নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • কাঙালী ফকির চাষী

নতুন যাত্রী

  • সুশান্ত কুমার
  • আলমামুন শাওন
  • সমুদ্র শাঁচি
  • অরুপ কুমার দেবনাথ
  • তাপস ভৌমিক
  • ইউসুফ শেখ
  • আনোয়ার আলী
  • সৌগত চর্বাক
  • সৌগত চার্বাক
  • মোঃ আব্দুল বারিক

আপনি এখানে

ইতিহাস

ডক্টর মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ’র বাংলা পঞ্জিকা সংশোধন হেফাজত ইসলামের সিলেবাস সংশোধন থেকে কেন ভিন্ন নয়


ডক্টর মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বাংলা পঞ্জিকা সংশোধন করেছিলেন- এটি তিনি সাম্প্রদায়িক চিন্তা থেকে করেছিলেন কিনা সে অনুসন্ধান করতে গিয়ে কেঁচো খুঁজতে সাপ বেরিয়ে গেলো! এই অনুসন্ধানে দেখা গেলো হেফাজত ইসলামের জন্মের বহু বছর আগেই শিক্ষাক্রমের পাঠ্যসূচী থেকে ‘হিন্দু লেখক’ খেদানোর আন্দোলন শুরু হয়েছিলো। যারা এই আন্দোলন করেছিলেন তাদের অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল হিসেবেই এদেশে ধরা হয়। বলতে গেলে হেফাজত ইসলাম বা চরমোনাই পীর হচ্ছে তাদের দ্বিতীয় প্রজন্ম…।

বিষাক্ত রাজনীতি:- পঞ্চম পর্ব-


বাবরি মসজিদ ও রাম মন্দির বিতর্কটি বহু পুরানো। এর ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটটি হল বাবরের সেনাপতি মীর বাকি খান 1528 খৃষ্টাব্দে বাবরি মসজিদ নির্মাণ করেন। তবে কট্টরপন্থী হিন্দুদের দাবি ছিল ওই স্থানে আগে একটি মন্দির ছিল যা ভগবান রামচন্দ্রের জন্মস্থান। কট্টরপন্থী হিন্দুদের আরও দাবি হল- বাবরের সেনাপতি মীর বাকি খান রাম মন্দির ধ্বংস করেই বাবরি মসজিদ নির্মাণ করেছেন। ঐতিহাসিক রেকর্ড থেকে জানা যায় 1853 সালে ওই স্থানটি নিয়ে প্রথম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়। 1885 সালে মহান্ত রঘুবর দাস প্রথম এই মন্দির নিয়ে মামলা করেন কিন্তু তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার ও ফৈজাবাদ আদালত মনে করেন প্রায় 356 বছর আগের ঘটনা নিয়ে রায় দেওয়া ঠি

এই দেশে এখন একশ্রেণীর বেজন্মা-মেধাবীর সংখ্যা বাড়ছে!



যার ভিতরে দেশপ্রেম বিদ্যাবুদ্ধি, বিবেক, আত্মসংযম ও মনুষ্যত্ব আছে তাকে মেধাবী বলে। কিন্তু এই দেশের চিরস্থায়ী-বেজন্মা ও একাত্তরের ঘাতক-দালাল জামায়াত-শিবিরের কী বা কোন মেধা আছে? এই বেজন্মারাও এখন দেশের “মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত কোটা” বাতিলের দাবিতে একশ্রেণীর সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে আন্দোলনে নেমেছে! আর এই বেজন্মারাও এখন সুযোগ বুঝে বিসিএস-ক্যাডারসহ অন্যান্য সরকারি-চাকরিতে ঢুকতে চাচ্ছে! স্বাধীনদেশে একশ্রেণীর সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্তরের চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী বেজন্মা জামায়াত-শিবিরও তাদের পূর্বপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের জন্য এখন “মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত কোটা” বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে শরীক হয়েছে, এবং এজন্য তারা নানাপ্রকার নাশকতাও চালিয়েছে। এদেশের যেকোনো সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করার অধিকার রয়েছে। কিন্তু বেজন্মা জামায়াত-শিবিরকে এই অধিকার কে দিয়েছে?

মানুষের উৎপত্তি ও বিকাশ- ২


আল্লাহপাকের প্রথম মাস্টার প্ল্যান ছিল জ্বীন আযাযীলকে বেহেশত থেকে বিতাড়িত করা। কিন্তু নিরাপরাধ জ্বীন আযাযীলকে বিনা কারণে বেহেশতচ্যুত করা সম্ভব ছিল না, কারণ আল্লাহপাক ন্যায় বিচারক। তিনি কখনোই কারো প্রতি জুলুম করেন না। তাই আল্লাহপাক আদম বানানোর প্রক্রিয়ায় সুকৌশলে জ্বীন আযাযীলকে বেহেশতচ্যুত করেছিলেন।

বিষাক্ত রাজনীতি:- তৃতীয় পর্ব-


ইন্দিরা গান্ধীর আকস্মিক মৃত্যুর পর দেশে এক রাজনৈতিক শূন্যতার আবির্ভাব হয়, কে হবে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী এই নিয়ে তীব্র মতবিরোধ দেখা যায়। অনেকে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের নাম প্রস্তাব করেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত অরুণ নেহেরুর মত কংগ্রেসি নেতাদের সমর্থনে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে রাজীব গান্ধীকে মনোনীত করা হয়। রাজীব গান্ধী ওই দিনই (31শে অক্টোবর 1984) মাত্র 40 বছর বয়সে দেশের কনিষ্ঠতম ষষ্টপ্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। ভারতীয় রাজনীতিতে রাজীব গান্ধীর আবির্ভাব নায়োকচিত্ত ভাবে হয়। তিনি রাজনীতি সম্পর্কে অনাগ্রহী ছিলেন এবং রাজনীতি থেকে সমদূরত্ব বজায় রাখতেন কিন্তু ইন্দিরা

মানুষের উৎপত্তি ও বিকাশ-১



মানুষের উৎপত্তি বিকাশ নিয়ে অনেক মতবাদ আছে। ডারউইন সাহেবও মতবাদ দিয়েছিলেন। কিন্তু ডারউইনের মতবাদ সবাই কেন মেনে নেবে? কি সব মিসিং লিংকফিংক এর গল্প বলে বেড়ায় বিজ্ঞানীরা! এর থেকে অনেক সহজবোধ্য ধর্মীয় মতবাদ আছে! অনর্থ ফসিল খুঁজে বেড়ানো, ফসিলের কার্বন ডেটিং করা, গবেষণা করা সবই অর্থহীন!

ধর্মীয় মতবাদ শতভাগ গ্রহণযোগ্য! কারণ, স্রষ্টা ছাড়া কিছুই সম্ভব হত না। স্রষ্টা ছাড়া এমন জটিল গঠনের মানুষের উৎপত্তি কখনোই সম্ভব ছিল না!

বোরকা-হিজাব আসলে শয়তানের আবিষ্কার


মাদ্রাসার নিম্নমানের পাতিহুজুর তথা মোল্লাদের জন্ম পরের জাকাত-ফিতরা-সাদকাহ খেয়ে। এরা পরের ভিক্ষা খেয়ে নিম্নমানের শিক্ষাগ্রহণ করে বাংলাদেশের সাধারণ ও প্রকৃত শিক্ষিতদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য করছে। আর জাকাত-ফিতরা-সাদকাহ খাওয়া এই বেজন্মাগুলো নকল করে পরীক্ষায় পাস করে সাধারণ একটা “আলিম-ফাজিল-কামিল” নামের নিম্নমানের ডিগ্রী নিয়ে সমাজের বুকে নিজেদের আলেম-উলামা ভেবে বসে আছে। কিন্তু এইসব বেজন্মার কেউই আলেম-উলামা নয়।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর