অভিজিৎদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ এই রাষ্ট্র কি উত্তর দেবে?

‘অভিজিৎ রায়ের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে রাষ্ট্র’ যদি লেখার শুরুতেই এমনটি বলি নিঃসন্দেহে বলে দিতে পারি একদল তেঁড়ে আসবে। কারণ তাঁরা ক্ষমতাসীন সরকারের ব্যর্থতা নিয়ে কথা শুনতে অভ্যস্থ নয়। আর একদল চেঁচিয়ে উঠবে নাস্তিক মরেছে তো হয়েছে কি? মরেছে তো প্রবাসী ব্লগার।ভিন্নমত পোষণকারীরা যেন মানুষ নয় ! একজন ভিন্নমত পোষণকারী মানুষের খুন হওয়া নিয়ে কথা বলতে গেলে একেশ্বরবাদী হলেও গায়ে লেগে যেতে পারে নাস্তিকের তকমা যে কোনো সময় ! এই যে জাত-ধর্ম সব গেল রে ! এই দুটো ধারণার কোনটাই কল্পনাপ্রসূত নয়।আমাদের সমাজেরই বাস্তব প্রতিচ্ছবি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের খুনসুটিতে এমনটিই দেখছি গত দুইদিন ধরে।


‘অভিজিৎ রায়ের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে রাষ্ট্র’ যদি লেখার শুরুতেই এমনটি বলি নিঃসন্দেহে বলে দিতে পারি একদল তেঁড়ে আসবে। কারণ তাঁরা ক্ষমতাসীন সরকারের ব্যর্থতা নিয়ে কথা শুনতে অভ্যস্থ নয়। আর একদল চেঁচিয়ে উঠবে নাস্তিক মরেছে তো হয়েছে কি? মরেছে তো প্রবাসী ব্লগার।ভিন্নমত পোষণকারীরা যেন মানুষ নয় ! একজন ভিন্নমত পোষণকারী মানুষের খুন হওয়া নিয়ে কথা বলতে গেলে একেশ্বরবাদী হলেও গায়ে লেগে যেতে পারে নাস্তিকের তকমা যে কোনো সময় ! এই যে জাত-ধর্ম সব গেল রে ! এই দুটো ধারণার কোনটাই কল্পনাপ্রসূত নয়।আমাদের সমাজেরই বাস্তব প্রতিচ্ছবি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের খুনসুটিতে এমনটিই দেখছি গত দুইদিন ধরে।

না, ভয়টা আমার ওই দুটোর একটিতেও নেই।অতোটা ভীতু নই আমি। বিশ্বাস কি এতই ঠুনকো যে ঘষা দিলেই খসে পড়বে ইট-সুরকির মতো ? আমার বিশ্বাস একান্তই আমার অস্তিত্বে। কার সাধ্যি টলায় মোরে? কিন্তু রাষ্ট্রের প্রতি আনুগত্য থাকলেও সরকারের ত্রুটিগুলো ধরতে গেলেই যত্তসব বিপত্তি। ক্ষমতাসীনদের গা জ্বালা করে উঠে অহেতুক। তবু সত্য হচ্ছে,যার দেহ রক্তাক্ত হয় নর পশুদের আঘাতে,যার মুন্ডু দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয় উগ্রপন্থীদের অস্রাঘাতে তার বাবা-মা, স্বামী/স্ত্রী আর পুত্র-কন্যাকেই কেবল বইতে হয় দেহের ভার আর অসহায়ত্বের স্মৃতি। সাথে তীব্র মানসিক যন্ত্রণা। আমাদের রাষ্ট্র, সরকার, সমাজ এই দায় নিতে সদা প্রস্তুত নয়।আর নয় বলেই ২৪ ঘন্টা পার হলেও এখনো রাষ্ট্র-সরকার ঘাতকদের ধরতে পারেনি। অভিজিৎ এর মৃত্যু এখন হিমালয় পাহাড়ের চাইতেও ভারি হয়ে চেপে বসে আছে তাঁর পিতার কাঁধে। শুধু পিতার নয় গোটা রাষ্ট্রের কাঁধে। অভিজিৎদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ এই রাষ্ট্র কি উত্তর দেবে?

একদল বেশ সুখেই আছে।আল্লাহু আকবর ধ্বনি দিয়ে প্রমাণ করেছে একজন নাস্তিক খতম করেছে তাঁরা। তাঁদের ধারণা এইতো বুঝি বেহেশতের এক দরজা খুলেই গেছে ইহ জগতেই। বেহেশতের টিকিট হাতে নিয়েই অভিজিৎ রায় এর খুনের দায় স্বীকার করেছে আনসার বাংলা সেভেন নামের একটি গোষ্ঠী।হামলার দুই ঘণ্টা পর টুইটার বার্তায় ওই দায় স্বীকার করে নেয় তারা। ফেসবুকেও দেখেছি ছড়িয়ে গেছে একটি বার্তা অভিজিৎ কে খুন করার জন্যে আগাম ঘোষণা দেয়া হয়েছিল অনেক আগেই। তাঁরা এও বলেছে প্রবাসীকে খুন করাটা খুব কঠিন। যখন তখন কাছে পাওয়া যায় না। দেশে আসলেই তাঁকে সুযোগ বুঝে ধরা যাবে। হয়েছেও তাই।

এটা পরিষ্কার যারা এই খুনের পিছনে রয়েছে তাঁরা আগাম ঘোষণা দিয়েই কর্মটি করেছে। অভিজিৎ প্রবাসী ছিল তাই হয়তো কিছুদিন বাড়তি সময় পেয়েছিল বেঁচে থাকার।

মানুষ তো নয় মরেছে ব্লগার। ধর্মের দুশমন মরলে এতো চ্যাঁচামেচি কেন? এমন প্রশ্ন এখনো হয়নি, হতেও পারে। সরকারও ভাবছে ব্লগার মরে গিয়ে কী বেকায়দাই না হলো। কখন আবার হেফাজতিরা ফণা তুলে দাঁড়িয়ে যায় সেই ভয় কী সরকারের হচ্ছেনা তো? নাকি সরকার যোগ-বিয়োগ মিলাতে হিমশিম খাচ্ছে এখনো?

ইস্যুর তো শেষ নেই। কে জানে সেইটিই সত্য কিনা। নয়তো সরকার নাটের গুরুদের ধরে প্রমাণ করে দেখিয়ে দিক ভিন্নমত পোষনকারী একজন প্রবাসী ব্লগার খুন হয়নি, খুন হয়েছে রাষ্ট্রের একজন মানুষ।

১ thought on “অভিজিৎদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ এই রাষ্ট্র কি উত্তর দেবে?

  1. এফবিআই আইতাসে, পোন্দের ছাল
    এফবিআই আইতাসে, পোন্দের ছাল উঠানি শুরু করবে কোন দিক থেকে, সেইটা দেখার অপেক্ষায় থাকলাম। আম্রিকান নাগরিকের উপ্রে হামলা, এত সহজে ছাড়বে না আঙ্কেল স্যামের মুরীদরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *