নীরা

আজ নীরার মন খারাপ |কেন সে জানে না |এখন মাঝে মাঝেই এক অজানা কষ্টে তার মন খারাপ হয় |এমন তো ছিলনা সে |সারা দিন যে মেয়েটার হৈচৈ এ বাড়ি সরগরম থাকতো কোনো কারণ ছাড়াই সে হঠাত এত পরিবর্তিত হয়ে গেল |
বাহিরে গুরি গুরি বৃষ্টি হচ্ছে |অনেক দিনের ইচ্ছে নীরার ঝুম বৃষ্টিতে ভিজবে সে | মনে হয় উপরওয়ালা তার কথা মঞ্জুর করেছে আজ |হঠাৎই ঝুম ঝুম করে বৃষ্টি শুরু হলো |
নীরা পায়ে নুপুর পড়ে আলতা দিয়ে ধীর পায়ে এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক নববধুর মত | সে জানে এই আলতা ধুয়ে যাবে প্রথম বৃষ্টির পানিতে |তবুও সে আলতা পরেছে | সিড়ি ভেঙ্গে ছাদের দিকে এগোয় নীরা |

আজ নীরার মন খারাপ |কেন সে জানে না |এখন মাঝে মাঝেই এক অজানা কষ্টে তার মন খারাপ হয় |এমন তো ছিলনা সে |সারা দিন যে মেয়েটার হৈচৈ এ বাড়ি সরগরম থাকতো কোনো কারণ ছাড়াই সে হঠাত এত পরিবর্তিত হয়ে গেল |
বাহিরে গুরি গুরি বৃষ্টি হচ্ছে |অনেক দিনের ইচ্ছে নীরার ঝুম বৃষ্টিতে ভিজবে সে | মনে হয় উপরওয়ালা তার কথা মঞ্জুর করেছে আজ |হঠাৎই ঝুম ঝুম করে বৃষ্টি শুরু হলো |
নীরা পায়ে নুপুর পড়ে আলতা দিয়ে ধীর পায়ে এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক নববধুর মত | সে জানে এই আলতা ধুয়ে যাবে প্রথম বৃষ্টির পানিতে |তবুও সে আলতা পরেছে | সিড়ি ভেঙ্গে ছাদের দিকে এগোয় নীরা |
ছাদে যেতেই বৃষ্টি যেন আপন করে নিয়েছে তাকে |চোখ বন্ধ করে ভিজছে নীরা |অনুভব করছে বৃষ্টির প্রতিটি ফোটা |ছোট ফোটা বড় ফোটা | চোখ খুলে দেখে নীরা রক্ত লাল আলতা ধুয়ে যাচ্ছে পানিতে |
নীরা কাদছে |বৃষ্টির পানির সাথে তার চোখের পানি এক হয়ে গেছে |হয়তো বুকের ভেতর চাপা অজানা কষ্ট গুলো প্রকাশ করার এই একটাই রাস্তা আছে তার কাছে | কি অদ্ভুত নীরার কান্না বোঝা যাচ্ছেনা |
চোখের পানির রং হয়না কেন ?যদি বিভিন্ন রং থাকত নীল হলুদ কিংবা সবুজ |একেক কষ্টের জন্য একেক রং |তাহলে হয়তো বোঝা যেত নীরার কষ্টের রং | নিচ থেকে নীরাকে দেখলেন আনোয়ার সাহেব |হা নীরার বাবা |মেয়েকে দেখে আজ তারও হঠাত ভিজতে ইচ্ছে করছে |ছাতাটা বন্ধ করে গেটের সামনে দাড়িয়ে ভিজছেন তিনিও | কি অদ্ভুত বাবা ও মেয়ে ভিজছে |একই সময় একই জায়গায় |
সব কিছুই দেখলেন জোস্না বেগম |সব দেখে তার মুখে এক অতৃপ্তির হাসি ও বুকে জমানো দীর্ঘশ্বাস |থাকনা ভিজুক আজ ওরা মন ভরে ভিজুক |আজ তিনি বারণ করবেননা |

১ thought on “নীরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *