তোমার সম্মান রক্ষার দায়িত্ব তোমাকেই নিতে হবে, সতরাং কৌশলী হও ।কুকুররে হাত থেকে বাঁচতে / বাঁচাতে প্রয়োজনে কুকুর হও ।

২০১১ সালের ঘটনা , বাসের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছি ফার্মগেট ,গন্তব্য খিলক্ষেত , পাশে আরো দুজন স্কুল ড্রেস পড়া মেয়ে দাঁড়ানো , তাদের গন্তব্য একই রোডে , ,একেরপর এক বাস আসছে আর চলে যাচ্ছে ,প্রচন্ড ভিড়ের কারনে উঠতে পারছিনা , যথাসময়ে গন্তব্যে ফিরতে নাপারলে অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে , যে করেই হোক যথাসময়ে পৌছাতেই হবে , সি এন জি করে যাবার সামর্থ নেই , একটা লোকাল বাসে ওঠার চেষ্টা করছি , স্কুল ড্রেস পড়া মেয়ে দুজনের একজন বাসের দরজার রড ধরে উঠার চেষ্টা করছে তার পিছনে কয়েকজন পুরুষ ,আমি আর অপর স্কুল ড্রেস পড়া মেয়েটি । বাসে ওঠার জন্য যুদ্ধ চলছে রীতিমত , পিঠে কারো হাতের ইচ্ছাকৃত স্পর্শ টের পাচ্ছি , মুহুর্তের মধ্যে ব্রায়ের হুক খুলে গেছে মনে হলো , কিন্তু ঐমুহুর্তে পিছন ফিরে প্রতিহত করার মত পরিস্থিতিতে আমি নেই , শরীরে চরম অস্বস্থি , আর ভিতরে অপমানের আগুনে জ্বলতে থাকি ঠিক এমন মুহুর্তে দেখতে পাই আমার সামনের মেয়েটির শরীরেও চলছে কুকুরের বিচরন ,মেয়েটি নাপারছে বাস থেকে নেমে যেতে নাপারছে বাসের ভিতরে ঢুকতে , আমিও সেই একই অবস্থায়, তখন আর বাসে ওঠাটা জরুরি মনে হচ্ছিলনা , জরুরি মনে হচ্ছিল কুকুরকে প্রতিহত করা , উচ্চতায় ছোট হওয়ার কারনে জানোয়ারটার কলার নাগাল পাচ্ছিলাম না ,তাছাড়া এত ভিড়ের মাঝে মারামারি করে খুব একটা সুবিধা করতে পারবো বলেও মনে হচ্ছিলনা তাই বাধ্য হয়ে তার পিঠে কামড় বসালাম , দাঁত ছাড়া সেই মুহুর্তে আমার কাছে কোন অস্ত্র ছিলনা তাই কুকুরের কামড় থেকে ছোট্ট মেয়েটাকে রক্ষা করতে আমাকেও কুকুর হয়ে ওঠতে হয়েছিল । বাস ছেড়ে দিল , জানোয়ারটা নেমে গেল বাস থেকে সাথে আমি আর অপর স্কুল পড়ুয়া মেয়েটিও , মুহুর্তের মধ্যে জানুয়ারটাকে হারিয়ে ফেললাম , মনে একটা আফসোস রয়ে গেল তারে গণধুলাই দিতে পারিনি বলে ,শেষ পর্যন্ত স্কুল পড়ুয়া মেয়েটা বাসায় পৌঁছে দিতে হলো আমাকেই , অন্যদিকে খুব কঠিন মাশুল গুনতে হয়েছিল সেদিন দেড়িতে গন্তব্যে পৌছানোর জন্য ।

এখন সেই কামড়ে দেয়ার কথা মনে পড়লেই হাসি পায়
smile emoticon

তবে সেই জন্য নিজেকে অপরাধী মনে হয়নি কোনদিন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *