নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • ফারজানা সুমনা
  • মিনহাজ

নতুন যাত্রী

  • অরুণাভ দে
  • পাহাড়ের উপমানুষ
  • পুরানো ঘড়ি
  • স্বর্ণ সুমন
  • হেজিং
  • মং চিং প্রু
  • প্রলয় দস্তিদার
  • ফারিয়া রিশতা
  • চ্যাং
  • রাসেল আহমেদ

আপনি এখানে

দর্শন

হে কুকুর, তোমরা ধর্ম ছেড়ে জঙ্গলে যাও


বাংলাদেশে এখন পশুদের সংখ্যা বাড়ছে নাকি আগে থেকেই যে-সব পশু ছিল তারা ক্রমশঃ ক্ষিপ্ত হচ্ছে? আমার মনে হয় দুটোই হতে পারে। কিন্তু এই দেশ তো পশুদের জন্য নির্মাণ করা হয়নি। ৩০লক্ষ তাজাপ্রাণের বিনিময়ে এই দেশটাকে স্বাধীন করা হয়েছে। হ্যাঁ, মনে রাখবেন: এখানে শুধু মানুষেরাই রক্ত দিয়েছে। আর পশুরা শুধু মানুষের রক্তই ঝরিয়েছে। কোনো পশু তো এই দেশের জন্য কোনোকিছু করেনি। তবে চারিদিকে আজ কেন পশুদের এই আস্ফালন?

সূরা আল ইমরান বিশ্লেষণ !!


আজ কুরআনের সূরা আল ইমরানের কিছু বিষয় নিয়ে বিশ্লেষণমূলক আলোচনা করবো । চলুন দেখি কি আছে এই বিজ্ঞানময় কিতাবের বিজ্ঞানময় সূরায় !

এখন আমাকে আর কোনো কিছুই অবাক করেনা!


পাকিস্তানের মারদানে 'আব্দুল ওয়ালি খান ইউনিভার্সিটি' তে মাশাল খানকে খুব নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে এক সপ্তাহ হয়ে গেল। তার নির্মম মৃত্যুর ঘোর এখনো কাটেনি। এই শোক আমাকে এখনো ছুঁয়ে ছুঁয়ে যায়। খুঁড়ে খুঁড়ে খাচ্ছে আমার বিবেককে। গত বুধবারে পাকিস্তানের মারদানে আব্দুল ওয়ালি খান ইউনিভার্সিটিতে মাশাল খানের পোষ্ট নিয়ে তারই সহপাঠীরা ক্যাম্পাসে তাঁর সাথে বাক-বিতণ্ডায় লিপ্ত হয়, এর পরদিন বৃহঃস্পতিবার সকালের পর সেই বুদ্ধিদীপ্ত তরুন মাশাল খান ছবি হয়ে গেল! এক রক্তাক্ত লাশ হয়ে গেল! দুর্বল কাপুরুষ ধর্মান্ধ সবাই মিলে তাঁকে পিটিয়ে মারল।

আওয়ামীলীগের হেফাজতপ্রীতির কারণ এবং এর প্রতিকার


ষাট-সত্তরের দশকে আওয়ামীলীগ করতেন একদল দেশপ্রেমিক শিক্ষিত, তরুণ ও উদ্যমী মানুষেরা। আর এঁদের সকলের পড়ালেখাবিষয়ক ডিগ্রী বা শিক্ষাগত-যোগ্যতা ছিল কমপক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েশন পর্যন্ত। এঁরা সবাই ছিলেন পড়ুয়া ও ধীমান। এঁরা রাজনীতির পাশাপাশি প্রচুর পড়াশুনা করে সময় কাটাতেন। আর এঁদের প্রতিভা ছিল ঈর্ষণীয়। এঁদের মনুষ্যত্ব ও মানবতাবোধ ছিল সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য। এঁরা ছিলেন সত্যিকারের দেশদরদী-মানবতার সৈনিক।
আজ সেই আওয়ামীলীগে ঢুকেছে কিছু অর্থলোভী নরপিশাচ ও আবর্জনা। এরা সীমাহীন লোভী বলেই রাজনীতি করে শুধু এমপি-মন্ত্রী-পাতিমন্ত্রী হতে চায়। আর এরা যোগ্যনেতা কিংবা যোগ্যকর্মী হওয়ার চেয়ে অতিসহজে ও অতিদ্রুত আওয়ামীলীগ ও এর যেকোনো অঙ্গসংগঠনের বড়-বড় পদগুলো অনায়াসে দখল করে নিচ্ছে। এই চক্রটি আবার ধর্মবিশ্বাসে পাকিস্তানীভাবধারার অপআদর্শে বলীয়ান ও ওহাবী-সালাফী মতাদর্শী। আর এরা কওমীমাদ্রাসার হুজুরপন্থী।

একটা হলিউডি ফিল্ম ও ইসলাম


হঠাৎ করে একটা হলিউডি ফিল্ম দেখলাম। বিষয়বস্তু হলো -কোন একটা কারনে একটা শহরে একটা ভাইরাসের সংক্রমন হয় , যাতে মানুষ রাক্ষসে পরিনত হচ্ছিল, তাদের কোন সাধারন কান্ডজ্ঞান ছিল না। তারা রাতের বেলা বের হয়ে সাধারন মানুষকে আক্রমন করত , যাকে আক্রমন করত , সেও রাক্ষসে পরিনত হত। কিন্তু দিনের আলো সহ্য করতে পারত না। দিনের আলোতে আসলেই তারা মারা পড়ত। তো এই ফিল্মের সাথে ইসলামের কি সম্পর্ক ?

আইনস্টাইন; পাইলটের উড়ার ক্ষমতা


একজন পাইলট হবেন, বিমান চালাবেন। তো, লিখিত পরীক্ষা দিলেন। ইন্টারভিউতে যখন জিজ্ঞেস করলেন উনি উড়তে জানেন কিনা, তখন বাপারটা কেমন লাগে?

মুক্তমন ...।।


আমরা প্রায়শই মুক্তমনের কথা বলি কিন্তু অধিকাংশই জানিনা মুক্তমনের জন্য কি প্রয়োজন এবং মুক্তচিন্তা কি?

চিন্তা দুই প্রকার সৃষ্টিশীল ও ধ্বংসাত্মক । এই দুইয়ের পার্থক্য নিরূপণে ব্যর্থ মুক্তচিন্তা সমাজ সভ্যতাকে কিছু দিতে পারেনা। আমি মুক্তচিন্তাকে স্বাগত জানাই।

মাননীয় প্রধান বিচারপতি, রাষ্ট্রের স্বার্থে আপনার সর্বোচ্চ শক্তি, সাহস ও ক্ষমতা প্রয়োগ করুন


রাষ্ট্র এখন ধর্মান্ধ-অক্টোপাসের খপ্পরে পড়তে যাচ্ছে। ধর্মের নামে ‘হেফাজতে শয়তান’ নামক অরাজনৈতিক ও সন্ত্রাসী সংগঠন অপরাজনীতি শুরু করেছে। আর এদের একমাত্র লক্ষ্য-উদ্দেশ্য ও কর্মসূচি হলো: যেকোনোভাবে, যেকোনোউপায়ে আর যেকোনোমূল্যে রাষ্ট্রক্ষমতাদখল করা। এরা আফগানী-তালেবানী-পাকিস্তানী পাশবিক-শাসন কায়েম করতে চায়। আপনি অবগত রয়েছেন, এরা চিরকালীন রাষ্ট্রবিরোধীঅপশক্তি। ধর্ম এদের মুখোশ মাত্র। আর ‘আল্লাহ-রাসুল’ এদের ব্যবসার আকাশে সাইনবোর্ড মাত্র। আসলে, এরা সংগঠিত হয়েছে—বাংলাদেশরাষ্ট্রকে ধ্বংস করতে। কারণ, এই ‘হেফাজতে শয়তানে’র জন্ম হয়েছিলো ১৯৭১ সালে—পাকিস্তানীদের ঔরসে। আর ১৯৭১ সালে, এরা পাকিস্তানী-আর্মিদের সঙ্গে কাঁধে-কাঁধ-মিলিয়ে, আর বুকে-বুক-লাগিয়ে যারপরনাই অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়েছিলো বাঙালির উপর। এরা সেই ‘হেফাজতে শয়তান’। আর সেই থেকে এরা আজও বাংলাদেশের সবকিছুকে ধ্বংস করার জন্য ক্রমশঃ মরীয়া হয়ে উঠেছে। আর এদের সর্বাত্মক সহায়তা করছে এদেশীয় চিহ্নিত-দালালশ্রেণী। এরা সবাই মিলেমিশে আজ বাংলাদেশরাষ্ট্রকে সম্পূর্ণ গিলে খাওয়ার ফন্দিফিকির করছে। আর দুঃখের বিষয় হলেও সত্য: বর্তমান সরকারও এদের খপ্পরে পড়ে গেছে। এখন জাতির ‘আশা-আকাঙ্ক্ষাপূরণে ও ভাগ্যরক্ষার ক্ষেত্রে’ আইনানুগ-অভিভাবক হিসাবে দায়িত্বপালন করতে হবে আপনাকে। হ্যাঁ, শুধু আপনিই এখন জাতির প্রত্যাশাপূরণ করতে পারেন। তাই, আজ জাতির প্রয়োজনে আপনার কাছে আমাদের সবিনয় নিবেদন:

যে পরস্ত্রীকে ভাগিয়ে এনে বিয়ে করবে না , সে খাটি মুমিন না


নবী মুহাম্মদের আদর্শ অনুসরন করা প্রতিটা মুমিনের জন্য আবশ্যক। তার অন্যতম একটা আদর্শ কাজ ছিল পরস্ত্রীকে ভাগিয়ে এনে বিয়ে করা। মুহাম্মদের জায়েদ নামে এক পালিতপুত্র ছিল যার ছিল সুন্দরী বউ জয়নাব। একবার জায়েদের অনুপস্থিতিতে জায়েদের বাড়ীতে গিয়ে অর্ধনগ্ন জয়নাবকে দেখেই তার প্রেমে পড়ে যায় মুহাম্মদ। তারপরে নানা কায়দা কসরত করে, অবশেষে জয়নাবকে বিয়ে করে ঘরে তোলে সে। সুতরাং দেখা যাচ্ছে পরস্ত্রী ভাগিয়ে বিয়ে করা একটা আদর্শ কাজ। কারন কাজটা করেছে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট আদর্শ মানব মুহাম্মদ।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর