নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • ফারজানা সুমনা
  • মিনহাজ

নতুন যাত্রী

  • অরুণাভ দে
  • পাহাড়ের উপমানুষ
  • পুরানো ঘড়ি
  • স্বর্ণ সুমন
  • হেজিং
  • মং চিং প্রু
  • প্রলয় দস্তিদার
  • ফারিয়া রিশতা
  • চ্যাং
  • রাসেল আহমেদ

আপনি এখানে

সমসাময়িক

পাহাড় নিয়ে মিথ্যাচার ও এর বিশ্লেষণঃ কল্পনা চাকমা, পাহাড়ের গণহত্যা ও সর্বশেষ রমেল চাকমা



রমেল চাকমার হত্যার ঘটনায় সেনাবাহিনীর নাম রক্ষার জন্য একশ্রেণীর মানুষ বিভিন্ন মিথ্যাচারে লিপ্ত হয়েছে। বিভিন্ন ছবি প্রকাশ করে তারা বুঝাতে চাইছেন রমেল একজন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী। ট্রাক পোড়ানো মামলায় তার নাম আছে। এছাড়া কোন কোন পত্রিকায় (কালের কণ্ঠ) বলা হয়েছে সিএনজি অটোরিকশার ধাক্কায় রমেল আহত হয়ে মারা গেছে। এই ধরণের মিথ্যাচার নতুন নয়। কল্পনা চাকমার অপহরণের ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার জন্যও অনেক মিথ্যাচার করা হয়েছে। গণহত্যাগুলোর বিবরণকে পাল্টে দেয়ার প্রচেষ্টা চলেছে। তবে সেসব সফল হয়নি। যদিও মিথ্যাচার এখনো চলছে।

স্বাধীন দেশের পরাধীন গণমাধ্যম ও শহীদ রমেল চাকমা


প্রত্রিকায় প্রকাশিত খবরে রমেল চাকমা হত্যাকান্ড; তুলনামুলক বিশ্লেষণঃ

১। ইত্তেফাক ২৩ এপ্রিল ১৭ (বিশেষ প্রতিনিধি রাঙ্গামাটি);
রাঙ্গামাটিতে রমেল চাকমার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে অবরোধ পালিত হয়েছে। এদিকে, এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি সশস্ত্র গ্রুপ পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার জন্য প্রপাগাণ্ডা শুরু করেছে। ইতোমধ্যে তারা রোমেল চাকমার লাশ নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা পুড়িয়ে ফেলেছে বলে প্রচার চালিয়েছে।

স্বীকৃতি পাচ্ছেন অনন্য অবদানের


বাংলাদেশে নারীরা কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।যে যার অবস্থান থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এবং তার পুরুস্কারও পাচ্ছে। শুধু শিক্ষাক্ষেত্রে নয়, প্রশাসনিক ক্ষেত্রে কিংবা সামরিক বাহিনীতেও তারা কাজ করে সফলতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতেও তারা সৎ ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের মেধা ও মননশীলতা দিয়ে অর্জন করছেন অনেক খেতাব, তারই ধারাবাহিকতায় কর্মক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে‘বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন অ্যাওয়ার্ড-২০১৭’পাচ্ছেন ২১ নারী পুলিশ সদস্য ও দুটি প্রতিষ্ঠান। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজের কনভেনশন হলে এক অনুষ্ঠানে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। আন্তর

কল্পনা চাকমা থেকে রমেল চাকমা বনাম- বাংলাদেশ


পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবন। পাহাড় পর্বতে ঘেরা অপূর্ব প্রকৃতিক সৌন্দর্য্যে র লীলাভূমিরর এই অঞ্চলেরর সৌন্দর্য্য উপভোগের জন্য দেশ-বিদেশের পর্যটকেরা ভিড় করে নিয়মিত। কিন্তু কেউ খবর রাখে না এই অঞ্চলের উপজাতিদের খবর রাখে না সেনাবাহিনী-বাঙ্গালি সেটালার কর্তৃক নিপীড়িত নির্যাতিত আদিবাসীদের করুণ ইতিহাসের।

এমপিও ভুক্তির জন্য শিক্ষকদের আন্দোলন ও জাতির লজ্জা


বারট্রাণ্ড রাসেল বলেছিলেন, "মানুষের সুখী হওয়ার জন্যে সবচেয়ে বেশি দরকার বুদ্ধির – এবং শিক্ষার মাধ্যমে এর বৃদ্ধি ঘটানো সম্ভব।"শিক্ষা হলো সভ্যতার রূপায়ন, জাতির মেরুদণ্ড। আর সেই জাতি গড়ার সুনিপুন কারিগর যেমন শিক্ষক তেমনি জাতির সুনাগরিক তৈরি করার মহান ব্যক্তিত্বও তাঁরাই। শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ও নিবেদিত এই ব্যক্তিবর্গের নিরলস পরিশ্রম ও কর্মকাণ্ডে এই শিক্ষক শব্দটা শ্রুতিমধুর ও মর্যাদার আসন পেয়েছে।

কিন্তু আজ জাতি গড়ার এই মহান স্থপতিরাই সবচেয়ে নিপীড়িত, অবহেলিত লাঞ্চিত।

পার্বত্য চট্টগ্রামে বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড



গত ৫ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে সকাল ১০টার দিকে রাঙ্গামাটি জেলার নান্যাচার উপজেলায় এই বছরের এইচএসসি পরীক্ষার্থী রমেল চাকমাকে আটক করে নান্যাচর জোনের মেজর তানভির ও একদল সেনাসদস্য। এরপর রমেল চাকমাকে টেনে নিয়ে যাওয়া হয় জোন ক্যাম্পে এবং সারাদিন ধরে তার উপর নির্যাতন চালানো হয়। এতে রমেল চাকমা গুরুতর আহত হন এবং সন্ধ্যার দিকে তাকে নান্যাচর থানায় হস্তান্তরের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু আহত রমেল চাকমার শারীরিক অবস্থা দেখে পুলিশ গ্রহণ করেনি। পরবর্তীতে সেনাসদস্যরা তাকে স্থানীয় উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করাতে চাইতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করে। এরপর থেকেই চমেকে চিকিৎসাধীন ছিলেন এবং গতকাল ১৯ এপ্রিল তারিখে তিনি মারা যান।

আওয়ামী লীগ- হেফাজত কোলাকুলি শুধুই ভোটের খেলা নয়, এর পেছনে চেতনাগত নৈকট্যও আছে!


২০০১ এ পরাজয়ের পর ২০০৮এ ক্ষমতায় এসেই আওয়ামী লীগ একের পর এক প্রতিষ্ঠান এবং স্থাপনার ইসলামী নামকরণ করতে থাকে। এতে করে দুদিক থেকে ফায়দা। এক. বিএনপি-জামাতের চেয়েও তারা বেশি ধর্মপ্রাণ সেটা প্রমাণ করা। দুই. প্রতিষ্ঠান আর স্থাপনাগুলোর নাম দেশের বিশিষ্ট ইসলামী পীর-বুজর্গদের নামে নামকরণ হওয়ায় আপামর ধর্মপ্রাণ মানুষও তাদেরকে ধর্মনিরপেক্ষ না ভেবে ধর্মপ্রাণ মুসলিমই ভাবেন। আর এটাই আওয়ামী লীগের কাঙ্খিত ছিল। আওয়ামী লীগ যে ঘোষিত ইসলামী দল জামাতে ইসলামী আর নিজেদের ‘ইসলামের ঠিকাদার’ ভাবা বিএনপি’র চেয়েও বেশি ইসলামপ্রিয় এবং ধর্মপ্রাণ সেটা প্রমাণিত! এতে তাদের ঐতিহ্যের কোনো বত্যয় তো নয়ই বরং তারা এ নিয়ে গর্বিত!

বিদ্যুৎ প্রকল্পে বিনিয়োগ ১০০ কোটি ডলার


দেশের উন্নয়নে বিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। বিদ্যুৎ ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। বিদ্যুতের উন্নয়নে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ভুটানে জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে ১০০ কোটি ডলার বিনিয়োগে সম্মতি দিয়েছে বাংলাদেশ। ভারতকে সঙ্গে নিয়ে ত্রিপক্ষীয় ওই প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ আগামীতে ভুটান থেকে প্রায় এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়ার আশা করছে। ২০২১ সালের মধ্যে সারা দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দিতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৪ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়ে গেছে। সরকার ২৫ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন টার্গেট নিয়ে কাজ করছে। দেশের অর্থনীতি দ্রুত এগিয়ে য

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর