প্রশ্ন ফাঁস ও চুরিবিদ্যা

আচ্ছা আমরা এয় কষ্ট করে লেখাপড়া করি কেন ?? এত কষ্ট করার কি আসলেই প্রয়োজনীয়তা কোনও আছে ? অনেকেই বলবেন যে লেখাপড়ার প্রয়োজনীয়তা আছে কিন্তু কেন প্রয়োজনীয় সে ব্যাপারেই অনেকে ভিন্ন যুক্তি প্রদর্শন করবেন । সবচেয়ে বেশি যে যুক্তি দেখা যায় তার মাঝে একটি হল “ লেখাপড়া না করলে ডিগ্রি পাব না , ডিগ্রি না পেলে ভাল চাকরি পাব না, আর চাকরি না পেলে সুন্দর বউ পাব না’ আমি মোটেও ফাজলামো করে এইসব বলছি না । এটাই সত্য । আবার অনেকে লেখাপড়া করছেন বা মা এর ভয়ে । সবার এই লেখাপড়া করার পেছনে রয়েছে এক অজানা ভয় , সেই ভয় হল ফলাফল খারাপ করার ভয় । এই ভয়ের কারনে হারিয়ে যাচ্ছে লেখাপড়া করার আসল উদ্দেশ্য । সব ডিগ্রির জন্য এতটাই মরিয়া যে তারা ভয়ের ঠেলায় তারা আশ্রয় নিচ্ছে অসৎ উপায়ের । প্রশ্ন ফাঁস করে পরীক্ষা দিয়ে পেয়ে যাচ্ছে সেই এ+ । যে ছেলেটি বা মেয়েটি ডাবল গোল্ডেন এ+ পেলেও দেখবেন সে কিছুই ভালমত পারে না । যারা এই প্রশ্ন ফাঁস করে পরীক্ষা দেয় তাদের আমি মগজহীন উপাধি দিব । এই মগজহীনদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে । এই ঘৃণিত কাজটি শুধু খারাপ শিক্ষার্থীরা একা করছে না বরং অনেক বড় শিক্ষা স্কুল কলেজ এর শিক্ষার্থীরাও এইভাবে পরীক্ষা দিয়ে এ+ তো পাচ্ছেই সাথে তাদের স্কুল কলেজকে বানিয়ে দিচ্ছে দেশসেরা । এই প্রশ্ন ফাঁস করে পরীক্ষা দেয়াকে আমি দেশের বৃহৎ সমস্যাগুলোর একটা বলব । এই সমস্যার জন্য দায়ী আমাদের শিক্ষা ব্যাবস্থা । এই দেশের শিক্ষা ব্যাবস্থা শিক্ষার্থীদের চোর বানাচ্ছে এই জিপিএ এর প্রচলন করে । সুশিক্ষিত হওয়া এখন কারও লক্ষ্য নয় , লক্ষ্য হচ্ছে যেভাবেই হোক এ+ পাওয়া । যারা প্রশ্ন ফাস করে এ+ পাচ্ছেন তাদের বলছি এখন তো বেচে গেলেন কিন্তু এইবার বাচলেন সামনে মরার জন্য । একটা সত্য ঘটনা বলি আমার এক পরিচিত বিজ্ঞান বিভাগের বড় আপুর এইচএসসি পরীক্ষা চলছিল । তখন আমি তাকে জিজ্ঞেস করি ‘পরীক্ষা কি ফাঁস করা প্রশ্ন আগের রাতে পরে পরীক্ষা দিচ্ছ?” সে উত্তর দেয় যে সে এইভাবেই পরীক্ষা দিচ্ছে এবং সে গোল্ডেন এ+ ও পেল । কিন্তু সে যখন ভার্সিটিগুলোতে ভর্তি পরীক্ষা দিল । সে কোনও জায়গায় তো টিকলোই না উল্টো ফেইল করল । এইবার বলুন তো এই গোল্ডেন এ+ এর দাম কি????? সামনের মাসের ২ তারিখ থেকে এসএসসি, আবার শুরু হয়ে যাবে প্রশ্ন ফাঁসের মেলা । তাদের বলছি আরে ভাই প্রশ্ন ফাঁস
করে পরীক্ষা দিয়ে কেন প্রমান করতে চাইছও তুমিও সেই মগজহীনদের মত গরু প্রজাতির? সৃষ্টিকর্তা কি মগজ দেয় নাই?

৩ thoughts on “প্রশ্ন ফাঁস ও চুরিবিদ্যা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *