৪ এপ্রিল সকাল ১১ টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও দাবী

গনজাগরণ মঞ্চ ২১ ফেব্রুয়ারীর জামাত নিষিদ্ধের আলটিমেটামের পর ২৬ মার্চ যে কর্মসুচী ঘোষণা করেছেন তার সঙ্গে আমরা সম্পুর্ণ একমত। তবে সরকার ৩৫ দিনের দীর্ঘ সময় পাওয়ার পরেও কোন অর্থবহ ও সুস্পষ্ট পদক্ষেপ ঘোষণা না করায় শাহবাগে ২৬ মার্চের সমাবেশের স্বতঃস্ফুর্ত জমায়েত ৪ এপ্রিল সকাল ১১ টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসুচী দাবী করে স্লোগান দেয়। তারই জের ধরে শাহবাগে ৫ ফেব্রুয়ারী থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসা তারুণ্যের প্রতিনিধিরা মিছিল করে আলটিমেটাম পরবর্তী কঠোর কর্মসুচী দাবী করেছে।

গনজাগরণ মঞ্চ ২১ ফেব্রুয়ারীর জামাত নিষিদ্ধের আলটিমেটামের পর ২৬ মার্চ যে কর্মসুচী ঘোষণা করেছেন তার সঙ্গে আমরা সম্পুর্ণ একমত। তবে সরকার ৩৫ দিনের দীর্ঘ সময় পাওয়ার পরেও কোন অর্থবহ ও সুস্পষ্ট পদক্ষেপ ঘোষণা না করায় শাহবাগে ২৬ মার্চের সমাবেশের স্বতঃস্ফুর্ত জমায়েত ৪ এপ্রিল সকাল ১১ টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসুচী দাবী করে স্লোগান দেয়। তারই জের ধরে শাহবাগে ৫ ফেব্রুয়ারী থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসা তারুণ্যের প্রতিনিধিরা মিছিল করে আলটিমেটাম পরবর্তী কঠোর কর্মসুচী দাবী করেছে।
গণজাগরণ মঞ্চ ৪২ বছরের বঞ্চনার পরে যে অভুতপুর্ব জাগরণ সৃষ্টি করেছে তাকে সফলতার মুখ দেখাতে আরো জোরদার আন্দোলন এর প্রয়োজন বলে আমরা মনে করছি। এই দাবী মঞ্চের ঐক্যকে আরো সংহত করা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে সফল করারই দাবী, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম যে আন্দোলনের সূচনা করেছিলেন তাকে মহৎ পরিণতি দেয়ার জন্য। গণজাগরণ মঞ্চের ৬ দফা দাবি আমাদের সবার দাবী। জাগ্রত জনতার দাবী। বাংলাদেশের সর্বস্তরের জনগণ কে এই দাবীতে সোচ্চার হওয়া ও ৪ এপ্রিল সকাল ১১ টার কর্মসুচী সফল করার জন্য যার যার অবস্থান থেকে গণসংযোগ চালানোর উদাত্ত আহবান জানাই।
শহীদদের রক্তদান, তরুণদের সাহসিকতা বৃথা যেতে পারে না। গণজাগরণ মঞ্চ জনতার এই দাবীকে আমলে নেবে বলে আমাদের প্রত্যাশা। গণজাগরণ মঞ্চ সফল হোক, বাংলাদেশ জয়ী হোক।
জয় বাংলা। জয় জনতা। জয় তারুণ্য। জয় শাহবাগ।

পক্ষে
মাহবুব রশিদ, আব্দুল্লাহ আল মুয়ীদ, আনিস রায়হান, আজম খান, সায়ন্তনি ত্বিশা, আনহা এফ খান, নূর বাহাদুর ও বাবু আহমেদ।

৬ thoughts on “৪ এপ্রিল সকাল ১১ টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও দাবী

  1. আন্দোলনকে আরো বেগবান করার অংশ
    আন্দোলনকে আরো বেগবান করার অংশ হিসেবেই শাহবাগের তারুণ্য আজ দাবি জানিয়েছে ৪এপ্রিল বিক্ষোভ মিছিলসহ প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশের পরিবর্তে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচির।আপনি,আমি,সে,তারা এই নিয়েই আমরা।এই আমরাই গণজাগরন মঞ্চ।তাই ৪তারিখের স্মারকলিপির পরিবর্তে ঘেরাও কর্মসূচি গণজাগরন মঞ্চের বাইরের কোন কর্মসূচি নয়।গণজাগরন মঞ্চের দাবিকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে সরকারকে বাধ্য করার জন্যই স্মারকলিপির পরিবর্তে এ ঘেরাও কর্মসূচি।কোন একটা আন্দোলনে নেতৃত্ব স্থানীয়রা কোন কারণে কর্মসূচি নির্ধারনে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে ব্যর্থও হতে পারেন।তাই বলে নেতৃত্ব ব্যর্থ হয়ে যায় না।বরং নেতৃত্বকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করার,বাধ্য করার কাজটি আমাদের।তাহলেই কেবল আন্দোলন ও নেতৃত্ব উভয়েই সঠিক পথের দিশা পায়।সেই সঠিকতার লক্ষ্যেই ৪তারিখ ঘেরাও কর্মসূচি।আমাদের গণজাগরন মঞ্চকে সেই লক্ষ্যে নিয়ে যেতে হতাশ না হয়ে কর্মসূচিকে সফল করতে অংশ নিন,সহায়তা করুণ।

    1. না কাঁদলে মায়েও দুধ দেয় না।
      :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

      না কাঁদলে মায়েও দুধ দেয় না। সরকারের উপর চাপ অব্যাহত রাখতে হবে।

      :bow: :bow:

  2. না কাঁদলে মায়েও দুধ দেয় না।
    না কাঁদলে মায়েও দুধ দেয় না। সরকারের উপর চাপ অব্যাহত রাখতে হবে। কর্মসূচী সফল হোক। সবাই যোগ দিয়ে আমাদের সম্মিলিত শক্তি দেখিয়ে দিন :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *