লাভ জার্নি।

অতসীর মন ভালো নেই। মাঝে মাঝে অতসীর এমন হয় । যেদিন তার অসম্ভব আনন্দ লাগে সেদিন তার চেহারা কেমন যেন মন মরা হয়ে যায় । আচ্ছা খুব ভালোর উপরে কি কিছু আছে থাকলে তা ।
আজ কৌশিক আসবে তাদের বাসায় । কৌশিকের সাথে অতসীর সম্পর্ক পাঁচবছরের । আজ কৌশিকের আব্বু আম্মু আসবে তাদের বিয়ে নিয়ে কথা বলার জন্য । সাথে কৌশিক অ আসবে । কৌশিক নতুন চাকরি পেয়েছে, চাকরি পেলে ভীতু ছেলেরা ও চালাক হয়ে যায় ।
হঠাৎ আসা ঝড়ের মত কৌশিক এসেছিল অতসীর জীবনে । অতসী একদিন ফুচকা খেয়ে পানি খুজছিল ।
ধরুন বলে কেউ একজন এক বোতল পানি বাড়িয়ে দিল । পানির বোতল দেখেই অতসী খাওয়া শুরু করল ।
ঝালটা বুঝি একটু বেশিই ছিল ।

অতসীর মন ভালো নেই। মাঝে মাঝে অতসীর এমন হয় । যেদিন তার অসম্ভব আনন্দ লাগে সেদিন তার চেহারা কেমন যেন মন মরা হয়ে যায় । আচ্ছা খুব ভালোর উপরে কি কিছু আছে থাকলে তা ।
আজ কৌশিক আসবে তাদের বাসায় । কৌশিকের সাথে অতসীর সম্পর্ক পাঁচবছরের । আজ কৌশিকের আব্বু আম্মু আসবে তাদের বিয়ে নিয়ে কথা বলার জন্য । সাথে কৌশিক অ আসবে । কৌশিক নতুন চাকরি পেয়েছে, চাকরি পেলে ভীতু ছেলেরা ও চালাক হয়ে যায় ।
হঠাৎ আসা ঝড়ের মত কৌশিক এসেছিল অতসীর জীবনে । অতসী একদিন ফুচকা খেয়ে পানি খুজছিল ।
ধরুন বলে কেউ একজন এক বোতল পানি বাড়িয়ে দিল । পানির বোতল দেখেই অতসী খাওয়া শুরু করল ।
ঝালটা বুঝি একটু বেশিই ছিল ।
অতসী এইবার ছেলেটির দিকে তাকাল । পরিচিত মনে হচ্ছে, কোথায় যেন দেখেছিল । জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকাতেই সে বলল আমি কৌশিক, আপনার পিছু পিছু ঘুরি ।
কথাটা বলেই সেদিন কৌশিক চলে গেল । অতসীর মাথায় সেদিন কথাটা আটকে গিয়েছিল । কথাটা যতবার মনে হয় অতসীর ততবার হাসি পায় ।
কৌশিককে কয়েকদিন ক্যাম্পাসে দেখা যায়নি, না দেখাতেই যেন ছেলেটির প্রতি অতসীর আগ্রহ বেড়ে যায় । কে জানত এই আগ্রহ একদিন ভয়ানক রূপ নিবে ।
ভয়ানক রূপ বেশিদিন স্থায়ী হয়নি ভয়ানক রূপ ভয়ানক ভালোবাসায় রূপান্তরিত হয়েছে ।
হঠাৎ একদিন কৌশিক এসে হাতে একটা কাগজ গুজিয়ে দেয় । কিছু বলার আগেই হাওয়া । খুলে দেখি ভিতরে লিখা “এই তুমি এমন কেন” । এইটা কি প্রেমপত্র টাইপের কিছু কিনা বুঝতে পারছিনা ।
ছেলেটি অদ্ভুত অদ্ভুত সব চিঠি দেয় । এইরকম এক বাক্যের কেউ চিঠি লিখে নাকি । পড়ার আগেই শেষ হয়ে যায় । এমন চিঠি পড়লে দুঃখ হয়, দুঃখ বেশিক্ষণ পুষে রাখলে অভিমান হয় । অতসী তখন গভীর অভিমানে কিছুক্ষন কাঁদল । মেয়েরা যেকোনো সময় কেঁদে দিতে পারে । বৃষ্টি আসার সতর্ক সংকেত থাকলে ও মেয়েদের কেঁদে ফেলার কোন সংকেত নেই ।
অতসী অভিমানে কাদলেও চিঠি ছিঁড়ে ফেলে দেয় নাই । চিঠি ছিঁড়ে বোকারা । বুদ্ধিমানরা প্রেমের চিঠি বুকের সাথে জড়িয়ে ধরে বড় বড় নিঃশ্বাস ফেলে । এক সময় বড় বড় নিঃশ্বাস নেওয়া শেষ হল শুরু হল দীর্ঘমেয়াদী আরেক অধ্যায় …………… লাভ জার্নি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *