নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নগরবালক
  • সলিম সাহা
  • বেহুলার ভেলা
  • লালসালু

নতুন যাত্রী

  • সুশান্ত কুমার
  • আলমামুন শাওন
  • সমুদ্র শাঁচি
  • অরুপ কুমার দেবনাথ
  • তাপস ভৌমিক
  • ইউসুফ শেখ
  • আনোয়ার আলী
  • সৌগত চর্বাক
  • সৌগত চার্বাক
  • মোঃ আব্দুল বারিক

আপনি এখানে

রাজনীতি

আমেরিকা এবং গং সিরিয়াতে কী উদ্ধার করলো মিসাইল মেরে?



মিসাইল ইন্টারসেপ্ট করা নিয়ে অনেক কথা চলছে। বর্তমান বিশ্বে আমেরিকার চেয়ে রাশিয়ান মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেমগুলা বেশি কার্যকর ও আধুনিক। আবার এসব সিস্টেম খুবই ব্যয়বহুল। আমার ধারণা, রাশিয়া কিছু মিসাইল ইন্টারসেপ্ট করেছিল, আর বাকীগুলো এমনিতেই করেনি। মিসাইল ইন্টারসেপ্ট করতেও মিসাইল লাগে, যার একেকট্র মূল্য কোটিকোটি টাকা। শখানেক মিসাইলে যে স্থাপনা ধ্বংস হব, তা ঠেকানোর চেয়ে ওগুলো ধ্বংস হতে দিয়ে আবার গড়ে ফেলা কম খরচের ব্যাপার। পরাশক্তিরা এই গ্যাস হামলার হুমকি পাল্টা হুমকির ও মিসাইল স্ট্রাইক পরবর্তী হিসেব নিকেশে নো উইন সিচুয়েশনে আছে। পশ্চিমারা মুখ রক্ষা করলো কিছু উধার না করেই, আর রাশিয়া মিসাইল হামলা প্রতিহত করবার জন্য সেভাবে কিছু না করেই বাগাড়ম্বর করলো। তাদেরও তেমন লাভ হয়নি, ক্ষতিও না। আসাদ সরকারের সর্বাত্মক বিজয়ের চেয়েও সিরিয়াতে তাদের অবস্থান বেশি জরুরী। সেটা তারা নিশ্চিত করবেই।

বিষাক্ত রাজনীতি:- পঞ্চম পর্ব-


বাবরি মসজিদ ও রাম মন্দির বিতর্কটি বহু পুরানো। এর ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটটি হল বাবরের সেনাপতি মীর বাকি খান 1528 খৃষ্টাব্দে বাবরি মসজিদ নির্মাণ করেন। তবে কট্টরপন্থী হিন্দুদের দাবি ছিল ওই স্থানে আগে একটি মন্দির ছিল যা ভগবান রামচন্দ্রের জন্মস্থান। কট্টরপন্থী হিন্দুদের আরও দাবি হল- বাবরের সেনাপতি মীর বাকি খান রাম মন্দির ধ্বংস করেই বাবরি মসজিদ নির্মাণ করেছেন। ঐতিহাসিক রেকর্ড থেকে জানা যায় 1853 সালে ওই স্থানটি নিয়ে প্রথম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়। 1885 সালে মহান্ত রঘুবর দাস প্রথম এই মন্দির নিয়ে মামলা করেন কিন্তু তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার ও ফৈজাবাদ আদালত মনে করেন প্রায় 356 বছর আগের ঘটনা নিয়ে রায় দেওয়া ঠি

আততায়ীর হাতে খুন হওয়ার আগে শেখ মুজিবের শেষ সাক্ষাৎকার



ঢাকার নিজ বাসভবনে আততায়ীর হাতে সপরিবারে খুন হওয়ার মাত্র ১০ দিন আগে বাংলাদেশে নিযুক্ত তৎকালীন আমেরিকার রাষ্ট্রদূত ডেভিস বোস্টার বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে একান্তে সাক্ষাৎ করেন। আলাপচারিতায় বঙ্গবন্ধু দেশ পরিচালনায় যেসব বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছেন সেগুলো কিভাবে অতিক্রম করা যায় তার পরিকল্পনা ডেভিস বোস্টারের সাথে বিশদ আলোচনা করেন।

যতো মসজিদ ততো শয়তানী


শেখ হাসিনা একসাথে সবই খেতে চায়। নিরামিষভোজী থেকে তিনি আমিষে নাম লিখিয়েছেন। নিরামিষ থেকে ঠিক মতো বেরও হতে পারছেন না, আবার আমিষেও পোষাচ্ছে না!

উন্নয়নের জোয়ারে, ভেসে যায় আহারে!


উন্নয়ন, উন্নয়ন, উন্নয়ন। সব সময়েই উন্নয়ন,সব জায়গাতেই উন্নয়ন। উন্নয়নের মেঘমন্দ্রিত সরকারি গর্জনে কান ঝালাপালা হওয়ার দশা। মাইকের মতো অবিরত যারা কল্পিত উন্নয়নের শিবের গীত গাচ্ছেন তারা কি একবার দয়া করে বলবেন উন্নয়ন বলতে আপনারা কী বোঝেন? কোন স্কেল দিয়ে আপনারা উন্নয়ন পরিমাপ করছেন? উন্নয়ন পরিমাপ করার সূচকগুলো কী? উন্নয়ন মানে কি ত্রিশ বিলিয়ন ডলারের ফরেন রিজার্ভ, ছয় শতাংশ প্রবৃদ্ধি, সুউচ্চ সুরম্য প্রাসাদের আধিক্য, মেট্রোরেল আর পদ্মাসেতু এবং চৌদ্দশ ডলার মাথাপিছু আয়? উন্নয়ন মানে কি চার লক্ষ কোটি টাকার বাজেট, সাবমেরিন, মিগ টুয়েন্টি নাইন?

বেলাশেষে মিথ্যাচারগুলোই দুর্বল হয়


কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য, শত-সহস্র মিথ্যাচার, ষড়যন্ত্র করেও খালেদা জিয়াকে সত্যের কাছ থেকে মুক্ত করতে পারেনি। সুশাসনের কাঠগড়া থেকে মুক্ত করতে পারেনি। তিঁনি দুর্নীতিতে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদন্ডে খালেদা জিয়া এখন কারাভোগ করছেন। মিথ্যে সাজানো মঞ্চায়ন করার পরেও দেশের সচেতন মানুষকে খালেদা জিয়ার পক্ষে মাঠে নামাতে পারেননি।

বিষাক্ত রাজনীতি:- চতুর্থ পর্ব-


যে সমস্যাটি ভারতীয় রাজনীতি ও সমাজ জীবন চিরতরে পাল্টে দিয়েছিল সেই ঘটনাটি ছিল এইরকম- মধ্যপ্রদেশের ইন্দোর শহরের নামজাদা উকিল মহম্মদ আহমদ খান দুটি বিবাহ করেন। বড় স্ত্রী ছিলেন সাহাবানু। বাষট্টি বছর বয়সী ও পাঁচ সন্তানের জননী সাহাবানু যখন তার স্বামী মহম্মদ আহমদ খানের কাছে ভরণপোষণ সংক্রান্ত অর্থ চাইতে যায় তখন তার স্বামী প্রচন্ড রাগে তালাক, তালাক, তালাক বলে তিন তালাক দেয়, 6 ই নভেম্বর 1978। অর্থাৎ এরপর থেকে তাদের মধ্যে স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক শেষ। এরফলে ইসলামি আইন অনুযায়ী শুধু বিয়ের সময় দেনমোহর ও বিচ্ছেদের 90 দিন পর্যন্ত অর্থাৎ ইদ্দতের সময় পর্যন্ত স্বামীর স্ত্রীকে অর্থ প্রদান করা অর্থাৎ 'নাফকা' ওয়াজিব

বিষাক্ত রাজনীতি:- তৃতীয় পর্ব-


ইন্দিরা গান্ধীর আকস্মিক মৃত্যুর পর দেশে এক রাজনৈতিক শূন্যতার আবির্ভাব হয়, কে হবে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী এই নিয়ে তীব্র মতবিরোধ দেখা যায়। অনেকে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের নাম প্রস্তাব করেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত অরুণ নেহেরুর মত কংগ্রেসি নেতাদের সমর্থনে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে রাজীব গান্ধীকে মনোনীত করা হয়। রাজীব গান্ধী ওই দিনই (31শে অক্টোবর 1984) মাত্র 40 বছর বয়সে দেশের কনিষ্ঠতম ষষ্টপ্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। ভারতীয় রাজনীতিতে রাজীব গান্ধীর আবির্ভাব নায়োকচিত্ত ভাবে হয়। তিনি রাজনীতি সম্পর্কে অনাগ্রহী ছিলেন এবং রাজনীতি থেকে সমদূরত্ব বজায় রাখতেন কিন্তু ইন্দিরা

স‌েনা ও স‌েটেলার কর্তৃক পাহাড়ীদ‌ের উপর নারকীয় গনহত্যার ইত‌িহাস।


হৃদয়ে বেদনার স‌েই দ‌িনের কথা শুনলে মন এখন‌ো ভারাক্রান্ত হয়‌ে যায়।পার্বত্য চট্টগ্রাম‌ে ন‌িপীর‌িত আদ‌িবাসীদ‌ের উপর শাসকগ‌োষ্টী রক্ত প‌িপাসু হায়‌েনা স‌েনা বাহ‌িনী ও সেটেলার বাঙালী কর্তৃক গনহত্যা, ধর্ষন, দখল, লুটপাট, উচ্ছেদ সহ সকল রাস্ট্রীয় অন্যায়-অবিচার-নিপীড়ন-শোষন-শাসনের পীষ্ট জুম্মজাতির বেদনার ইত‌িহাস করুণ। সবুজ পাহাড়‌ে জুম্মদের জীবনের এমন করুণ ইত‌িহাস যুগযুগ ধর‌ে চলমান! আজ স‌েই ভারাক্রান্ত হৃদয় ন‌িয়ে স‌েইসব ইতিহাসকে স্মরন করতে বাধ্য হচ্ছি। প্রথমে এই প্রশ্নটুকু রাখত‌ে চাই। আপন‌ি কি জান‌েন পার্বত্য চট্টগ্রাম‌ে সেনা ও স‌ে‌টেলার কর্তৃক পাহাড়ীদ‌ের উপর কতট‌ি গণহত্যা সংঘটিত হয়‌েছে?

ইন দি সাওয়ার হাংরি টাইম


বিভক্ত নখর আমার তাই নিয়ে ডিসপেনসারি খুঁজতে আমি রাস্তায় বেরোই ,দেখি এন্টেনায় বসে আছে গাছ।
গতবছর সমুদ্রে আমি দেখেছিলাম মাস্তূলের উপরে জাহাজ চড়ে আছে,
যখন সৈণিকেরা বলেন ,কতখানি কার্তুজে সম্পূর্ণ হতে পারে একজন শান্তিরক্ষাবাহিনীর শহীদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী,
এই ধরুন লেফটেনেন্ট কর্নেল মোঃ ফয়জুল করিম উইন্ডহোক-কি হবে তার অথবা সুরাইয়া সুলতানার(প্রয়াত লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদের স্ত্রী) ?
অথবা ভাবুন পৃথিবী কি ডান থেকে যাচ্ছে বামে,নাকি বাম থেকে ডানে?
পেডোফিলিয়া কি বাড়াবে জরায়ু মুখের ক্যন্সার?

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর