আমার মৃত্যুর বিধাতা আমি

যদি আমি চাই হে বিধাতা
আজ রাতই
আমার শেষ রাত হতে পারে
হাতের কাছেই রয়েছে তার সরঞ্জাম।

বিনিদ্র রাত যখন কাটেনা –
নিতে হয় দু’একটা ট্যাবলেট।
অনেক আকাংখিত মুক্তির জন্য
ক’টা ট্যাবলেট লাগে বলো ?



যদি আমি চাই হে বিধাতা
আজ রাতই
আমার শেষ রাত হতে পারে
হাতের কাছেই রয়েছে তার সরঞ্জাম।

বিনিদ্র রাত যখন কাটেনা –
নিতে হয় দু’একটা ট্যাবলেট।
অনেক আকাংখিত মুক্তির জন্য
ক’টা ট্যাবলেট লাগে বলো ?
তাও আছে।

কে বলে জন্ম মৃত্যু তোমার হাতে ?
হেরে গেছ হে অদৃশ্য নিয়ন্তা।
আছে কি নেই তোমার অস্তিত্ব
জানি না তা।
তবু হেরে গেছ।

জন্ম হয়নি আমার সম্মতিক্রমে –
তুমি কিংবা জন্মদাতা
কেউই জিজ্ঞেস করেনি আমায় –
আদৌ কোনো ইচ্ছে আছে কি আমার,
এই অদ্ভুত গ্রহে কিছু কাল কাটাবার ?
তবু এসে গেছি।
তবু খেলে গেছি –
হার মানা এই হার না মানা খেলা ।

জন্মে আমার সম্মতি হয়নি প্রয়োজন –
মৃত্যু আমার হাতে !
আমার মৃত্যুর বিধাতা আমি –
হেরে গেছ ,
হে বিধাতা হেরে গেছ তুমি !

৩ thoughts on “আমার মৃত্যুর বিধাতা আমি

    1. এ কবিতা সম্পূর্নই ব্যক্তিগত
      এ কবিতা সম্পূর্নই ব্যক্তিগত অনুভুতির বহিঃপ্রকাশ। দেশ-জাতি কিংবা সমাজের কারো কাজে লেগে গেলে কাক-তালীয় হবে।

  1. কী অদ্ভূত প্রশ্ন। কবি তার
    কী অদ্ভূত প্রশ্ন। কবি তার মনের এলোমেলো ভাবনাগুলো কবিতায় ফুটিয়ে তুলবেন এটাই কবির কাজ। আর সব কবিতারই কি দেশ-জাতি-সমাজের কাজে লাগতে হবে। আমার সাইনে দু’লাইনের যে কবিতাটা লেখা সেটা ‘রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লার’ একটা গোচ্ছ কবিতা। এই কবিতাটা দেশ-জাতির কি কাজে লেগেছে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *