মা তুমি ফিরে আসো

উঠোন পেরিয়ে দু’পা সামনে এগুতে গেলে ভাবি
এই বুঝি মা বলছেন’ “খোকা একটু সাবধানে”
এখনো মাঝরাতে ঘুম ভেঙ্গে যায়,
নিরাশ্রয় দু’হাত পাগলের মতো তোমার বুকের ওম খোঁজে,
দুরন্ত শৈশবে যেখানে লুকোনো ছিলো আমার সমস্ত ব্যথার উপশম ।
নিজেকে বড় অসহায় আর অনাথ মনে হয়,
বুকের ভেতর অজান্তেই ডুকরে কেঁদে ওঠে পুরানের পাখি,
চোখের নোনতা জলে বালিশ ভিঁজে যায় ।
আমায় যতবার তোমার স্নেহের আঁচলে বাঁধতে চেয়েছ,
ততবার আমি পালিয়েছি দুরত্বের কপট আহ্বানে ।
বুঝিনি এই দুরত্বের দৌরাত্ব একদিন কতখানি পোড়াবে আমাকে ।
ভীষন অপরাধবোধে ভেতরটা কুকড়ে আসে ।
নিজেকে ক্ষমা করতে পারিনা মা, ক্ষমা করতে পারিনা ।
মনে পড়ে সেই রাত করে বাড়ি ফেরা,

উঠোন পেরিয়ে দু’পা সামনে এগুতে গেলে ভাবি
এই বুঝি মা বলছেন’ “খোকা একটু সাবধানে”
এখনো মাঝরাতে ঘুম ভেঙ্গে যায়,
নিরাশ্রয় দু’হাত পাগলের মতো তোমার বুকের ওম খোঁজে,
দুরন্ত শৈশবে যেখানে লুকোনো ছিলো আমার সমস্ত ব্যথার উপশম ।
নিজেকে বড় অসহায় আর অনাথ মনে হয়,
বুকের ভেতর অজান্তেই ডুকরে কেঁদে ওঠে পুরানের পাখি,
চোখের নোনতা জলে বালিশ ভিঁজে যায় ।
আমায় যতবার তোমার স্নেহের আঁচলে বাঁধতে চেয়েছ,
ততবার আমি পালিয়েছি দুরত্বের কপট আহ্বানে ।
বুঝিনি এই দুরত্বের দৌরাত্ব একদিন কতখানি পোড়াবে আমাকে ।
ভীষন অপরাধবোধে ভেতরটা কুকড়ে আসে ।
নিজেকে ক্ষমা করতে পারিনা মা, ক্ষমা করতে পারিনা ।
মনে পড়ে সেই রাত করে বাড়ি ফেরা,
ক্লান্ত পক্ষিমাতার মতো আমার জন্য তোমার ব্যাকুল প্রতিক্ষা ।
দু:স্বপ্ন থেকে জেগে উঠে আমার কপালে তোমার স্নেহের স্পর্শ ।
এখন আর প্রতিক্ষায় থাকেনা এক জোড়া ব্যাকুল চোখ,
দু:স্বপ্ন থেকে জেগে উঠলে কেউ বলেনা
“খোকা, ভয় পাসনে এইতো আমি তোর পাশেই আছি ।”
মাগো, শুধু একটিবারের জন্য ফিরে এসো ।
দ্যাখো তোমার সেই দুরন্ত ছেলে আজ কতো বড় গেছে।
দেখে যাও তোমার জন্য আমার কতগুলো নির্ঘুম রাত ভেসে যাচ্ছে কান্নার জলশ্বাসে ।
ফিরে এসো মা,শৈশবে যে চাঁদের বুড়ির গল্প শুনিয়ে আমায় ঘুম পাড়াতে,
শুধু একটিবারের জন্য আবার সেই গল্প শোনাও….
আমি আবার তোমার কোলে ঘুমোতে যাবো,
ঘুমোতে যাবো ।।

**** (বিঃদ্রঃ নিজের লেখা না…………… শহরতলীর কাছ থেকে ধার করা)****

১ thought on “মা তুমি ফিরে আসো

Leave a Reply to যুক্তিযুক্ত Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *