প্রথমবারের মত সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের নিবন্ধন ফি জমা দেয়ার শর্ত শিথিল করেছে বর্তমান সরকার

সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের নিবন্ধন ফি জমা দেয়ার শর্ত শিথিল করা হয়েছে। এ অনুযায়ী হজযাত্রীরা এখন দুই কিস্তিতে টাকা জমা দিতে পারবেন। প্রথম কিস্তিতে আগের ঘোষণার এক-তৃতীয়াংশ এবং দ্বিতীয় কিস্তিতে বাকি টাকা জমা দিতে হবে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে আগ্রহীরা ৫১ হাজার ৬৯০ টাকা ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীরা ৪৮ হাজার ৩৩১ টাকা ৫০ পয়সা জমা দিয়ে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নিবন্ধনের সুযোগ পাবেন। এর আগে প্রথম কিস্তিতে তাদের ১ লাখ ৫১ হাজার ৬৯০ টাকা জমা দিতে বলা হয়েছিল। হজ প্যাকেজ অনুযায়ী বাকি টাকা পরিশোধের জন্য ১০ জুনের নির্ধারিত তারিখ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ৮ ডিসেম্বর হজ প্যাকেজ ২০১৫ অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ-১ এর মাধ্যমে হজ পালনে খরচ ধরা হয় ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৭৪৫ টাকা। অপর দিকে সাশ্রয়ী প্যাকেজ-২ এর মাধ্যমে ২ লাখ ৯৬ হাজার ২০৬ টাকা খরচ হবে। দুটি প্যাকেজেই কোরবানির জন্য আলাদা ১০ হাজার ৫০০ টাকা (৫০০রিয়াল) দিতে হবে। আগের ঘোষণার পর হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সরকারকে জানায়, এবার হজ যাত্রীদের অনেকেই প্রস্তুত নয়। তারা আরও পরে হজের টাকা দিয়ে অভ্যস্ত। তাই নিবন্ধনের সময় টাকা কমানোর অনুরোধ জানায় তারা। ধর্মমন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিও এবিষয়ে একমত পোষণ করেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে হজ যাত্রীদের নিবন্ধন ফি জমা নেয়ার বিষয়টি পুন র্বিবেচনার প্রস্তাব অনুমোদন করে হজ যাত্রীদের জন্য এ সুযোগ সৃষ্টি করেছে সরকার। বাংলাদেশ থেকে এবার এক লাখ এক হাজার ৭৫৮ জন হজ পালন করতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে ৯১ হাজার ৭৫৮ জন হজ পালন করার সুযোগ পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *