নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 9 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মলি
  • পৃথ্বীরাজ চৌহান
  • দ্বিতীয়নাম
  • নীল কষ্ট
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • কুমার শাহিন মন্ডল
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • অনন্ত দেব দত্ত
  • কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ

নতুন যাত্রী

  • মাষ্টার মশাই
  • লিটন
  • অনন্ত দেব দত্ত
  • ইকরামুল হক
  • আবিদা সুলতানা
  • ইবনে মুর্তাজা
  • কুমার শাহিন মন্ডল
  • ঝিলাম নদী
  • কিশোর ফয়সাল
  • উসাইন অং

আপনি এখানে

জাহেলিয়াতের যুগে নারীর অবস্থা নিয়ে অপপ্রচারের জবাব


বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলের সুবাদে ছোটবেলা থেকে শুনে আসতেছি ইসলাম আসার আগে আরবে নারীদের কোন অধিকার ছিল না।ইসলামই শুধু নারীকে মর্যাদা দিয়েছে।W. Robertson Smith একটা বই লিখেছিলেন আরবের নারীদের নিয়ে।বইটার নাম Kinship and Marriage in Early Arabia।বইটিতে তিনি জাহেলিয়াতের যুগে আরবে বিয়ের পদ্ধতিকে ৩টি শ্রেণীতে ভাগ করেছেন।সেগুলো হলঃ

১) নারীরা তাদের গোত্র ত্যাগ করে স্বামীর গোত্রে যোগ দিতে পারবে।সেক্ষেত্রে সন্তান স্বামীর গোত্রের অনুসারী হবে।
২) নারী তার নিজের গোত্রে থাকতে পারবে এবং স্বামী নিয়মিত স্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করতে পারবে।এক্ষেত্রে সন্তান মায়ের গোত্র কিংবা পিতার গোত্রের যেকোনো একটিতে অন্তর্ভুক্ত হবে।
৩) স্ত্রী তার নিজ গোত্রে থাকবে এবং স্বামী তার স্ত্রীর গোত্রে যোগ দিবে।আমাদের দেশে যাকে ঘরজামাই বলে।এক্ষেত্রে সন্তান মায়ের গোত্রের অন্তর্ভুক্ত হবে।

জাহেলিয়াতের যুগে নারী স্বাধীনতার আরেকটি উদাহরন হল নবীর পরদাদা হিসামের সহিত সালমা বিনতে আমরের বিয়ে।সালমা হিসামকে বিয়ের সময় কিছু শর্ত আরোপ করেছিলেন।এর মধ্যে একটি হল সালমা চাইলে যেকোনো মুহূর্তে হিসামকে ত্যাগ করতে পারবে।পরবর্তীতে আব্দ আল মুত্তালিবের জন্ম হলে হিসামকে ছেড়ে সালমা তার নিজ গোত্রে ফিরে যায়।মুত্তালিব তখন তার নানার গোত্রে লালিত পালিত হতে থাকে। (ইবনে হিসামের লিখা সিরাত গ্রন্থ) এ ঘটনা থেকে তৎকালীন আরব নারীদের স্বাধীনতার ধারনা পাওয়া যায়। আরবের তৎকালীন নারীরা পছন্দ মত বিবাহের প্রস্তাব নিজে দিতে অথবা বাতিল করার ক্ষমতা রাখত।আবদুল মুত্তালিব পুত্র আবদুল্লাহর

হাত ধরে বনু আসাদ ইবন আবদুল উযযা ইবন কুসাই এর এক মহিলার নিকট গমন করেন ৷

মহিলাটি হলো ওয়ারাকা ইবন নওফলের বোন ৷ সে সময়ে সে কাবার নিকট অবস্থান করছিল ৷ আবদুল্লাহ্কে দেখে সে বলল, আবদুল্লাহ ৷ তুমি যাচ্ছ কোথায়?

আবদুল্লাহ বললেন, আমি আমার আব্বার সঙ্গে যাচ্ছি ৷ মহিলাটি বলল, যদি তুমি এই মুহুর্তে
আমার সাথে মিলিত হতে সম্মত হও তা হলে আমি তোমার বদলে যত সংখ্যক উট জবাই করা
হয়েছে, সে সংখ্যক উট তোমাকে দেব ৷ জবাবে আবদুল্লাহ বললেন, আমি আমার আব্বার সঙ্গে
আছি ৷ তাকে ছেড়ে অন্যত্র যাওয়া বা তার মতের বাইরে কিছু করা আমার পক্ষে সম্ভব নয় ৷
আবদুল্লাহ্কে নিয়ে আবদুল মুত্তালিব ওহাব ইবন আবদে মানাফ এর নিকট যান ৷ ওহাব ইবন আবদে
মানাফ তখন বয়স ও মর্যাদায় বনু জোহরার সর্দার ছিলেন ৷ আলাপ আলোচনার পর তার কন্যা

আমিনার সঙ্গে আবদুল্লাহর বিবাহ হয়ে যায় ৷ আব্দুল্লাহকে দেওয়া ওয়ারাকা ইবনে নওফেলের বোনের দেওয়া প্রস্তাব প্রমান করে জাহেলিয়াতের যুগে নারীরা নিজের পছন্দের পুরুষকে প্রস্তাব নিজেই দিতে পারত।
আরেকটি বড় ধরনের অপপ্রচার হল জীবন্ত নারী পুঁতে ফেলা।এর সমর্থনে কিছু হাদিস আছে।ব্যাপারটাকে অস্বীকার করার সুযোগ নেই।কারন তৎকালীন আরবে যারা গরীব ছিল তারা নিজেদের দুঃখকষ্টময় জীবনের জন্য কন্যা সন্তানকে অভিশাপ মনে করত।

অধিকাংশ মুসলিম মনে করে ইসলাম আসার আগে নারীরা সম্পত্তিতে ভাগ পেতো না।অথচ তারা গর্ব করেই বলে খাদিজা তৎকালীন আরবের সম্পদশালী ব্যবসায়ী মহিলা ছিলেন।এই সম্পদ উনি তার পূর্বের ৩ স্বামী ও পিতার কাছ থেকে পেয়েছিলেন।নারীদের সম্পত্তিতে হিস্যা পাওয়ার এর থেকে ভাল উদাহরন আর নেই।

অপর একটি অপপ্রচার হল ইসলাম নারীদের মোহরানা দেওয়ার মাধ্যমে নারীদের স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ দিয়েছে।ঐতিহাসিক তথ্যমতে খাদিজার (রাঃ) সাথে বিয়ের সময় রাসূল তাকে ৫০০ স্বর্ণমুদ্রা/ দিনার কিংবা ২০ টি উষ্ট্রী উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন।আশা করি কেউ বলবেন না সেই সময় জাহেলিয়াতের যুগ ছিল না।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

চাঁদসওদাগর
চাঁদসওদাগর এর ছবি
Offline
Last seen: 15 ঘন্টা 37 min ago
Joined: বৃহস্পতিবার, জুলাই 21, 2016 - 8:05অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর