অঃপৃঃদ্রঃ

ছেলেটা অরুণ, যার প্রনোদিত অভিলাষে সিগ্ধ প্রভার রবি মুখ মেলে অবনীপারে।শিক্ষার উচ্চৈঃ পৌছতে মাধ্যমিক জীবনে; তার উল্লাস কিংবা আর্তনাদ জীবনের পাতায় ক্রমান্বয়ে সংযোজিত হচ্ছে।তার ক্ষুদ্র জগৎ মাপতে চাচ্ছে বিশালতার ক্যানভাস।
মোহ,আবেগ, ভালোলাগার সূত্রপাত বোধয় কৌশেরেই।অবর্জনাতেই বীজ ভালো অঙ্কুরিত হয়।অন্যদিকে মেঘ জমতে জমতে পরিস্ফুটন ঘটায় ঝমঝম বৃষ্টি। পাখি চাইলেই তো আর উদগত আকাশের কামানার রং মুছতে পারবে না।বয়সন্ধির বিষন্ন প্রহর ডাক দেয় প্রনয়ের অন্ধ সৌরভের প্রতিশ্রুতি নিতে।এই প্রবঞ্চনার কেও ছুটে মোহে, কেওবা যায় দেহে,কিন্তু পাগলটা ওর প্রতিকৃতি চিত্রার্পিত করেছিল অদৃশ্য হূদয়ে।

ছেলেটা অরুণ, যার প্রনোদিত অভিলাষে সিগ্ধ প্রভার রবি মুখ মেলে অবনীপারে।শিক্ষার উচ্চৈঃ পৌছতে মাধ্যমিক জীবনে; তার উল্লাস কিংবা আর্তনাদ জীবনের পাতায় ক্রমান্বয়ে সংযোজিত হচ্ছে।তার ক্ষুদ্র জগৎ মাপতে চাচ্ছে বিশালতার ক্যানভাস।
মোহ,আবেগ, ভালোলাগার সূত্রপাত বোধয় কৌশেরেই।অবর্জনাতেই বীজ ভালো অঙ্কুরিত হয়।অন্যদিকে মেঘ জমতে জমতে পরিস্ফুটন ঘটায় ঝমঝম বৃষ্টি। পাখি চাইলেই তো আর উদগত আকাশের কামানার রং মুছতে পারবে না।বয়সন্ধির বিষন্ন প্রহর ডাক দেয় প্রনয়ের অন্ধ সৌরভের প্রতিশ্রুতি নিতে।এই প্রবঞ্চনার কেও ছুটে মোহে, কেওবা যায় দেহে,কিন্তু পাগলটা ওর প্রতিকৃতি চিত্রার্পিত করেছিল অদৃশ্য হূদয়ে।
চিত্রায়িত অপ্সরীর সাথে তো সমৃদ্ধ নগরীর বালিকার সাদৃশ্য হতে পারে না।দুজনের মাঝে পারস্পারিক সমন্বয় হলেও অরুণ পৌনঃপুনিক বিদ্ধ হত অন্তস্থলের কালো বুলেটে। বৈরীতাকেই আনন্দমূর্ছনা ভেবে অনুরণিত করতো অন্তঃস্থল।
তীব্র অন্ধকারে অকূল সিন্দুর ঊর্মির প্রবল ঝড় দক্ষ নাবিকেরও হূদস্পন্দন বাড়িয়ে তোলে, দ্বিগ্বিদিক সে খোঁজে ফিরে কোন নক্ষত্রের ক্ষীণপ্রভা।
সবার জন্যই সবকিছু নয়, জাগ্রত কেও নিদ্রার ভান করলে তাকে নিদ্রায়িত রাখাই শ্রেয়।মাধ্যমিক সেই কবে গত হয়েছে… নিরন্তর সঞ্চারনশীল আপন কক্ষপথে আরুণ তার কত্ত আরাধনা করে।আর আরাধনার জন্য প্রয়োজন হয় দূরত্বের।
অরুন এখন;ধ্রুবজ্যোতি,নিরাসক্ত,অবিচল।আলোর রশ্মিতে খুঁজে নিজের প্রতিবিম্ব। সে সুখী আর মৌনতায় সুখ বিলোয় সবার মাঝে।
দৈবতায় যত্নে লিখা একটি পত্র আরাধনার টেপিকে দেওয়ার কথা ছিল,সে কথা রাখানি অরুণ। যার অনুভূতিই নেই তাকে ভাষা ছুড়ে দেওয়া নিষ্ফল।
তবে ভাগ্যক্রমে পত্রটি আমি দেখেছিলাম,তাতে প্রথম পৃষ্ঠায় লিখা ছিল… ‘ অঃপৃঃদ্রঃ’, কিন্তু অপর পৃষ্ঠাটা ছিল উজ্জ্বল সাদা,তাতে আমি কোন দাগ দেখতে পাইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *