কুচিন্তা ১০

উরপল শুভ্ররে কেন দেখতে পারিনা নমুনা দেই –

উরপল- বৃষ্টিতে দ্বিতীয় ম্যাচ ভেসে যাওয়ায় বাংলাদেশের সিরিজ ড্র করার অপ্রত্যাশিত সুযোগ। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে অধিনায়কের কথাই তো শুনতে চাইবে সবাই। অথচ সংবাদ সম্মেলনে এলেন কিনা কোচ শেন জার্গেনসেন ও আবদুর রাজ্জাক!


উরপল শুভ্ররে কেন দেখতে পারিনা নমুনা দেই –

উরপল- বৃষ্টিতে দ্বিতীয় ম্যাচ ভেসে যাওয়ায় বাংলাদেশের সিরিজ ড্র করার অপ্রত্যাশিত সুযোগ। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে অধিনায়কের কথাই তো শুনতে চাইবে সবাই। অথচ সংবাদ সম্মেলনে এলেন কিনা কোচ শেন জার্গেনসেন ও আবদুর রাজ্জাক!

মন্তব্য – ”সিরিজ ড্র করার অপ্রত্যাশিত সুযোগ” সব সময় দাদাগিরি মারানি ঠিকনা উরপলদা । বাংলাদেশ তমার মত ছেছড়া না।তোমার কথায় বাংলাদেশ সিরিজ ড্র করার লেগা বৃষ্টির সুবিধা লইতে চায়? ‘এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে’ আবার কি?হ দাদা, তুমি কইলে বলদার গোবরও গুরুত্বপূর্ণ।বাংলাদেশের সামনে বৃষ্টির সুযোগে ইতিহাস গড়ার সুযোগ,এই হেডলাইনডা মাঠে মারা গেলু তাই না !বৃষ্টি ছাড়া বাংলাদেশ আবার সিরিজ জিতে নাকি !বাংলাদেশের সৌভাগ্য যে মুশফিকের মত ক্যাপ্টেন আছে।তোমার মত ছেছড়া হইলে সিরিজ ড্রয়ের খুশির চোটে স্রিলংকার পাউ চাটত আর উলু ধ্বনি করত ।

উরপল-‘অধিনায়কত্ব পাওয়ার জন্য অভিনন্দন’—এই প্রতিবেদকের রসিকতায় রাজ্জাক বিব্রত হাসি দিয়ে বললেন, ‘না, না, আমি অধিনায়ক নই।’ সেটি তো সবারই জানা। তা যিনি অধিনায়ক, সেই মুশফিকুর রহিম কোথায়?মুশফিকুর তখন টিম হোটেলের সামনে বাসে বসে। বাংলাদেশ দল অনুশীলনে যাবে, তিনি সংবাদ সম্মেলন শেষের অপেক্ষায়।
মন্তব্য-রাজিথ ফার্নান্ডো ভুলটা ধরিয়ে দিলেন,এই সফরের এমওইউতে এটা বাধ্যতামূলক করা আছে। পরিষ্কার বলা আছে, ম্যাচের আগের দিনের সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ককে আসতে হবে।

মন্তব্য -শালা,খা বেশি কইরা কচ্ছপ খা আর প্রতিবেদকের রসিকতার জবাব না দিয়া উল্টা প্যাপারে ছা্প।সব প্লেয়ার ইঞ্জুরিতে আর বৃষ্টিতে এক ম্যাচ শেষ,মাঠের ঘাস আর ফ্লডলাইটের কথা তো বাদ-ই দিলাম অতঃপর তুমি চাহ সব তোমার কোলে উইঠা বয়া থাক!আর ম্যাচের আগে অধিনায়করে থাকতেই হবে,মামাবাড়ির আবদার ! ইংল্যান্ড/অস্ট্রেলিয়া হইলে উস্টাইত।মুশফিকের উচিত ছিল তমারে আইন্যা কোন গাছের লগে তোমারে বাইন্ধা থোয়া ।

উরপল-অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ঠিকই বুঝলেন, অধিনায়কত্বের অনেক দায়িত্বের মধ্যে সংবাদমাধ্যম সামলানোও একটি। মুশফিকুর যা বুঝলেন না।
মুশফিকুর রহিম যা-ই করেন, মনপ্রাণ ঢেলে করেন। নিজের খেলা নিয়ে সব সময়ই খুব সিরিয়াস। ঐচ্ছিক অনুশীলনে একজন গেলেও দেখা যাবে সেটি তিনি। অধিনায়ক হওয়ার পর পুরো দল নিয়ে চিন্তাভাবনাতেও একই রকম তীব্রতার ছাপ। দলের বাকি খেলোয়াড়দের কাছে এখানে তিনি রীতিমতো ‘রোল মডেল’। কিন্তু তাঁকে কে বোঝাবে, শুধু মাঠেই নয়, অধিনায়কের মাঠের বাইরেও অনেক দায়িত্ব থাকে। এই সফরে সেটি তিনি পুরোপুরি পালন করছেন কি না, এটা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

মন্তব্য-এঞ্জেলো ম্যাথুস বোঝেরে গরু,বুঝসনা তুই।’তীব্রতার ছাপ’ আছে দেইখাই দুইশ করে আর তর মত রাস্তার পুলা দেশ বিদেশ ঘুরে!আর মাঠের বাইরের দায়িত্তে তমার মত মাল তো আছেই ~!ঘন ঘন প্রশ্ন তুল্বা। কুন্দিন যে তমারে মুশফিক ব্যাট দিয়া ধাওয়ান দেয়! এই মহৎ কামেরও তুমি খুঁত ধরবা ।মুশফিক না,তোমার মত দালাল যাওয়ায় আমরা আহত হইলাম ।

তোমার আজন্ম সলজ্জ সাধ একটু শেবাগের গীত গাই । তমার সেই ‘পাষাণ একটা’ কবতের নাউক যে শাবগ তা জানি ।সে তোমায় রিফিউজ করেছিল ।কেনরে মামা বাইরের পাখি লইয়া খাবলা-খাব্লি ! দেশে সাকা আছে,আলাল আছে,জলিল আছে;তারা অনাহারে আছে।তা করবা কেন ? খালি বাইরের পাখির ধান্ধা ! ইদানিং কুন এক ভেনুগোপালের সাথে অবৈধ মেলামেশা ! কে এই পালের গোদা গোপাল? লংকানরা সাধে তোমারে সাধে ”ইয়ালা পূটুওয়ালা” নিকে ডাকে না ।হলুদ পুটুর বেবসা ছাড় ।

এই উরপল শুভ্র যতদিন বাংলাদেশ টিমের লগে থাকব কুফা বাংলাদেশরে ছাড়ব না । একটা জলজ্যান্ত অভিশাপ । একমাত্র হ্যায় ছাড়া আর কেউ বৃষ্টিরে সমর্থন দেয় না সারাদিন কটকটা রইদ গেল আর এখন বৃষ্টি !বৃষ্টি কি বলদার ইয়া দিয়া আহে !এই উরপল তন্ত্র-মন্ত্র পইড়া বৃষ্টি নামাইছে । সে একটি নষ্ট তান্ত্রিক ।

উরপলের মতই আরেক কুফা ডাকওয়ার্থ লুইছ । পয়লা নম্বরের লুইস এই ডাকওয়ার্থ লুইস । প্রচলিত আছে সে সন্ধ্যা হওয়ার আগেই ঘরে ফিরত ! এহেন লুইসের সাথে আঁতাত করল আইসিসির কতিপয় লুইস । আইসিসির এই পদ্ধতি অবশ্যই গণতান্ত্রিক নহে !সাহস থাকলে আইসিসি এই পদ্ধতি লইয়া একটা দর্শক ভোটের আয়োজন করুক।বিপুল ভোটে পরাজিত হইবেক।তবে আমি কোন লুইস নই কারন বৃষ্টির মায়রে আমি খালাম্মা ডাকি !

যাক আজকের ম্যাচে শ্রীলংকার মোয়া বলে এই যে ব্যাটসম্যানরা আউট হইল ব্যাপারটা ইতিবাচক । কয়েকটা আউট দিয়া আমরা প্রমাণ করলাম ব্যাড ওয়েদারের সুবিধা আমরা প্রত্যাখ্যান করলাম ।আর বৃষ্টি আপা ছিনিমিনি না খেল্লে সিরিজটা জিত্তাম !

বাংলাদেশে কলার উচাইন্যা মস্তান একটাই আছে নাসির । দেড় বছর যাবৎ বাংকাদেশের সবচে সফল ব্যাটসম্যান সে। নাসিরের নামে বর্তমান রটনা বেশ হাস্যকর। বর্ষার সাথে বরং সাকা/রিজভির ফোট্টুয়েন্টি বেশি বিশ্বাসযোগ্য ।

ছাগুর কাজ নাকি ? বাংলাদেশে এরাই একমাত্র জিনিশ যারা ঠিকমত বাংলা লেখতে পারেনা এবং এমন সব গুঁজব ছড়ায় যা সুস্থ মাইনসের বিবেকে কুলায় না কিন্তু তবু তারা সফল হইয়া বুঝায় দেয় এই দেশে আসলে ছাগুই ভাত পায়।
:পার্টি: :পার্টি: :পার্টি:

৩ thoughts on “কুচিন্তা ১০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *