আসুন, বাঙলা মায়ের দুঃখী সন্তানদের পাশে দাঁড়াই




সাম্প্রতিক জামাত শিবিরের সাম্প্রদায়িক হামলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জান-মালের প্রভূত ক্ষতি হয়েছে। এই ভূখণ্ডে ১৯৭১ যেন ফিরে এসেছে ২০১৩ সালে, সেই একই প্রকারে, একই শক্তির আস্ফালন হয়ে। শহরের নিশ্চিন্তপুরে বসে সে মাতন্ড অনুভব করা কোনভাবেই সহজ না, ঠিক যেভাবে সম্ভব না খোলা আকাশের নীচে শুয়ে থাকা একজনের অনুভুতি নরম বিছানায় শরীর এলিয়ে দিয়ে অনুভব করা। প্রাণভয়ে ভীত একজন মানুষের নিঃশ্বাসের আর্তনাদ আমাদের কানে পৌছায়নি, একটুকরা কাগজের লেখা হরফে আমরা কিছুটা অনুভব করি, এটুকুই। কত পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেল, কত পরিবার আজ ক্ষুধার্ত, সে খবর কেই বা রাখে, রাখার প্রয়োজনীয়তাও বা কি। তারপরেও কিছু মানুষের মধ্যে আর্তের আহাজারি শত-সহস্র মাইল দূরে থেকেও পৌঁছায়।

ব্যাক্তিগত জীবনে আমি একটা আর্থিক এবং সামাজিকভাবে সুপ্রতিষ্ঠিত পরিবারের সন্তান। আমার ঘর যদি কখনো এভাবে কেউ আসে পুড়িয়ে দেয় তাহলে হয়ত অনেক স্মৃতি পুড়ে যাবে, তবে খোলা আকাশের নীচে আশ্রয় নিতে হবে না। পোড়া ঘরে নতুনের সজীবতা লাগতে বড়জোর কিছুদিন লাগতে পারে, এর বেশী কিছু নয়। আমি দুঃস্বপ্নে কল্পনাও করতে পারি না, আমার বোন খোলা আকাশের নীচে ঘুমাচ্ছে। আমার প্রানপ্রিয় ভাগ্নে ঠাণ্ডা বাতাসের মধ্যে একখন্ড পাতলা কাপড় জড়িয়ে ভোর রাতে মাঝে মাঝে কেঁপে উঠছে। না খেয়ে থাকার যাতনা- সে তো আমার বোধের বাইরে। আমার ছোট ভাই যে কিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে, তাকে নিয়ে আমার চিন্তার কোন শেষ নেই। তার খাওয়া হয়েছে কিনা, এমনকি হাঁটতে গিয়ে হোঁচট খেল কিনা সেটাও আমার বড় চিন্তার বিষয়। আহত হয়ে বিনা চিকিৎসায় সে কোথাও যন্ত্রনায় অস্ফুটে কাতরাবে সে দৃশ্য দেখার আগে আমি মৃত্যু কামনা করি।

প্রিয় বন্ধুরা, যার যার অবস্থান থেকে আমাদের অনেকের জীবনটা প্রায় এরকমই। আমি যখন মিলাতে যাই, আমার জীবনের সঙ্গে এমন কোন ধ্বংসযজ্ঞকে, চেতনা অবশ হয়ে আসে। নিজের পরিবারকে তাদের জায়গায় কল্পনায় বসিয়ে চিন্তা করলে শিউরে উঠি, কোনমতে পালিয়ে বাস্তবে ফিরে আসি। কিন্তু সত্য এটাই আমাদের দেশে এই মুহুর্তে অসংখ্য হিন্দু পরিবার এই ভয়াল সময় পার করেছে। একাত্তরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপরে হামলা হয়েছিল, একই কায়দায় ২০১৩ তে আবারো হলো। পার্থক্য এবারে আমাদের দেশটা স্বাধীন! দেশে-বিদেশে পত্রপত্রিকায় সংখ্যালঘুদের উপর পাশবিক হামলা নিয়ে অনেক হৃদয়বিদারক লেখা হবে, মানবাধিকার নিয়ে অনেক বড় বড় বুলি কপচানো হবে। কিন্তু সেই ছোট্ট শিশুটির ভোরের হিম বাতাসে কেঁপে কেঁপে ওঠা কেউ অনুভব করবে না। অনুভব করবে না প্রিয়জনের সব হারানোর কষ্ট। সংখ্যালঘু শব্দটাকে আমি ঘৃণা করি, কেউ বলবে না আমার বাঙ্গালি ভাইয়ের ঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে, তাকে নিঃস্ব করে দেয়া হয়েছে।

কাগজের হরফে লেখা কিংবা কম্পিউটারের কিবোর্ডে লেখা শব্দগুলো সেই কেঁপে ওঠা শিশু কিংবা উদোম উঠোনে শুয়ে থাকা বোনটির অথবা বিনা চিকিৎসায় ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়া ভাইটার কোন উপকার আসবে না। মহাজাগতিক আবেগ তাদের জন্য এই মুহুর্তে চুড়ান্ত রকমের অপচয়। বরং জাগতিক সাহায্য দিতে পারে তাদের একটি উষ্ণ ঘর। উপযুক্ত চিকিৎসা ফিরিয়ে আনতে পারে আমাদের সেই ভাইটিকে মৃত্যুর মুখ থেকে। সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমাদের- আমরা তাদের পাশে গিয়ে দাঁড়াব কিনা, বাংলা মায়ের দুঃখী সন্তানদের দুঃখ লাঘবে আমরা এগিয়ে যাব কিনা।

ইস্টিশন ব্লগের পক্ষ থেকে আমরা একটি উদ্যোগ নিয়েছি। আমাদের লক্ষ্য যতগুলো পরিবারকে সম্ভব সাহায্য করা। আপাততঃ আমাদের উদ্যোগটি ক্ষুদ্র কিন্তু আপনাদের প্রচেষ্টায় পরিনত হতে পারে মহীরুহ বৃক্ষে। অনেক অনেক মানুষ হয়ত আপনাদের বাড়ানো হাতের ছায়ায় জীবনের স্বাচ্ছন্দ্য খুঁজে পাবে, নতুন করে বাঁচতে শিখবে, বাঁচাতে শিখবে। এখন আর অনেক ভেবে সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় নাই। যার যা সামর্থ্য তাই দিয়ে চেষ্টা করুন। আমাদের এই উদ্যোগকে এগিয়ে নিতে যত দ্রুত সম্ভব আপনার হাত বাড়িয়ে দিন।

আর্থিক সহযোগীতা পাঠাবেনঃ
A/C Name : Md. Morshed Alam Miah
A/C No : 126 101 149 562
Dutch-Bangla Bank Limited
Swift Code: DBBLBDDH102 (বিদেশ থেকে পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য)

বাংলাদেশের যে কোন প্রান্তু থেকে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের যে কোন শাখায় উপরোক্ত ব্যাংক হিসাবে আপনার/আপনাদের সহযোগীতা পাঠাতে পারেন। যারা ব্যাংকে গিয়ে লাইন ধরে সহযোগীতা পাঠানোর বিড়ম্বনা এড়াতে চান, তাদের জন্য দেশজুড়ে আছে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অসংখ্য ফার্স্টট্র্যাক বুথ। ফার্স্টট্রাক বুথে গিয়ে আপনি সহজেই বুথের একজন কর্মরত কর্মকর্তার সহযোগীতা নিয়ে যে কোন পরিমান সহযোগীতা পাঠাতে পারেন মাত্র পাঁচ মিনিট সময় ব্যয় করে। আপনি হয়ত মনে করছেন ৫০/১০০ টাকা কিভাবে দিবেন? সবার সম্মিলিত সহযোগীতা গৃহহারা পরিবারগুলোর জন্য অনেক বড় কিছু। আপনাদের পাঠানো প্রাপ্ত সহযোগীতার পরিমাণ প্রতিদিন এই পোস্টে আপডেট দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। আপনারাও আপনাদের সহযোগীতার কথা জানাতে পারেন এই পোস্টে মন্তব্য আকারে। প্রবাসীরাও সুইফট কোডের মাধ্যমে সহযোগীতা পাঠাতে পারেন ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য। আপনাদের পাঠানো সহযোগীতা আমরা দ্রুততার সাথে পৌছে দিব ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর কাছে।

যারা বি-ক্যাশের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে চান, নিকটস্থ বি-ক্যাশ পয়েন্টে গিয়ে যে কোন পরিমানের টাকা নিম্নোক্ত নাম্বারে বি-ক্যাশ করে পাঠাতে পারেন। বি-ক্যাশ পয়েন্ট আপনার আশেপাশের ফোন-ফ্লেক্সিলোডের দোকানেই পাবেন, যেখানে নিচের মতন একটা পাখির লোগো দেখবেন।
বি-ক্যাশ নাম্বার০১৮১৬-০৪৮৭৫৫
নাম প্রকাশে ইচ্ছুক বন্ধুরা বি-ক্যাশে সহযোগীতা পাঠিয়ে বিকাশ নম্বরে ফোন করে বা টেক্স মেসেজে জানিয়ে দিতে পারেন। নাম না জানালে আমরা ‘নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক’ হিসাবে ধরে নেব।

যারা পেপলের মাধ্যমে সাহায্য পাঠাতে চান তারা নিচের পেপল আইডিটি ব্যবহার করে পাঠান। পাঠানোর পর অনুগ্রহ করে এই পোস্টে মন্তব্য আকারে অর্থের পরিমানসহ জানিয়ে দেবেন।
পেপল আইডি- azadcse@gmail.com

যোগাযোগ

মুঠোফোন : 01683 177597, 01930 631069, 01723 776001, 01717 432592
ইমেইল : istishon@gmail.com

আপডেট

ক্রমিক সাহায্যকারীর নাম সাহায্যের পরিমান সাহায্যের মাধ্যম
ডাঃ দেবাশীষ, পিজি হাসপাতাল ৫০০ টাকা বিকাশ
রঞ্জন নন্দী, কানাডা ১০০ কাঃ ডলার পেপাল
অজানা ২০০ টাকা বিকাশ
নাসরিন সুলতানা, চট্টগ্রাম ২০০ টাকা বিকাশ
এম আর খান, চট্টগ্রাম ১০০ টাকা বিকাশ
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৫০ ইউরো পেপাল
এভারগ্রীন রাজীব ৫০০ টাকা বিকাশ
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২০০ টাকা বিকাশ
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২৫০ ইউরো পেপাল
১০ সোহেল চৌধুরী, কানাডা ৫০ কাঃ ডলার পেপাল
১১ মাহির, চট্টগ্রাম ১০০ টাকা বিকাশ
১২ পাঙ্ক মাদল ৫০০ কাঃ ডলার পেপাল
১৩ নুরুল আমিন, জাপান ২০,০৩০ টাকা ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন
১৪ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৬,১১৫ টাকা বিকাশ
১৫ অভিজিৎ অর্ক ১০৫ টাকা বিকাশ
১৬ মুন্নী, নরসিংদী ২০৫ টাকা বিকাশ
১৭ ভবঘুরে/আলিমুল ফয়সল ৫০৫ টাকা বিকাশ
১৮ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১০০ টাকা বিকাশ
১৯ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১২৮ টাকা বিকাশ
২০ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১০০ টাকা বিকাশ
২১ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১০০ টাকা বিকাশ
২২ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২০ টাকা বিকাশ
২৩ সুমন, চট্টগ্রাম ১০০০ টাকা বিকাশ
২৪ আমিনুল আসলাম (বুলবুল), আকাশ আহমেদ, ফৌজিয়া খান, জাকিরুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম, রানা আহমেদ, পারভেজ রুবেল, যাযাবর জনক – সিরাজগঞ্জ ১০২০ টাকা বিকাশ
২৫ আমার ফাউন্ডেশান $ ৫০ (ইউএস) পে-পাল
২৬ এলড্রিন মালাকার $ ৫০ (ইউএস) পে-পাল
২৭ এলিস মেডিরোজ $ ২৫ (ইউএস) পে-পাল
২৮ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৫০ টাকা বিকাশ
২৯ কুমুদিনী মেডিকেল কলেজের (মীর্জাপুর, টাঙ্গাইল) ছাত্রীবৃন্দ ৬১০০ টাকা বিকাশ
৩০ পরিমল দাস, চট্টগ্রাম ১০২০ টাকা বিকাশ
৩১ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, সিলেট ১০২০ টাকা বিকাশ
৩২ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, মির্জাপুর ২০০০ টাকা বিকাশ
৩৩ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, ঢাকা ২০৩৮ টাকা বিকাশ
৩৪ অনুপ সরকার, ঢাকা ৬০০০ টাকা নগদ
৩৫ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২৫০ টাকা বিকাশ
৩৬ জুনোনিয়া আলমানা ১০,০০০ টাকা ব্যাংক
৩৭ মুরসালিনা শুভ্র ৩০০ টাকা নগদ
৩৮ ইসতিয়াক, ঢাকা ১০০০ টাকা নগদ

এ পর্যন্ত শুধুমাত্র ব্যাংক একাউন্টে জমা হয়েছে ৫৭৬০০ টাকা (জুনোনিয়া আলমানা’র ১০০০০ টাকা সহ)। ব্যাংক স্টেটমেন্ট হাতে পেলে আমরা বিস্তারিত হিসাবসহ এখানে আপডেট দিয়ে দেব।

৭৮ thoughts on “আসুন, বাঙলা মায়ের দুঃখী সন্তানদের পাশে দাঁড়াই

  1. আপনাদের বাড়ানো হাতের ছায়ায়

    আপনাদের বাড়ানো হাতের ছায়ায় জীবনের স্বাচ্ছন্দ্য খুঁজে পাবে, নতুন করে বাঁচতে শিখবে, বাঁচাতে শিখবে

    ইস্টিশনের এই মহান উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। :bow: :bow: :bow:
    সকলকে আহব্বান জানাই এই অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাড়ানোর

  2. ইষ্টিশন কত্রিপক্ষকে আন্তরিক
    ইষ্টিশন কত্রিপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ এই অসাধারণ উদ্যোগ নেওয়ার জন্যে। পাশেই আছি এবং থাকব আশা করছি। :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল:

  3. আপনার এই মহৎ উদ্যেগ কে স্বাগত
    আপনার এই মহৎ উদ্যেগ কে স্বাগত জানাই ।দয়া করে একটি বিকাশ একাউন্ট করে বিকাশ নাম্বারটি রিপোষ্ট করুন ।আমরা যারা অলস বা বেখেয়ালে থাকি তাদের জন্য সুবিধা হবে ।

  4. ইস্টিশনকে আন্তরিক ধন্যবাদ ।
    ইস্টিশনকে আন্তরিক ধন্যবাদ । প্লাটফর্ম ব্যাবহারকারী যাত্রীরা সাথে আছে ।

  5. দারুন উদ্যোগ, পাশে আছি। সহসাই
    দারুন উদ্যোগ, পাশে আছি। সহসাই সাধ্যানুযায়ী সহযোগীতা পাঠিয়ে দেব। সবাইকে আহবান জানাই যার যতটুকু সম্ভব সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর জন্য। বিশেষভাবে প্রবাসীদের সহযোগীতা বেশী দরকার। সম্ভব হলে একটি বি-ক্যাশ একাউন্ট যোগ করার জন্য অনুরোধ জানাইলাম। বিকাশ থেকে ছোট আকারের সহযোগীতায় সবাই অংশ নিতে পারবে।

    তবে উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করতে যেন দেরী না হয়। আমরা এই মহুর্তে যে যা পারি, সেই সহযোগীতা নিয়েই এগিয়ে আসি। সফল হোক এই কর্মসূচী।

  6. বিকাশ একাউন্ট করে সেটার
    বিকাশ একাউন্ট করে সেটার নাম্বার দেয়া হোক, তাহলে আরো সহজে টাকা পাঠানো সম্ভব হবে।

  7. কিছু অমানুষের কারনে আজকে
    কিছু অমানুষের কারনে আজকে আমারই দেশের আমারই মা-বাবা-ভাই-বোন সম কিছু মানুষ মানবেতর জীবন যাপন করছে। আছে চরম নিরাপত্তাহীনতায়। মানসিকভাবে চরম বিপর্যস্ত অবস্থায়। আমরা সবাই তো অমানুষ হয়ে যাইনি। তারই প্রমাণ আপনার এই উদাত্ত আহবান। মিডিয়াতে যা দেখলাম, এখন পর্যন্ত কোন ধরনের সরকারী সহযোগিতা সেখানে পৌঁছে নাই। সেই আশায় বসে না থেকে আমরাই কিছু একটা করি। হয়ত বিশাল কিছু আমরা করতে পারব না। কিন্তু আমরা যদি আমাদের যৎসামান্য এই সহযোগিতাটুকুন নিয়ে তাদের পাশে গিয়ে দাঁড়াই, তাদের হাত ধরে এতটুকু সাহস দিতে পারি সেটাও অনেক কিছু। এট লিস্ট তাদের মনে এই সাহসটুকু যোগানো যাবে, এই দেশের সবাই অমানুষ না।

    সবার প্রতি আহবান, যে যতটুকু পারেন হাত বাড়িয়ে দিন। পরিমাণ নিয়ে না ভেবে সংখ্যা নিয়ে ভাবুন। একহাজার মানুষ ১০০ টাকা করে দিলেও অনেক টাকা হয়ে যায়। তাই কোন দ্বিধা নয়।

    যেহেতু দেশের সব যায়গায় ডাচ বাংলার শাখা নাই, তাই একটা বিক্যাশ নাম্বার দিয়ে দিলে সুবিধা হয়।

  8. ইস্টিশন কর্তৃপক্ষকে প্রাণঢালা
    ইস্টিশন কর্তৃপক্ষকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা। দেশের এই পরিস্থিতিতে যে উদ্যোগ আপনারা নিয়েছেন, তার কোনো তুলনা হয় না। উদ্যোগ সফল হোক। হাসি ফুটুক সব বাঙালির মুখে। দেশ থেকে বিতাড়িত হোক জামাত-শিবির হায়েনা ও তাদের দোসরেরা।

  9. অনেক ধন্যবাদ সুন্দর
    অনেক ধন্যবাদ সুন্দর উদ্যোগ।
    সাম্প্রদায়িকতার আস্ফালন কত নির্মম সেটা বুঝতে কারো কষ্ট হওয়ার কথা না। কিন্তু বিশ্বাস বিক্রি করা একটি গোষ্টি সবসময় এই কজাটা ঘটিয়ে যাচ্ছে।

    আপনার অনুভূতি আমাকেও ছুঁয়ে গেলো। ল্যাপটপ কোলে নিয়ে বেশ ভালোভাবে বসে আছি। কিন্তু অন্যদিকে কলঙ্কিত হচ্ছে আমারই বাংলা কিছু কুলাঙ্গারদের দ্বারা।

  10. জানিনা আমার এই কথাটি কে
    জানিনা আমার এই কথাটি কে কিভাবে নিবেন…. তারপরেও বলি, আজকে জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ সেই যুদ্ধের রুপদাতা কিন্তু এই অনলাইন এক্টিভিস্ট এবং ব্লগারগণ যারা ঘরের কোনে বসে কী-বোর্ডে টাইপ করা ভাষা গণমানুষের ভাষায় রুপ দিয়েছে। জামাত-শিবির কিন্তু প্রথমেই আঘাত করেছিল আমাদের উপর,থাবাকে মেরে,কিন্তু তাতে হিতে বিপরীত হওয়াতে ঐ জাত শুয়োরের বাচ্চা,বেজন্মারা ফিরে গেলো তাদের স্বরুপে হামলে পড়লো গ্রামের ঐ নিরীহ জনতার উপর যারা এই আন্দোলনে এসে কোনদিন শ্লোগান দেয় নাই,যারা এই আন্দোলন কি নিয়ে তার আসল কারন জানেনা,যারা এই আন্দোলনে কি হচ্ছে সেই গল্পে দিন কাটায় না ঠিক তাদের উপর গিয়ে হামলে পড়লো….এই যুদ্ধটা আমাদের,যুদ্ধটা তরুণ প্রজন্মের যুদ্ধ,আমাদের যুদ্ধে যদি কেউ ক্ষতিগ্রস্থ হয় তাহলে বিবেকের তাড়নায় সেই দায়ভারটুকুও আমাদের উপর চাপে।

    হামলার পর থেকেই এইসব নিয়েই ভীষণ চিন্তায় ছিলাম,কেননা একে তো চাকরীটাও খোয়াইছি এখন এইসব ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য কিইবা করতে পারি? তবে ইস্টিশন ব্লগের ব্লগারগনকে অনেক ধন্যবাদ জানাই যে দেরীতে হলেও প্রথম উদ্যোগ আপনারাই নিয়েছেন,আমার ক্ষুদ্রতম সহযোগীতাটুকু নিয়ে আমি এগিয়ে আসবোই।

    আশা করবো এই ব্যাপারে সকল দলাদলি,বিভেদ বাদ দিয়ে সকলেই এগিয়ে আসবেন, ইস্টিশনের পক্ষে হয়তো একটি অঞ্চলে সহযোগীতা করা সম্ভব হবে কিন্তু দেশে প্রচুর স্থানে ক্ষতিগ্রস্থরা রয়েছেন তাই আশা করবো আরো অন্যান্য যেসকল ব্লগ/অনলাইন ফোরাম/দল রয়েছে সবাই এগিয়ে আসবেন।

    এটাই অন্তত সুযোগ যে ব্লগাররা যে নাস্তিক/উগ্রবাদী না তা প্রমানের।

    আশা করবো দ্রুত সময়েই সহযোগীতা নিয়ে ইস্টিশন পৌছে যাবে এবং প্রাণে প্রাণ মিলাবেই।

  11. উদ্যোগটা অবশ্যই প্রশংসনীয়।
    উদ্যোগটা অবশ্যই প্রশংসনীয়। একই সাথে সচেতন মুসলমানদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনার পাশের হিন্দু পরিবারটিকে রক্ষা করার দায়িত্ব আপনার। শুধু পত্রিকার রিপোর্ট পড়ে আর টিভিতে কান্না দেখা মুখ দিয়ে “আহা”,”উহু” না করে প্রতিরোধে এগিয়ে আসুন। সবাই যদি নিজ নিজ এলাকার হিন্দু পরিবারটিকে বাঁচানোর উদ্যোগ নেন তাহলে ঐ কুকুরগুলোর সাহস হবেনা সেখানে গিয়ে কাউকে কামড়ানোর।

  12. দুইদন পর টাকা পাবো ভাই , তখনি
    দুইদন পর টাকা পাবো ভাই , তখনি বিকাশ করে দিবো ।
    পোস্টে প্লাস । সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানাই ।।

  13. এই মাত্র বি-ক্যাশ একাউন্টে
    এই মাত্র বি-ক্যাশ একাউন্টে ৫০০ টাকা ডাঃ দেবাশীষ, পিজি হাসপাতাল থেকে সহযোগীতা পাঠিয়েছেন। আপনাকে ধন্যবাদ।

  14. বি-ক্যাশের নম্বরটি দেয়াতে
    বি-ক্যাশের নম্বরটি দেয়াতে অংশগ্রহন শুধু বাড়বেই না,সুবিধাও হবে।শীঘ্রই আমারটূকু পৌছে দিতে চেষ্টা করব।আমার মনে হয় একটা তারিখ ঠিক করা যায় আপাতত।তাতে অনেকেরই সুবিধা হবে।সেটা হতে পারে মার্চের শেষ পর্যন্ত বা এই রকম কিছু একটা।

  15. আমার একজন ফেসবুক বন্ধু “রঞ্জন
    আমার একজন ফেসবুক বন্ধু “রঞ্জন নন্দী” এইমাত্র পেপলের মাধ্যমে ১০০ ক্যানাডিয়ান ডলার ডোনেট করেছেন। উনাকে অন্তর থেকে কৃতজ্ঞতা।

    1. পোস্টে পেপ্যাল আইডি দেওয়া
      পোস্টে পেপ্যাল আইডি দেওয়া হইছে দেখলাম। আপনি কি পেপ্যাল আইডি চাচ্ছিলেন? নাকি পেপ্যালে টাকা পাঠানোর নিয়ম জানতে চাচ্ছেন?

    1. সম্মানিত অতিথি, আপনাকে
      সম্মানিত অতিথি, আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। পেপল আইডিটি যেহেতু আমার এক বন্ধুর, সেহেতু আমি কনফার্ম হয়ে পোস্টে জানিয়ে দেব। আপনার পরিচয় গোপন রাখা হবে। আপনাদের মতন মানুষের জন্যই পৃথিবীটা আজও সুন্দর, এখনও স্বপ্ন দেখতে উৎসাহ পাই। ভালো থাকুন নিরন্তর। :খুশি:

    2. টুপি খোলা সালাম থাকল ভাই,
      টুপি খোলা সালাম থাকল ভাই, হাটতে হাটতে ক্লান্ত হয়ে গেলে আমাদের ইস্টিশনে এসে জিরিয়ে নেয়ার নিমন্ত্রন থাকল।

    3. প্রিয় অতিথি, এই মাত্র
      প্রিয় অতিথি, এই মাত্র কনফার্মড হলাম, আপনার ৫০ ইউরো পেপল একাউন্টে জমা হয়েছে। অসংখ্য ধন্যবাদ আবারও। পোস্ট দাতাকে পোস্টে আপডেটটি দিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

    1. আপনার দেওয়া ২৫০ ইউরো পেপল
      আপনার দেওয়া ২৫০ ইউরো পেপল একাউন্টে জমা হয়েছে। আপনার নাম অপ্রকাশিতই রাখা হোল। আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। ভালো থাকবেন।

    2. আরও ৫০ ক্যানাডিয়ান ডলার দিয়ে
      আরও ৫০ ক্যানাডিয়ান ডলার দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এই উদ্যোগে আমাদের সহযাত্রী হয়েছেন “সোহেল চৌধুরী” ভাই। উনাকেও আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। ভালো থাকবেন সোহেল ভাই।

  16. ১. অনেক ধন্যবাদ এরকম একটা
    ১. অনেক ধন্যবাদ এরকম একটা উদ্যোগ নেবার জন্য। ৫০০ ক্যানাডিয়ান ডলার পাঠালাম।
    ২. একটা অনুরোধ: সাহায্য করবার সাথে সাথে আপনারা কি কোনো ভাবে জামাতের হামলা নিয়ে এই মানুষদের কাছ থেকে ডিটেইল্ড ইন্টারভিউ নিতে পারেন? এগুলোর রেকর্ড রাখাটা জরুরি।

    1. এইমাত্র আমি কনফার্মড হলাম
      এইমাত্র আমি কনফার্মড হলাম আপনার ৫০০ ক্যানাডিয়ান ডলার পেপল একাউন্টে জমা হয়েছে। আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। আরেকবার প্রমাণ করলেন- মানুষ মানুষের জন্য। ইন্টারভিউ করার যে প্ল্যান আপনি দিলেন সেটা আমরা গুরুত্বসহকারে বিবেচনায় রাখলাম। ভালো থাকুন নিরন্তর।

  17. জাপান থেকে আমার এক বন্ধু
    জাপান থেকে আমার এক বন্ধু নুরুল আমিন ২৫০০০ ইয়েন ব্যাংক একাউন্টে পাঠিয়েছে। বন্ধুকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

    1. ২৫,০০০ ইয়েন-এ বিপরীতে ব্যাংকে
      ২৫,০০০ ইয়েন-এ বিপরীতে ব্যাংকে কত টাকা জমা হয়েছে? এটা জানালে সবার বুঝতে সুবিধা হত।

      1. ইয়েন থেকে টাকায় রুপান্তর করলে
        ইয়েন থেকে টাকায় রুপান্তর করলে বর্তমান রেটে দাঁড়ায় প্রায় ২০,০০০ বাংলাদেশী টাকা।

  18. নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন
    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বন্ধু বিকাশে টাকা ৬,১১৫/= দিয়েছেন। আমাদের এই উদ্যোগে আপনার সহযোগীতার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

  19. ইস্টিশনের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ
    ইস্টিশনের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। পাশেই আছি এবং থাকবো 🙂 🙂 🙂

  20. বেশি পারিনি। আপাতত ৫০ ডলার
    বেশি পারিনি। আপাতত ৫০ ডলার পাঠিয়েছি। একটু চেক করে নিবেন দয়া করে।
    Payment Sent (Unique Transaction ID # 93X619680M7199143)

  21. বিকাশ From 01733331320,
    সুমন

    বিকাশ From 01733331320,
    সুমন চট্টগ্রাম …

    আমি দেশের বাইরে থাকি বলে অন্য একজন সেন্ড করেছে বিকাশ-এ, বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টার কিছু আগেই ।
    চেক করে দেখবেন ।

  22. আমরা নোয়াখালী গণজাগরন মঞ্চের
    আমরা নোয়াখালী গণজাগরন মঞ্চের উদ্যোগে রাজগঞ্জের ব্যাপারে কাজ করছি। আপনারা চাইলে কাজটা সম্মিলিত ভাবে করা যেতে পারে

    https://www.facebook.com/groups/g71noakhali/

  23. আপনার আশেপাশের জনকেও সম্পৃক্ত
    আপনার আশেপাশের জনকেও সম্পৃক্ত করুন চমত্‍কার এই উদ্যোগে। বন্ধুদের আড্ডা কী চায়ের আসরেও হতে পারে আলোচনা। হয়তো সতঃস্ফূর্ত হয়ে এগিয়ে আসবে অনেকে, না জানার দরুন যারা জানে না ও অংশগ্রহণ করার সুযোগ পায় না এমন মানবিক উদ্যোগে। একজনের দেয়া বিশ টাকাতেও হয়তো একবেলার অন্ন সংস্থান হবে কী প্রয়োজন মিটবে একজন মানুষের। হতে পারে সে অশতিপর বৃদ্ধ কী শিশু।
    তৈরি হবে সচেতনতাও।

  24. সরাসরি ব্যাংকে জমাকৃত
    সরাসরি ব্যাংকে জমাকৃত সহযোগীতার আপডেট দিতে আমাদের একটু সময় লাগছে। ব্যাংক থেকে স্টেটমেন্ট সংগ্রহ করার পর আমরা আপডেট দিচ্ছি। ব্যাংকে আরো ৩৬,৪০০ টাকা জমা হয়েছে, যা আমাদের আপডেটে আসেনি। আমরা ব্যাংক স্টেটম্যান্টটা হাতে পেলে আপডেট দিয়ে দেব।

  25. ছিলাম কিন্তু ছিলাম না, দিলাম
    ছিলাম কিন্তু ছিলাম না, দিলাম বর নিলাম না
    দেখবো আমরা বলবো না, গড়বো আমরা ধরবো না
    :দেখুমনা:

    গালি পেলেই হাড়ি মুখে মার-মার কাট
    দেয়ালে মাথা ঠুকেই রুখে দেব বিপাক
    :নৃত্য:

    চলতে থাকুক সহায়তার রেলগাড়ি
    আমারা পৌঁছে যাবো অসহায়ের বাড়ি
    :পার্টি:

  26. আমি আপনাদের ডাচ বাংলা ব্যাঙ্ক
    আমি আপনাদের ডাচ বাংলা ব্যাঙ্ক একাউন্টে ২০,০০০ টাকা পাঠাইছি প্রায় ২ উইকস আগে ,খোঁজ নিয়ে জানাবেন টাকাটা পেয়েছেন কি না ৷
    অনেক ধন্যবান আপনাদের সুন্দর উদ্যোগের জন্য , শুভ কামনা রইলো ৷

    1. এটিএম বুথে ব্যালান্স চেক করে
      এটিএম বুথে ব্যালান্স চেক করে আমরা নিশ্চিত হয়েছি আপনার ২০০০০ টাকা জমা হয়েছে। মাসে যেহেতু ব্যাংক স্টেটমেন্ট একবারের বেশী দেয় না। সেহেতু আমরা একবারে ২৪ তারিখে ব্যাংক স্টেটমেন্ট নিয়ে পোস্টে আপডেট দিয়ে দেব। আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *