যেভাবে বেঁচে আছি (মানসিক)

১,
অবসরে স্বগতোক্তিঃ
কত দূরত্বে কত অজানায় হারিয়ে গেলে-
তুমি চিরতরে হারাবে জীবন থেকে আমার?
নেই ফিরে দেখা; তোমার ফেরার দুরাশা নেই
বন্ধ প্রেমের দোকানে কী কাজ করে কামার?

বন্ধ প্রেমের দোকানে কী কাজ করে কামার?
খাদে তৈরি লৌহে বোকাটা এখনো বেগার খাটে
হয়ে গেছে রায়;ঝুলে আছে মৃত প্রেমের দেহ
স্মৃতির কুকুর পচা গলা স্তন কেন যে চাটে?

স্মৃতির কুকুর পচা গলা স্তন কেন যে চাটে?
কোন সৌরভ,অথবা আদর তো আসবে না
‘বেদনায় আছি’ তত্ত্বতে ঘোর অবিশ্বাসী
মাঝে মাঝে তবে কোথা থেকে আসে এই বেদনা?

মাঝে মাঝে তবে কোথা থেকে আসে এই বেদনা?
কর্মক্ষেত্রে পরিবারে নেই অপূর্নতা
সফল মানুষ খোঁজা মুশকিল আমার মত

১,
অবসরে স্বগতোক্তিঃ
কত দূরত্বে কত অজানায় হারিয়ে গেলে-
তুমি চিরতরে হারাবে জীবন থেকে আমার?
নেই ফিরে দেখা; তোমার ফেরার দুরাশা নেই
বন্ধ প্রেমের দোকানে কী কাজ করে কামার?

বন্ধ প্রেমের দোকানে কী কাজ করে কামার?
খাদে তৈরি লৌহে বোকাটা এখনো বেগার খাটে
হয়ে গেছে রায়;ঝুলে আছে মৃত প্রেমের দেহ
স্মৃতির কুকুর পচা গলা স্তন কেন যে চাটে?

স্মৃতির কুকুর পচা গলা স্তন কেন যে চাটে?
কোন সৌরভ,অথবা আদর তো আসবে না
‘বেদনায় আছি’ তত্ত্বতে ঘোর অবিশ্বাসী
মাঝে মাঝে তবে কোথা থেকে আসে এই বেদনা?

মাঝে মাঝে তবে কোথা থেকে আসে এই বেদনা?
কর্মক্ষেত্রে পরিবারে নেই অপূর্নতা
সফল মানুষ খোঁজা মুশকিল আমার মত
নিজের মাঝেই কোনো রয়ে গেছে কি শুন্যতা?
২.
শুন্যতা কহেঃ

পৃথিবীর জলে নিজের স্বচ্ছ চেহারা দেখে দেখে ক্লান্ত
নগরের অন্ধ মানুষের ধূসর লেন্স দিয়ে আর ঢুকতে চাই না —
আর ঢুকতে চাই না কোন মায়াবী পাপেট শোতে ;
যেখানে পাপেট হিসেবে সবসময় ঝুলিয়ে রাখি হাসি
করি যা করা উচিৎ, বলি যা বলা উচিৎ
নিজের নিজেকে বিক্রি করে কিনি সামাজিক করতালি ।
হত্যা করতে মন চায়;পৃথিবীর জলের সেই স্বচ্ছ চেহারাতে
এসিড ঢেলে দিতে মন চায়, মন চায় সেই জনপ্রিয় পাপেটকে
ফেলে দিতে হিংস্র কোন বাঘের খাচায়।
প্রশংসাকারীদের অন্ধ চোখ উপড়ে দিতে চাই নতুন চোখ
যেই চোখ অরণীর ছিল;
নগরের নাগরিকের ধূসর লেন্স ভেঙে দিয়ে দিতে চাই নতুন লেন্স
যেই লেন্স অরনীর চশমাতে ছিল ;
কৌশলগত পোশাক ছিড়ে গেলে ব্যক্তিগত নগ্নতায় তারা দেখুক আমাকে
আমার মনের খাদে কিনারে কত চোরাবালি করে বসবাস
কত ভয়াবহ বিশৃঙ্খলা,কত বিকৃত বেদনা করে বিরাজ
কত অক্ষম অসফল অসহায় একজন বাস করে নিজের ভিতর ;
যেভাবে একদিন দেখেছিল অরনী; যেভাবে একরাত অনুভব করেছে অরনী।

তারপর…তারপর অরনীর চোখে আমি আর নিজের স্বচ্ছ চেহারা দেখতে পাইনি
তারপর …তারপর অরণীর লেন্সে তাকিয়ে আমি পাই নি কোন সুপুরুষ
তারপর…তারপর অরনী গেছে হারিয়ে।
এভাবে পৃথিবীও কি হারিয়ে যাবে না?
যার গর্ভে চেয়েছিলাম শুদ্ধ পুনর্জন্ম নিতে
যার যোনিতে আমি রেখেছিলাম ব্যক্তিগত সব অর্ঘ্য
সেই ভবিতব্য জননী-দেবী আমাকে গেছে ফেলে জারজের মতন
পৃথিবী থেকে এর চেয়ে বেশি আশা করা বোকামি হবে না?

আমি শুন্যতা বলছি!কতদিন আর পালাবে?
মরেও নেই সুখ, আদৌ তুমি নেই বেঁচে।।

৩.
যুক্তির প্রতিক্রিয়াঃ

শুন্যতা নেই-ছিল না!সাময়িক মনের বিভ্রান্তি সব
বলদের মত কেন কর এসকল নষ্ট অনুভূতি অনুভব!
যদিও থাকে শুন্যতা,যেটা অবশ্যই নেই
যদিও তোমার জীবন হয় অন্যের দৃষ্টিভঙ্গিবন্দি খাঁচা
শুধু মনে রাখো,তুমি বেঁচে আছো, আর তোমার কেবল দরকার বাঁচ।।


অবসর শেষে স্বগতোক্তিঃ

কত কাজ জমা, কাজে যাই ফিরে, কেমন করে
এতক্ষণ আমি কাটালাম মিছে এ অবসর?
অতটা বুঝতে জানতে চাই না ;চাই বাঁচতে
গলায় ঝুলিয়ে লাভ নেই শূন্যতার ভর।।

৩ thoughts on “যেভাবে বেঁচে আছি (মানসিক)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *