দুর্নীতি স্বজনপ্রীতি চাকরি নিয়ে ভন্ডামি

বাংলাদেশ এমন একটি রাষ্ট্র যার প্রতিটি শিরা উপশিরায় প্রতি রক্তের কনিকায় দূরর্নীতি আর স্বজনপ্রিতি লেগে আছে।এখানে সব নিয়মকে চোখেঁর পলকে অনিয়মে পরিনত করা যায়,আর অনিয়মকে নিয়মে!এখানে ন্যায় আন্যায়,ভাল মন্দের কোন বাছবিচার করা হয় না।সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করাহয় না।যা করাহয় তা আমাদের সাধারণ মানুষের উপর জোড় করে চাপিয়ে দেয়াহয়।এক ভাইয়ের থেকে জানতে পারলাম।
আগামী ২৮ শে আগষ্ট ২০১৫ কৃষি ব্যাংক সিনিয়র অফিসার, পিএসসি এর অধীনে এনবিআর এর এ্যাসিস্ট্যান্ট রেভিনিউ অফিসার, প্রাথমিক স্কুলের

বাংলাদেশ এমন একটি রাষ্ট্র যার প্রতিটি শিরা উপশিরায় প্রতি রক্তের কনিকায় দূরর্নীতি আর স্বজনপ্রিতি লেগে আছে।এখানে সব নিয়মকে চোখেঁর পলকে অনিয়মে পরিনত করা যায়,আর অনিয়মকে নিয়মে!এখানে ন্যায় আন্যায়,ভাল মন্দের কোন বাছবিচার করা হয় না।সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করাহয় না।যা করাহয় তা আমাদের সাধারণ মানুষের উপর জোড় করে চাপিয়ে দেয়াহয়।এক ভাইয়ের থেকে জানতে পারলাম।
আগামী ২৮ শে আগষ্ট ২০১৫ কৃষি ব্যাংক সিনিয়র অফিসার, পিএসসি এর অধীনে এনবিআর এর এ্যাসিস্ট্যান্ট রেভিনিউ অফিসার, প্রাথমিক স্কুলের
শিক্ষক নিয়োগ ও বেসরকারী শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা একই সময়ে অনুষ্ঠিত হবে।এটা কোন নিয়মের মধ্যে পরে?আমরা যায়া বেকার বিশেষ করে শিক্ষিত বেকার,তাদের কষ্টটা কেউ বুঝতে চায় না।ক্লাস ওয়ান থেকেই সরকারকে পরীক্ষার র্ফি দিয়ে আসছি আজ আবধি।এখনো যেন তা থামছে না।এখনো আমাদের কাছ থেকে পরীক্ষার র্ফি ও অনান্য খরচ বাবদ চাকরির নিয়োগ পরীক্ষার জন্য ব্যাংকড্রাফ করতে হয়।যা জোগার করতে গিয়ে অনেকে অনেক কাজ করে বসে।কিন্তু দেখা যায় আমাদের পরীক্ষা যারা নিল আর যারা আমার খাতাটায় নাম্বার দিল,তারাই আমাদের অতিকষ্টের টাকাটার ভাগ পেল,অথচ তারা সবাই সরকারি বেতনের কর্মচারি।আমাদের নিয়োগ পরীক্ষার জন্য তাদের আলাদা বেতন দেয়াহয়!ঐদিন তারা নিজ নিজ কর্মস্থলে উপস্থিত না থেকেও বেতন কিন্তু ঠিকই নিচ্ছেন।কেন এই অবিচার?ফকিন্নির টাকা নিয়ে কেন আপনারা ওনাদের ডাবল বেতন দিচ্ছেন?যাইহোক,যারা উপরের ৪টি পরীক্ষার আংশগ্রহণ করার জন্য আবেদন করেছেন।তাদের প্রত্যেকের কতটাকা করে গচ্চা গেছে একবার হিসেব করেন।প্রত্যেকেই কিন্তু প্রতিটি পরীক্ষায় আংশগ্রহণ করতে আবেদন করেছে।তবে কি দেখা যাচ্ছে কেউই একের অধিক পরীক্ষায় আংশগ্রহণ করতে পারবেনা।যখন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয় তখনি উল্লেখ থাকলেই তো হতো যে,একই তারিখে সকল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।এতেকরে নিজের পছন্দের একটি চাকরির জন্য আবেদন করা যেত।তা না করে কেন এই প্রতারণার ফাদঁ?একবার ভেবে দেখুন তো আপনি নিজে অনেক কষ্টে আবেদন করলেন আর পরীক্ষা দিতে পারলেন না,শুধু একটা পরীক্ষা দিয়েই খান্ত হতেহলো।তখন আপনার কেমন লাগবে?তাছাড়া পরীক্ষা দিলেই যে চাকরি হবে এমন কোন নিয়ম নেই।অনেক সময় দেখা যায় পরীক্ষায় ভালো করলেও চাকরি হয় না।পরীক্ষায় প্রথম হলেও চাকরিটা হাতছাড়া হয়ে যায় দূর্নীতি আর স্বজনপ্রিতির কারনে।এমনও দেখা যায় চাকরির জন্য আবেদন করা হল কিন্তু পরীক্ষার কোন খবরই নাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *