আল্ফু থেরাপি

একটু আরামের জন্য রাতের ঘুমের আগে হালকা গা ভিজিয়ে নিলে ভাল হয়।
আল্ফু মিয়াকে দিয়েই উদাহরণটা দেয়া যাক।

গরমে সিদ্ধ হয়ে আল্ফু মিয়া বাথরুমে ঢুকেই দরজাটা বন্ধ করে লুঙ্গির গিঁটটা খুলে দেয় চট করে। মালিক কর্তৃক তালাকপ্রাপ্ত হওয়ার সাথে সাথে লুঙ্গিটি নাচতে নাচতে নীচের দিকে নেমে যায় প্রুৎ করে।
তারপর আল্ফু ঝরণার নীচে গিয়ে দাঁড়ায়।

আমাদের শরীরের কিছু কিছু অংশ উন্মুক্ত থাকে, আর কিছু কিছু আবদ্ধ। আবদ্ধ স্থানগুলো হল বগল, জঙ্ঘা, বাইনদুয়ার ইত্যাদি।
[ আমাদের অঞ্চলে বাড়ীর পিছনের দরজাকে বাইনদুয়ার বলে ]

একটু আরামের জন্য রাতের ঘুমের আগে হালকা গা ভিজিয়ে নিলে ভাল হয়।
আল্ফু মিয়াকে দিয়েই উদাহরণটা দেয়া যাক।

গরমে সিদ্ধ হয়ে আল্ফু মিয়া বাথরুমে ঢুকেই দরজাটা বন্ধ করে লুঙ্গির গিঁটটা খুলে দেয় চট করে। মালিক কর্তৃক তালাকপ্রাপ্ত হওয়ার সাথে সাথে লুঙ্গিটি নাচতে নাচতে নীচের দিকে নেমে যায় প্রুৎ করে।
তারপর আল্ফু ঝরণার নীচে গিয়ে দাঁড়ায়।

আমাদের শরীরের কিছু কিছু অংশ উন্মুক্ত থাকে, আর কিছু কিছু আবদ্ধ। আবদ্ধ স্থানগুলো হল বগল, জঙ্ঘা, বাইনদুয়ার ইত্যাদি।
[ আমাদের অঞ্চলে বাড়ীর পিছনের দরজাকে বাইনদুয়ার বলে ]

স্থানগুলোতে আলো বাতাস না লাগার কারণে থোকা থোকা অস্বস্তি জমে থাকে। সেই অস্বস্তি দূর করতেই আল্ফু মিয়া সেই সব স্থানে সাবান ঘষে ভালভাবে ধুয়ে নেয়। অনেক্ষণ ধরে পানি ঢেলে জায়গা গুলোকে ঠাণ্ডা করে তোলে।

এই আবদ্ধ স্থান গুলোর মধ্যে বাইনদুয়ার হচ্ছে অন্যতম, যেখান থেকে গরম ভাপ বেশি বের হয়।
অতপরঃ ঝরণার দিকে পিছন ফিরে দাঁড়ায় আল্ফু। কিঞ্চিত উপুর হয়ে দুয়ার উন্মুক্ত করে তোলে, যাতে পানির ধারা সেখানে গিয়ে পড়তে পারে সহজেই।
তারপর আল্ফু এক হাত পিছনে নিয়ে চার আঙ্গুল একত্র করে পানিগুলো ঠাস-ঠাস শব্দে দুয়ারের মুখে ভালভাবে লাগাতে থাকে।

সবশেষে আল্ফু মূল কাজে মনোযোগ দেয়।
রুমালের মত একটি কাপড়ে অল্প কিছু বরফকুচি নিয়ে ছোট্ট একটি পোটলা বানায়।
তারপর সে উয়া মেরে বসে।
[ আমাদের অঞ্চলে ত্যাগাসনে বসাকে উয়া মেরে বসা বলে ]
এরপর সেই পোটলাটাকে দুয়ারের মুখে লাগিয়ে দু’চোখ মুদে ঠাণ্ডা সেঁক দেয়। এতে তার বড়ই আরাম হয়।
এত এত আরামের সংস্পর্শে শরীর যখন ঠাণ্ডা হয়, তখন ঘুমতো ভাল হবেই।

তাহলে আর দেরী কেন, আজ রাতে ঘুমুতে যাবার আগেই না হয় টেরাই করা যাক আল্ফু থেরাপি।

২ thoughts on “আল্ফু থেরাপি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *