা পড়ে হাঁসি আসলো নিজের উপর :আমারকুনোদোষনাই: :লইজ্জালাগে: :হাহাপগে:

  7. ব্লগারদের পোস্ট বের করার মত
    ব্লগারদের পোস্ট বের করার মত পন্ডিত খুব কমই আছে রাষ্ট্র যন্ত্রের কাছে! আমাদের দেশের কোন তদন্ত কমিটি এ পর্যন্ত রিপোর্ট দিতে পেরেছে? এ কমিটিও সময়ের পর সময় নিয়ে যাবে আর রিপোর্ট দেয়ার পূর্বেই দেশে আরেক ঝামেলা তৈরী হয়ে যাবে। সুতরাং কমিটি রিপোর্টও দিবে না আর ব্লগারদেরও কিছু হবে না। আর যদি দুই একজন ব্লগারের নামে মামলা হয়েও যায়, তাহলে কেল্লা ফতে নিশ্চিত হিরো! সারা দেশের মানুষ ব্লগ পড়া আরম্ভ করে দিবে,, ফলে জয়টা আমাদের ঘরেই উঠবে! প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটা বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে না ? অতএব, নো চিন্তা…………. ডু ফুরতি………..

  8. চিন্তিত হওয়ার কিছু নাই, পাকা
    চিন্তিত হওয়ার কিছু নাই, পাকা খবর আছে সরকার এইটা নিয়া কিছুই করবো না। সরকারের খাইয়া দাইয়া কাম না থাকলেও তারা অকামে বহু কিছু নিয়া ব্যস্ত থাকে।

  9. একটা জিনিস মাথায় ঢুকল না ।
    একটা জিনিস মাথায় ঢুকল না । এইটা কল্পকাহিনী হয় কিভাবে? এইটাও ত ঘটতেছে বাস্তবে । It is not a matter of joke. ‘বিনুদিত’ হওয়ার কোন কারন তো দেখিনা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *