নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মাহফুজ উল্লাহ হিমু
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • দ্বিতীয়নাম
  • মিশু মিলন
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • রবিউল আলম ডিলার
  • আল হাসিম
  • মাহের ইসলাম
  • এহসান মুরাদ
  • ফাহিম ফয়সাল
  • সানভী সালেহীন
  • সাঞ্জানা প্রমী
  • অতৃপ্ত আত্বা
  • মনিকা দাস
  • আব্দুল্লাহ আল ম...

আপনি এখানে

ধর্ম-অধর্ম

আমাদের দলিত সকাল-সন্ধ্যা !



১০-দিন ক্রমাগত ধর্ষণ শেষে ঋ্জু পায়ে কাঁপতে কাঁপতে ঘরে ফেরে ১৫-বছরের কিশোরি সন্ধ্যা। উঠোনে দাঁড়ানো মা মেয়ের এ করুণ অবস্থায় ফিরতে দেখে চিৎকার দিয়ে ডাকে স্বামীকে। ১০-দিন নিখোঁজ থাকার পর মেয়ের এ অবস্থায় প্রত্যাবর্তনে বাকরহিত হয়ে জগদীশ তাকিয়ে থাকে একখন্ড দুখরূপী হেঁটে আসা সন্ধ্যার দিকে। মাকে জড়িয়ে ধরার আগেই দরজায় পড়ে যায় ১০-দিনের ক্লান্ত-শ্রান্ত ধর্ষিতা সন্ধ্যা!
:

নারীর কোনো ধর্ম, বর্ণ, ঘর নেই!


নারীর কোনো ধর্ম নেই, নারীর কোনো বর্ণ নেই, নারীর কোনো ঘর নেই । আশ্রয়দাতার ধর্মই নারীর ধর্ম। আশ্রয়দাতার বর্ণই নারীর বর্ণ। আশ্রয়দাতার ঘরই নারীর ঘর। নারীর উপনয়ন হয় না, নারীর তাই উপবীত নেই। নারী ব্রাহ্মণ নয়, ব্রাহ্মণের মেয়ে। নারীর ব্রাহ্মণের ঘরে বিবাহ হলে সে ব্রাহ্মণ, শূদ্রের ঘরে বিবাহ হলে সে শূদ্র। নারীর গোত্রান্তর হয়, পুরুষের হয় না। বিবাহ হলেও পুরুষের ধর্ম, গোত্র, পদবি, বর্ণ, ঘর বদলে যায় না। নারীর বিবাহ হলে সব বদলে যায়। পিতার ধর্মই সন্তানের ধর্ম, মাতার ধর্ম সন্তানের নয়।

মুহাম্মদ কেন কোনভাবেই নবী হতে পারে না , পর্ব -৩


১ম ও ২য় পর্বে বলা হয়েছে , কেন নবী হতে গেলে তাকে আগের নবীদের ধারাবাহিকতায় তৌরাতের বিধান মেনে ইব্রাহীমের বংশধর হতে হবে। বার বার তৌরাত ও ইঞ্জিল কিতাবকে স্বীকার করেই মুহাম্মদ নিজের পায় নিজেই কুড়াল মেরেছে।চুড়ান্ত কুড়ালটা মেরেছে একটা চ্যালেঞ্জ করে , যে তার আগমনের খবর পূর্ব বর্তী কিতাব তৌরাত/ইঞ্জিলে বিদ্যমান। তৌরাতে অবশ্যই মুসার পর নবী আসার কথা আছে , কিন্তু দেখতে হবে , সেই নবী মুহাম্মদ কি না।

বিষাক্ত রাজনীতি:- চতুর্থ পর্ব-


যে সমস্যাটি ভারতীয় রাজনীতি ও সমাজ জীবন চিরতরে পাল্টে দিয়েছিল সেই ঘটনাটি ছিল এইরকম- মধ্যপ্রদেশের ইন্দোর শহরের নামজাদা উকিল মহম্মদ আহমদ খান দুটি বিবাহ করেন। বড় স্ত্রী ছিলেন সাহাবানু। বাষট্টি বছর বয়সী ও পাঁচ সন্তানের জননী সাহাবানু যখন তার স্বামী মহম্মদ আহমদ খানের কাছে ভরণপোষণ সংক্রান্ত অর্থ চাইতে যায় তখন তার স্বামী প্রচন্ড রাগে তালাক, তালাক, তালাক বলে তিন তালাক দেয়, 6 ই নভেম্বর 1978। অর্থাৎ এরপর থেকে তাদের মধ্যে স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক শেষ। এরফলে ইসলামি আইন অনুযায়ী শুধু বিয়ের সময় দেনমোহর ও বিচ্ছেদের 90 দিন পর্যন্ত অর্থাৎ ইদ্দতের সময় পর্যন্ত স্বামীর স্ত্রীকে অর্থ প্রদান করা অর্থাৎ 'নাফকা' ওয়াজিব

মুহাম্মদ কেন কোনভাবেই নবী হতে পারে না , পর্ব-২


পর্ব-১ দেখানো হয়েছে , মুহাম্মদকেই প্রমান করতে হবে , সে ছিল ইব্রাহিমের বংশধর। এ ক্ষেত্রে মুহাম্মদের নিজের বলা কথা ছাড়া আর কোন প্রমান নেই। হঠাৎ করে কেউ একজন এসে যদি দাবী করে যে সে নবাব সিরাজুদ্দৌলার বংশধর , তাহলে সেটা তাকে ওয়ারিশনামা প্রদর্শন করেই প্রমান করতে হবে। কেউ কিছু একটা দাবী করলেই সেটা সত্য হবে না। মুসলমানরা ঠিক এই যায়গাতেই বুঝতে পারে না। তারা প্রতিটা কথার জন্যে কোরানের বানীকে প্রমান হিসাবে তুলে ধরে , কিন্তু তারা বোঝে না , কোরান প্রথমত: মুহাম্মদের বলা বানী। মুহাম্মদই বলেছে কোরান আল্লাহর বানী। সুতরাং কোরানের আগে মুহাম্মদ যে নবী সেটাই মুসলমানদের আগে প্রমান করতে হবে।

মুহাম্মদ কেন কোনভাবেই নবী হতে পারে না, পর্ব -১


যুক্তির খাতিরে ধরে নিলাম , ঈশ্বর আছে আর সে দুনিয়াতে মাঝে মাঝে নবী পাঠায় মানুষকে সঠিক পথে পরিচালনার জন্যে। সে ক্ষেত্রে এই নবী ধারাটা সৃষ্টি হলো কোথা থেকে সেটা জানার পর , মুহাম্মদ কোন ভাবে সেই ধারা মোতাবেক নবী হতে পারে কি না , সেটা বুঝতে হবে। বিষয়টা হলো , আমি একটা সম্পত্তির মালিকানা দাবী করছি , সে ক্ষেত্রে আমাকে প্রমান করতে হবে উক্ত সম্পত্তির মালিক ছিল আমার বাবা , তার পুর্বে আমার দাদা এবং সেই সূত্রে ওয়ারিশ হিসাবে আমি সেই সম্পত্তির মালিক- সেটা আমাকেই প্রমান করতে হবে।

ইসলাম একটি সহিংস মতবাদ: ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান বাবুর স্মরণে...



এর আগের দিন সারারাত ঘুমায়নি। পরেরদিন জেটাতুতো বোনের জামাইভাতা ছিল। ওরা আসবে, ওদের ৩০০ জন, আমাদের ২০০ জন, মোট পাঁচশ জনের খাবারের আয়োজন। এর আগের রাত থেকেই আমরা ক্লাবে ছিলাম। পাঁচক রান্না করছে, আমি আমার পিসিত ভাই আর জেটাতো ভাই তিনজন ক্লাবেই ছিলাম। ৩০ই মার্চ তিনজন সারারাত ঘুমাইনি। পরদিন চোখে চোখে ঘুম ঘুম ভাব। সেদিন ছিল ৩১ই মার্চ, ২০১৫ সাল।
আজ থেকে তিন বছর আগের কথা---

হিজাব পরে নিজেকে ভোগ্যবস্তুর মত উপস্থাপন করে , ধর্ষন রোখা যাবে না


প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে শারিরীকভাবে শক্তিশালী পুরুষরা তাদের বীরত্ব ফলাত , কে কতজন নারীকে নিজের আয়ত্বে রাখতে পারে , তার ভিত্তিতে ।একই সাথে সেই বড় বীর , যে যখন ইচ্ছা খুশি যে নারীকে পছন্দ করত , তাকে ভোগ করার অধিকার রাখত। নারীকে তখন আসলে ভোগ্য বস্তু ছাড়া আর কিছুই ভাবা হতো না। সেই নারীরা আজো হিজাব পরে নিজেদেরকে ভোগ্য বস্তুর মত উপস্থাপন করবে , আবার ধর্ষনের হাত থেকে বাঁচতে চাইবে , সেটা তো সোনার পাথরবাটির মত ঘটনা।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর