মা

আপনার মনে আছে আম্মা,আমি কি পরিমান আপনার নেউটা ছিলাম?আপনার আঁচল ধরে ঘুরতাম সব সময়।আপনি বাথরুমে গেলে আমাকে ধমক দিয়ে বলতেন, ছাড় একটু,আমি বাথরুম থেকে আসি।তখন আমি লজ্জা পেয়ে যেতাম।এটা সাধারনত ঘটত কোথাও বেড়াতে গেলে।

আপনার মনে আছে আম্মা,আমি কি পরিমান আপনার নেউটা ছিলাম?আপনার আঁচল ধরে ঘুরতাম সব সময়।আপনি বাথরুমে গেলে আমাকে ধমক দিয়ে বলতেন, ছাড় একটু,আমি বাথরুম থেকে আসি।তখন আমি লজ্জা পেয়ে যেতাম।এটা সাধারনত ঘটত কোথাও বেড়াতে গেলে।
আর একটু বড় যখন হলাম তখন আরও বেশি করে আপনাকে যন্ত্রণা দিতাম।আমার নানা রকমের বায়না,যার অনেক গুলোই পূরণ করা সম্ভব হত না আপনার।আমি বুঝতে চাইতাম না।কি পরিমান যন্ত্রণা দিতাম আপনাকে এখন বুঝি। আমাকে না দিতে পারার যন্ত্রণা আপনে একা ভোগ করতেন আমি তার কিছুই বুঝতাম না।তার পরেও,এত জ্বালাতাম, তার পরেও আমার মনে পরে না কোন দিন আপনে আমাকে একটা থাপ্পর বা চড় মেরেছেন।আপনার হাতের মার আমি কোন দিনই খাইনি।বড় আদরে বড় করেছেন আমাকে।আপনার আদরের ছেলে এখন কেমন আছে আপনার জানতে ইচ্ছা করে না?

বই পড়ার আমার খুব নেশা।আপনে তা খুব ভাল ভাবেই জানতেন।সারা দিন বই নিয়ে বসে থাকলে আপনি মাঝে মাঝে খুব বিরক্ত হতেন।বলতেন,একটু ঘর থেকে বের হ,দুনিয়াটা দেখ! আমি খুব একটা পাত্তা দিতাম না।খাওয়ার সময় আবার ধমক দিতেন,খায়া নে,তারপর আবার পড়িস।মা,এখন ছুটির দিন গুলাতে সকালে চোখ খুলে মুখের সামনে বই ধরি,মুখ ধুয়ার খবর নাই,সকালের নাস্তার খবর নাই,দুপুরের খাবারেরও কোন ঠিক থাকে না,দিন গড়িয়ে বিকাল হয়ে যায় মা,কেউ একজন বলে না খাবারটা খেয়ে নে,তারপর আবার পড়িস!।

অনেক বড় পরিবার আমাদের।আমরা সাত ভাইবোন কে একা আপনে বড় করেছেন।আব্বা তো আব্বার মতই।মনে হয় খুব একটা খারাপ মানুষ হই নাই আমরা।বড় পরিবারের কারনে আশৈশব খুব কষ্টে কাটিয়েছি আমরা সব গুলা ভাইবোন।আমাদের যেটুকু সুখ,যেটুকু আনন্দ কপালে জুটত তা আপনার কারনে।আমাদের শৈশব তাই রঙ্গিন হয়ে আছে।কষ্টের কথা মনে পরে না আর।কি দিয়ে কি বানায় দিতেন,আর সবাই হাঁ করে দেখত আমাদের।ওদের আম্মারা মনে হয় পারত না এমন করে।মা,আমরা সবাই এখন চাকরি করি,ভাল আছি,শুধু তা দেখার জন্য আপনে নাই।

যে আমি আপনাকে ছাড়া থাকতে পারি নাই কক্ষনো,যার কারনে আমার খুব একটা বেড়ানো হত না,আপনে কোথাও আমাকে না নিয়ে একা গেলে আমার সমস্ত দুনিয়া অন্ধকার হয়ে আসত,সেই আমি এখন ঢাকা শহরে একা একা থাকি!!!আমার ভীষণ ভয় লাগে মা,কবে আমার ভয় কাটবে?

আমি জীবনে বিয়ে করব না,আপনাকে আমি বলেছিলাম,জবাবে আপনি আমাকে বলেছিলেন,কোন সমসসা নাই,কিন্তু তোর সাথে তাহলে আমিও থাকব।আমি বললাম কেন?আপনি বললেন,যাতে তুই ভণ্ডামি না করতে পারস।আমি বছিলাম আচ্ছা।কিন্তু আমি একটু ভয়ই পেয়েছিলাম তখন,আম্মা কি আসলেই আমার সাথে সারা জীবন থাকবে নাকি!!!মাগো,এখন আমার কোন দ্বিধা নাই,আমার মৃত্যু পর্যন্ত আমি আপনাকে নিয়ে থাকতে চাই।থাকা তো পরে,একবার যদি কথা বলতে পারতাম মা!!!

আজকে নাকি মা দিবস!!! বলেন দেখি,মায়ের আবার দিবস হয় নাকি!!!উল্টা এরা জানে না,এই দিবসটা আমাকে কি পরিমান কষ্ট দেয়।চোখের সামনে সবাই মাকে ফোন দিচ্ছে,মাকে উইশ করছে,এরা বুঝে না,এদের প্রতিটা কার্যকলাপ আমাকে কতখানি কষ্ট দেয়।কিন্তু ওদেরও তো দোষ নাই মা,ওরা তো নিজেদের মা কে শুভেচ্ছা জানাবেই,আসলে আমারি কপাল খারাপ।আমি আপনাকে হারিয়েছি।আমি অনেক স্বার্থপর হয়ে গেছি মা,আমার পক্ষে আর এ জীবনে মা দিবসের শুভেচ্ছা জানান সম্ভব না।আপনি ভাল থাকুন আম্মা,আপনি ভাল থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *